s alam cement
আক্রান্ত
৪৫৭০৮
সুস্থ
৩৪৯৫২
মৃত্যু
৪৩৭

হারানো গৌরব ফিরিয়ে সম্মিলিত পরিষদকে বিজয়ী করার আহবান

বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচন

0

জাঁকজমকভাবে হয়ে গেল বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের নির্বাচনে সম্মিলিত পরিষদের প্যানেল পরিচিতি সভা। সোমবার (২২ মার্চ) চট্টগ্রামের হোটেল আগ্রাবাদে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্যানেল পরিচিতি সভায় পরিচালক পদে সম্মিলিত পরিষদের ২৪ জন প্রার্থী উপস্থিত ছিলেন।

সভা থেকে বক্তারা এসোসিয়েশনের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে সম্মিলিত পরিষদকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান। আগামি ৪ এপ্রিল বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের (বিএসএএ) নির্বাচনে ভোটগ্রহণের কথা রয়েছে।

সম্মিলিত পরিষদের প্যানেল লিডার সৈয়দ মোহাম্মদ আরিফ পরিষদের ১১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেন। ইশতেহারে রয়েছে ঐক্যমতের ভিত্তিতে সবাইকে নিয়ে কাজ করা, সাবকমিটিগুলোকে কার্যকর করার জন্য কন্টেইনার, বাল্ক, ট্যাংকার ইত্যাদির জন্য অভিজ্ঞদের নিয়ে কমিটি গঠন, প্রতি তিন মাস অন্তর সব সদস্যদের নিয়ে সভা করে সমস্যার সমাধানে কার্যকরী ভূমিকা রাখা, সদস্যদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ইত্যাদি।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ শিপিং ব্যক্তিত্ব আতাউল করিম চৌধুরী, পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ ওসমান গনি, কাজি এমডি চৌধুরী, মোহাম্মদী শিপিংয়ের পরিচালক নাইম, লিটমন্ড শিপিংয়ের পরিচালক মো. বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।

সম্মিলিত পরিষদের প্যানেল লিডার সৈয়দ মোহাম্মদ আরিফ বলেন, ‘দীর্ঘ ১৭ বছর পর উৎসবমুখর পরিবেশে এই সংগঠনটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন না হওয়ায় সরকারি–বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সভায় এসোসিয়েশনের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে।’

Din Mohammed Convention Hall

তিনি বলেন, ‘সাধারণ সদস্যদের স্বার্থ রক্ষায় এবারের নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সম্মিলিত পরিষদ সবসময় সাধারণ সদস্যদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করে এসেছে। আগামী দিনেও সদস্যদের পাশে সবসময় থাকার অঙ্গীকার করছি।’

পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ ওসমান গনি চৌধুরী বলেন, ‘সম্মিলিত পরিষদ ঐক্যমতের ভিত্তিতে সবাইকে সাথে নিয়ে কাজ করতে চায়। ব্যক্তিগত স্বার্থে এসোসিয়েশনকে ব্যবহার করবে না সম্মিলিত পরিষদ। এসোসিয়েশনের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে আমরা বদ্ধপরিকর।’

অনুষ্ঠানে মোহাম্মদী শিপিংয়ের পরিচালক কাজি এমডি আবু নাইম বলেন, ‘অতীতে আমরা দেখেছি–বন্দর ও কাস্টমসসহ বিভিন্ন সংস্থায় অনেকে নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারে ব্যস্ত ছিলো। এর বড় প্রমাণ হলো গভীর সাগরে পাইলিং দায়িত্ব পাঁচ প্রতিষ্ঠন বাগিয়ে নেওয়া। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিজেদের জাহাজ ভিড়ানোর জন্য তদবির। এরা কারা তা সাধারণ সদস্যরা সবাই জানেন। সাধারণ সদস্যদের স্বার্থবিরোধী কর্মকাণ্ডে যারা যুক্ত তাদেরকে হঠাতে হলে সম্মিলিত পরিষদের বিকল্প নেই।’

কেএস

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm