হাটহাজারীর সেই পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টকে পরিবেশ অধিদপ্তরের নোটিশ

0

পরিবেশগত ক্ষতি সাধনের দায়ে চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী উপজেলায় অবস্থিত ১০০ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টকে শুনানিতে হাজির হওয়ার নোটিশ দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয়।

সোমবার (৮ জুলাই) নোটিশে স্বাক্ষর করেন অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজাদুর রহমান মল্লিক। নোটিশে ১৭ জুলাই সকাল দশটায় শুনানিতে হাজির হওয়ার জন্য পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টের ম্যানেজারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ওই নোটিশে পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টের ম্যানেজারের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে, ৮ জুলাই আপনার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয় কর্তৃক এনফোর্সমেন্ট পরিচালনা করা হয়। এ সময় আপনার প্রতিষ্ঠানে অনিয়ম ও অ্যবস্থাপনা উদঘাটিত হয়।’

নোটিশে পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলো হলো- কারখানার তরুল বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করা হয়নি/বন্ধ/সঠিকভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে না। ফলে দূষিত তরল বর্জ্য নির্গত হচ্ছে, যা পরিবেশ ও প্রতিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর এবং কারখানার সৃষ্ট তরল বর্জ্য বাইপাস ড্রেনের মাধ্যমে পরিবেশে নির্গত হচ্ছে।

এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. আজাদুর রহমান মল্লিক বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টে ইটিপি নেই। তারা তরল বর্জ্য জমা করে বৃষ্টি হলে খোলা পরিবেশে ছেড়ে দেয়। এর ফলে দূষিত হচ্ছে হালদা নদী। তাই তাদেরকে ১৭ জুলাই শুনানিতে হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, সোমবার (৮ জুলাই) সকালে হাটহাজারী উপজেলাধীন এগারো মাইল এলাকায় অবস্থিত মরা ছড়া পরিদর্শন করেন উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমিন। পরিদর্শন শেষে ওই দিনই পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক বরাবর একটি লিখিত প্রতিবেদন দেন তিনি।

ওই প্রতিবেদনে রুহুল আমিন জানান, হাটহাজারী পৌরসভার এগারো মাইল এলাকায় অবস্থিত হাটহাজারী ১০০ মেগাওয়াট পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টে বিদ্যুৎ উৎপাদন কাজে ব্যবহৃত পোড়া ফার্নেস তেল নালার মাধ্যমে মরাছড়া খালে দেওয়া হচ্ছে। মরা ছড়া খাল সরাসরি হালদার সাথে যুুক্ত বিধায় নির্গত তেল বৃৃষ্টির পানির সাথে হালদায় পতিত হচ্ছে। ফলে হালদার সামগ্রিক পরিবেশের বিপর্যয় ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।

এমএ/এসএস

Loading...
আরও পড়ুন