চেক প্রতারণায় ধরা এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি

পটিয়া

3

চট্টগ্রামের পটিয়ায় চেক প্রতারণা মামলায় এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি ওয়াহিদুল আলমকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার ওয়াহিদুল আলম পটিয়া পৌর সদরের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বাহুলী এলাকার সামশুল আলমের ছেলে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৬ জুলাই ওয়াহিদুল আলম পাওনা টাকা পরিশোধের জন্য শওকত ওসমান মুন্নার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান একিজে’কে ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকার ঢাকা ব্যাংকের দুটি চেক দেন। একইবছর চেক দুটি নগদায়নের জন্য ব্যাংকে দেওয়া হলে চেক দুটি ডিজঅনার হয়। পরে ওয়াহিদুল আলমকে লিগ্যাল নোটিশ দেয় শওকত ওসমান। তা ওয়াহিদ গ্রহণ না করায় শওকত ওসমান বাদি হয়ে ওয়াহিদের বিরুদ্ধে ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক প্রতারণা মামলা দায়ের করেন। মামলায় আদালত ওয়াহিদকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং চেকে লেখা টাকাগুলো পরিশোধ করতে বলা হয়। রায়ের পর থেকে ওয়াহিদ পলাতক ছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরের বহদ্দারহাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পটিয়া থানা পুলিশ।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উদ্দিন বলেন, ‘চেক প্রতারণা মামলায় ওয়াহিদুল আলমকে এক বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ওই মামলার ওয়ারেন্টের ভিত্তিতে তাকে বহদ্দারহাট এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ওয়াহিদকে আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।’

এএইচ

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

3 মন্তব্য
  1. Ahamednur বলেছেন

    নেতার নাম কেন আসলো নেতা কি বলছে ভাতিজাকে নিজের ছেলের হিসাব বাবা রাখতে পারেনা চাচা কিভাবে রাখবে?? ফেইক নিউজ

  2. শিরোনামহীন বলেছেন

    বেদরকারি নিউজ প্রতিদিন কত হাজার চেকের মামলার রায় হয়

  3. কুতুবুল আলম বলেছেন

    শিরোনামটা অন্য ভাবে করা যেত যেখানে বাবা নিজের সন্তান কে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা সেখানে চাচা কি করবে একজনের অপবাদ অন্যজনের নামে দেওয়া যুক্তি যুক্ত বলে মনে করিনা এখানে নেতার নাম কেন আসবে?
    নেতাকি বলেছে এইসব করার জন্য.।
    যতসব ফাল্তু পোষ্ট

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন