s alam cement
আক্রান্ত
৫১৪৯৯
সুস্থ
৩৭৪৯৪
মৃত্যু
৫৭৩

চট্টগ্রামে ৭০০ ছাড়িয়ে গেল করোনা আক্রান্ত রোগী

ডাক্তার ম্যাজিস্ট্রেট ওসি শিল্পপতিও আছেন তালিকায়

0

চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। সবমিলিয়ে চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৭১৬ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১০০ জন। অন্যদিকে মৃত্যু হয়েছে ৩২ জনের।

শনিবার চট্টগ্রাম মহানগরের ১৯টি এলাকা ও জেলার ৫ উপজেলায় মোট ৭৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের জীবাণু পাওয়া গেছে। এর মধ্যে চার চিকিৎসক, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, একজন ওসি ও এক সাংবাদিক ছাড়াও রয়েছেন চট্টগ্রামের একজন শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতি।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (আরডিসি) নাজমুন নাহার করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন শনিবার। চট্টগ্রামে প্রথম ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে করোনায় আক্রান্ত হলেন তিনি।

এছাড়া সিএমপিতে করোনা ভাইরাস এর মধ্যে স্থায়ীভাবে বাসা বাধলেও প্রথমবারের মত চট্টগ্রাম জেলা পুলিশেও একজন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হলেন কাল। জেলা পুলিশের প্রথম সদস্য হিসেবে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন সন্দ্বীপ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ শরীফুল ইসলাম।

শনিবার (১৬ মে) চট্টগ্রামের তিন ল্যাবে ৫০৪টি নমুনা পরীক্ষায় ৭৯ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ এসেছে। যাদের মধ্যে মহানগরীর ৫৪ জন এবং উপজেলার ২৫ জন। এর মধ্যে ৪ জনের দ্বিতীয়বার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ আসলো।

শনিবার যে চার চিকিৎসক শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হল তাদের দুজনের নন্দনকাননের বাসিন্দা। অন্য দুজনের একজন দক্ষিণ নালাপাড়া এবং অপরজন আগ্রাবাদ এলাকার বাসিন্দা। এছাড়া বেসরকারি টেলিভিশন ইন্ডিপেন্ডেন্টের চট্টগ্রাম অফিসে কর্মরত একজন সাংবাদিকের নমুনায় করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছেন।

Din Mohammed Convention Hall

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও বিআইটিআইডির ল্যাব থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মহানগরের আক্রান্তদের মধ্যে মধ্যে দামপাড়া পুলিশ লাইনে ৩৩ বছর বয়সী এক নারী ও ১১ বছরের এক শিশু সহ মোট ৮ জন। পুলিশ লাইনে আক্রান্ত হওয়া বাকি ৬ জন পুরুষের বয়স যথাক্রমে ৪০, ৪৪, ২২, ৩৮, ৩৩ এবং ৪৮ বছর। এর বাইরে আগ্রাবাদে ৩০ বছর বয়সী একজন পুরুষ ডাক্তার ও ৩১ বছর বয়সী এক পুরুষ। আলকরণে ৩ বছর বয়সী এক শিশু, ২৯ ও ৬৫ বছর বয়সী দুই নারী, কর্নেলহাটে ৩৪ বছর বয়সী পুরুষ, আকবর শাহ এলাকায় ৩৯ বছর বয়সী পুরুষ, ফিরোজশাহতে ৩৪ বছর বয়সী নারী, পাঁচলাইশে ৬৬ বছর বয়সী পুরুষ, কাজীর দেউরীতে ৪৫ বছর বয়সী নারী, বিআইটিয়াইডির ফ্লু কর্নারে ৭০ বছর বয়সী এক পুরুষ ছাড়াও ৫৯ বছর বয়সী আরেকজন পুরুষ করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

কোতোয়ালি থানা এলাকার ৩১, ২১, ৫৫, ৬৬, ৬৫, ৩৫, ৩৩ ও ৩২ বছর বয়সী ৮ জন পুরুষ এবং ৩৬, ৪৫, ১৫ বছর বয়সী ৩ নারী সহ ১১ জন। হালিশহরে ১৪ বছরের কিশোর ও ১৮ বছরের নারী, সদরঘাটের ৫৩ বছরের পুরুষ ও একই থানার আইস ফ্যাক্টরি রোডে ৩৫ বছর বয়সী এক পুরুষ। দক্ষিণ নালাপাড়া এলাকার ৮৭ বছর বয়সী পুরুষ। চাক্তাই এলাকায় ৪০ বছরের পুরুষ। পাহাড়তলী এলাকার ৪৪ বছরের পুরুষ ও ৬০ বছর বয়সী নারী। নতুন চান্দগাঁও এলাকার ৩৮ ও ৪৫ বছর বয়সী দুইজন পুরুষ, সিএন্ডবি চান্দগাওয়ের ৩২ বছর বয়সী এক নারী। বন্দর থানার ফ্রিপোর্ট এলাকার ২২ বছরের নারী । ডবলমুরিং ৩৮ বছর বয়সী পুরুষ, দেওয়ানহাট ৫৫ বছরের পুরুষ, দামপাড়া ৩৮ বছরের এক পুরুষ, খলিফাপট্টি ২৬ বছরের এক পুরুষ। ইপিজেড থানায় ৩৬ বছর বয়সী নারী।

উপজেলার মধ্যে হাটহাজারীর ডাক বাংলো রোডের একই পরিবারের ৩ শিশু ও এক নারী আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের বয়স যথাক্রমে ১২, ১৬, ৬ এবং ৩৫। হাটহাজারী কুয়াইশ কলেজে ৪০ বছর বয়সী পুরুষ এছাড়া সীতাকুণ্ড উপজেলার বারবকুন্ডে ২৪ বছরের পুরুষ, মৌলভীপাড়ায় ১৮ বছরের কিশোর, পটিয়ার ৩৬, ৫৩, ২১ ও ২৯ বছরের চারজন পুরুষ এবং ২৩ বছরের এক নারী রয়েছেন।

এর বাইরে সিভাসুর ল্যাবে শনাক্ত ১২ জনের মধ্যে হাটহাজারীর নয় জনের চারজনই একই পরিবারের সদস্য। তারা হাটহাজারী উপজেলার ছয় নং ওয়ার্ডের কাটাখালি এলাকার বাসিন্দা। বাকিদের একজন এক নম্বর ওয়ার্ডের সৈয়দ বাড়ির বাসিন্দা এবং আরেকজন দুই নম্বর ওয়ার্ডের মৌলভী আব্দুস সোবাহান বাড়ির বাসিন্দা। এছাড়া সন্দ্বীপ থানার ওসিও করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সহধর্মিনী ও চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিন, তার ছোট ছেলে বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীনসহ তাদের পরিবারের একজন গৃহকর্মীর নমুনা দ্বিতীয় দফার পরীক্ষায় আজ (১৬ মে) আবার পজিটিভ এসেছে। এর আগে ১২ মে হাসিনা মহিউদ্দিনসহ দুই গৃহকর্মী এবং ১১ মে বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীনের শরীরে প্রথম শনাক্ত হয় করোনাভাইরাস।

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ল্যাব বিআইটিআইডিতে ২২১টি নমুনা পরীক্ষায় ৩৩টি পজিটিভ এসেছে। এর মধ্যে চট্টগ্রামের ২৮ জন। অন্যদিকে মহানগরের ১৯ এবং উপজেলায় ৯ জন। উপজেলার মধ্যে হাটহাজারীর ৪ জন, সীতাকুণ্ডের ২ জন ও পটিয়ার ৩ জন ব্যক্তির শরীরে করোনার জীবাণু মিলেছে। এছাড়া ভিন্ন জেলায় রয়েছেন আরও ৫ জন।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে ৯১টি নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ এসেছে ৩৮ জনের। এর মধ্যে মহানগরের ৩৫ জন এবং উপজেলার ৩ জন। এদের মধ্যে তিনজনের দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ আসলো।

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ১৫ মের ১০০টি নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ এসেছে ২৫ জনের। এর মধ্যে চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলায় রয়েছেন একজন, তবে নমুনাটি পুরাতন রোগীর। বাকি ২৪ জন ভিন্ন জেলার।

সিভাসুর শনিবার (১৬ মে) পরীক্ষা করা ৮৩টি নমুনার মধ্যে এসেছে ১২টি পজিটিভ। এর মধ্যে সকলেই উপজেলার বাসিন্দা। মহানগরীর কেউ শনাক্ত হয়নি সেখানে।

অন্যদিকে কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চট্টগ্রাম জেলার ৯টি নমুনা পরীক্ষায় সবগুলো নেগেটিভ আসে।

এআরটি/এসআর/সিপি

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm