s alam cement
আক্রান্ত
১০২৪১৫
সুস্থ
৮৬৮৫৬
মৃত্যু
১৩৩১

চট্টগ্রামে মিলল বিশ্বের নতুনতর প্রজাতি— চাটগাঁইয়ার গাতা ব্যাঙ

0

সম্পূর্ণ নতুন এক প্রজাতির ব্যাঙের দেখা মিলেছে চট্টগ্রামের চুনতি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে। বাংলাদেশই শুধু নয়, পুরো বিশ্বের জন্যই এটি একেবারে নতুন প্রজাতির ব্যাঙ। গত ১৯ আগস্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পিআরজে জার্নালে এই ব্যাঙ নিয়ে গবেষণার বিস্তারিত প্রকাশ পেয়েছে। চট্টগ্রামের নাম অনুসারে ও গর্তবাসী হওয়ায় এই ব্যাঙের নাম দেওয়া হয়েছে ‘চাটগাঁইয়ার গাতা ব্যাঙ’ (Chattgai ar gata bang)।

চট্টগ্রাম থেকে পাওয়া নতুন প্রজাতির এই ব্যাঙ আবিষ্কার করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) প্রাণীবিদ্যা বিভাগের দুই শিক্ষার্থী হাসান আল রাজী চয়ন ও মারজান মারিয়া। এর আগে ২০২১ সালের মে ও ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে আরও দুটি নতুন প্রজাতির ব্যাঙ আবিষ্কার করেছিলেন এই দম্পতি।

২০১৯ সালের জুন মাসে এই দম্পতি চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার চুনতি বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ অভয়ারণ্য থেকে এই ব্যাঙের নমুনা সংগ্রহ করেন। এটি পরিচিত ব্যাঙের চেয়ে কিছুটা আলাদা প্রকৃতির।

ব্যাঙটি ফ্রাইনোগ্লোসাস বর্গের। এর শারীরিক গঠন পি. মার্টেনসির প্রজাতির কাছাকাছি। তবে এর দৃষ্টিগ্রাহ্য কিছু পার্থক্যও রয়েছে। এই নতুন প্রজাতির বৈজ্ঞানিক নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইনোগ্লোসাস সোয়ানবরনোরাম (Phrynoglossus swanbornorum)। গবেষকরা এ ব্যাঙের শারীরিক পরিমাপ, মলিকুলার বিশ্নেষণের পাশাপাশি ডাকের বিশ্লেষণও করেছেন— যা অন্যান্য ব্যাঙের চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন। তবে নতুন এই প্রজাতির অস্তিত্ব হুমকির মুখে। উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও কৃষি সম্প্রসারণ এবং ব্যাপক হারে কীটনাশক ব্যবহারের কারণে হুমকিতে রয়েছে এই ব্যাঙ।

গবেষণায় ব্যাঙটিকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করে তারা বুঝতে পারেন, এটা পরিচিত ব্যাঙের থেকে কিছুটা আলাদা প্রকৃতির। এটা নিয়ে বিস্তর গবেষণা করে প্রাণীবিদ্যা বিভাগের দুই শিক্ষার্থী বুঝতে পারেন যে, এটা পুরো বিশ্বের জন্য একদম নতুন প্রজাতির ব্যাঙ।

পরবর্তীতে এই গবেষণা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পিআরজে জার্নালে সাবমিট করার ছয় মাস রিভিউর পর তারা অনুমোদন দেয়। ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালাইনের সহায়তায় তা ১৯ আগস্ট প্রকাশ পায়।

এ বিষয়ে হাসান আল রাজী চয়ন বলেন, ‘নতুন প্রজাতির এই ব্যাঙটি আমাদের তৃতীয় আবিষ্কার। নতুন কিছু আবিষ্কারের মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করাটা আমাদের জন্য অনেক আনন্দদায়ক।’

এ বিষয়ে মারজান মারিয়া বলেন, ‘নতুন প্রজাতির এই ব্যাঙ আবিষ্কার করে আমরা অনেক খুশি। নতুন এই আবিষ্কার আমাদের জন্য একটা অনুপ্রেরণা।’

সিপি

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm