আক্রান্ত
১৫২১৬
সুস্থ
৩১৯৬
মৃত্যু
২৪৫

জাহাজ নির্মাণ শিল্পের প্রভূত উন্নতি হয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী

1

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন- বাংলাদেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্পের প্রভূত উন্নতি হয়েছে। আমাদের জাহাজ রপ্তানি হচ্ছে। এটি বাংলাদেশের নাম বহির্বিশ্বে উজ্জ্বল করছে। আমাদের সক্ষমতা বাড়ছে বিভিন্ন ধরনের জাহাজ নির্মাণে। জাহাজ নির্মাণ, উন্নতি

তিনি বলেন- ভারত, ভুটান, নেপালকে আমাদের বন্দর ব্যবহার করতে দিলে দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে। আমরা উন্নতির স্বার্থে বন্ধুত্বের সম্পর্ক বজায় রাখবো। চট্টগ্রাম বন্দর ও মংলা ব্যবহার করলে পূর্ব ভারতের ১৫ মিলিয়ন জনগণ এগিয়ে যাবে। এতে প্রতিবেশী দেশের সাথে আমাদের দেশের সম্পর্ক সুদৃঢ় হবে।

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) বাংলাদেশে তৈরি বৃহত্তম দুইটি কার্গো জাহাজ ভারতের জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কসকে হস্তান্তর উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে বলা হয়েছিলো বটমলেস বাস্কেট। বলা হয়েছিলো বাংলাদেশ টিকবে না। আজ বাংলাদেশ পৃথিবীর কাছে বিস্ময়। আমাদের টার্গেট ডাবল ডিজিট গ্রোথ। আগামী বছর বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী।

তিনি বলেন, পৃথিবী হচ্ছে পার্টনারশিপ ব্যবসাক্ষেত্র। নৌপথে খরচ কমবে। আমরা ভারত থেকে বেশি সুবিধা নিতে পারি। শুধু মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হবে। আমরা ভৌগোলিকভাবে সুবিধাজনক অবস্থানে আছি। মংলা বন্দরের উন্নয়ন হয়েছে, চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বাড়ছে।

অনেক জায়গায় আরও কাজ করার সুযোগ আছে। বর্ডার হাট চালু হয়েছে। আমাদের দুর্দিনে, মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছিলো। ১ কোটি মানুষকে জায়গা দিয়েছিলো।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্পের অগ্রগতি হয়েছে। আমাদের জাহাজ রপ্তানি হচ্ছে। এটি বাংলাদেশের নাম বহির্বিশ্বে উজ্জ্বল করছে। আমাদের সক্ষমতা বাড়ছে বিভিন্ন ধরনের জাহাজ নির্মাণে।

অনুষ্ঠানে ভারতীয় হাই কমিশন রীভা গাঙ্গলী দাশ বলেন, বাংলাদেশের সাথে ভারতের সম্পর্কের সোনালী অধ্যায় চলছে। চট্টগ্রাম বন্দরের ট্রানজিট তার আরেকটি অনন্য উদাহরণ। এতে ভারত ও বাংলাদেশের বন্ধুত্বের বন্ধন আরো দীর্ঘস্থায়ী ও শক্তিশালী হবে।

পরে জাহাজ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন করেন অতিথিরা।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে ভারতের জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কস ২০০ কোটি টাকায় ৪টি জাহাজ নির্মাণের কার্যাদেশ দেয়। ২০১৭ সালের অক্টোবরে ‘জেএসডব্লিউ রাইগাড়’ ও ‘জেএসডব্লিউ প্রতাপগড়’ হস্তান্তর করা হয়।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, এমডি সোহেল হাসান, ডিএমডি আবদুল মোবিন। এসময় ভারতের হাইকমিশনের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

এএস/এসএইচ

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive
1 মন্তব্য
  1. সোহেল বলেছেন

    শিপবিল্ডিং পড়ে চাকরি নাই, শিপ ইর্য়াড ডক ইর্য়াড এ।
    আগে চকরির ব্যাবস্হা করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm