আক্রান্ত
১৮২৪৪
সুস্থ
১৪৩৬১
মৃত্যু
২৮৪

আরও ১১৮ করোনা পজিটিভ, চট্টগ্রামে কমেছে সুস্থতার সংখ্যাও

0

চট্টগ্রামে করোনা শনাক্তের মিছিলে ২৪ ঘণ্টায় যোগ হলেন আরও ১১৮ জন, যাদের ৮৭ জন নগরের ও ৩১ জন উপজেলার। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনা পজিটিভ এখন ১৫ হাজার ৩৪২ জন। যাদের মধ্যে ১০ হাজার ৮০৩ জন নগরের এবং চার হাজার ৫৩৯ জন উপজেলার বাসিন্দা। একইসাথে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাজয়ের সংখ্যা আগেরদিনের চেয়ে কমে দাঁড়ায় ৪৯ জনে। ফলে এ নিয়ে সুস্থতার সংখ্যা এখন তিন হাজার ২৪৫ জন। অন্যদিকে, একই সময়ে নগরে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা এখন ২৪৬। এর মধ্যে নগরে ১৭২ এবং উপজেলায় ৭৪ জন।

মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) সকালে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি এসব তথ্য জানান।

তিনি জানান, চট্টগ্রামের সরকারি তিনটি ও বেসরকারি দুটি ল্যাব এবং কক্সবাজারের একটি ল্যাব মিলে ৬৯২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১১৮ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। একইসাথে গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে করোনা থেকে ৪৯ জন সুস্থ হয়েছেন এবং এক জন মারা গেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের প্রধান করোনা পরীক্ষাগার ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি)-তে বিদেশগামীদের বাধ্যতামূলক করানো করোনা টেস্টসহ ১৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করোনা করা হয়। তাতে করোনা শনাক্ত হয় মাত্র ১০ জন। এর মধ্যে ৮ জন নগরের বাসিন্দা ও ২ জন বিভিন্ন উপজেলার।

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ইউনিভার্সিটি (সিভাসু) ল্যাবে ৫৭টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনা পজিটিভ হন ৭ জন। এদের মধ্যে ৪ জন নগরের এবং বাকি ৩ জন উপজেলার।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় দিনের সর্বাধিক ১৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে দিনের সর্বোচ্চ ৩০ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের জীবাণু পাওয়া যায়। যাদের মধ্যে নগরের ২৬ জন, বাকি ৪ জন উপজেলার বাসিন্দা।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১২৯ জনের করোনার পরীক্ষা হয়। তাতে ২৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। যাদের ১১ জন নগরের এবং ১৬ জন বিভিন্ন উপজেলার।

বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৬৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৭ জনের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। যাদের ২৫ জনই নগরের, বাকি ২ জন উপজেলার বাসিন্দা।

চট্টগ্রামের আরেকটি বেসরকারি পরীক্ষাগার শেভরণ ল্যাবে ৯১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনা শনাক্ত হয় ১৭ জনের দেহে। এদের মধ্যে ১৩ জন নগরের এবং ৪ জন উপজেলার।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ১০ জনের নমুনা পরীক্ষা করেও কোন পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়নি।

উপজেলা পর্যায়ে নতুনভাবে করোনা শনাক্ত ৩১ জনের মধ্যে রাউজান উপজেলার সাথে ফটিকছড়ি উপজেলাতেও সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়। উভয় উপজেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৮ জন করে। এছাড়া হাটহাজারী ও সন্দ্বীপে ৩ জন করে, রাঙ্গুনিয়া, মিরসরাই ও সীতাকুণ্ডে ২ জন করে এবং আনোয়ারা, পটিয়া ও বোয়ালখালীতে ১ জন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে।

এমএহক

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm