চট্টগ্রাম জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা

0

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে আইন -শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোজা ও ঈদকে ঘিরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাইসহ নগরের যানজট নিয়ন্ত্রণে রাখার তদারকির জন্য এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো.ইলিয়াস হোসন।সভায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজলা চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো মুশফিকুর রহমান বলেন,‘ফটিকছড়ির সার্বিক পরিস্থিতি ভাল।তবে রামগড় চা বাগানের মালিকের সাথে শ্রমিকের দ্বন্দ্ব হলে মালিক তা বন্ধ করে দেয়।একমাস যাবত বন্ধ থাকায় শ্রমিকেরা মানবেতর জীবন যাপন করছে।শ্রমিক ও মালিকদের সমঝোতা করার লক্ষ্যে মালিককে বৈঠকে বসার জন্য বলেছিলাম।মালিক বৈঠকে আসেননি।এর ফলে শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ হতে পারে।
উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বলেন,‘রামগড় চা বাগানের ম্যানেজার অন্যের জায়গা বাড়ি ঘর দখল করে নিচ্ছে। এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।

পটিয়া নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান বলেন, ‘পটিয়ায় গরু চোরের প্রভাব রয়েছে। একটি সংঘবদ্ধ চক্র মানুষের গরু চুরি করে নিচ্ছে। তবে স্থানীয় থানা কর্মকর্তা বলেছেন তেমন অভিযোগ থানায় তেমন আসেনাই।আসলে আমরা পদক্ষেপ নিই।
জেলা প্রশাসক বলেন,‘যারা গরু পালন করেন তারা দুধ বেঁচে জীবিকা নির্বাহ করেন। সুতরাং প্রশাসনকে এ বিষয়ে নজরদারি বাড়াতে হবে।
সাতকানিয়ার নির্বাহী কর্মকর্তা মোবারক হোসেন বলেন, আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে অভিযান পরিচালা করছি। অনেক বালুমহাল বন্ধ ও ড্রেজার ধ্বংস করেছি।

চন্দনাইশের নির্বাহী কর্মকর্তা আ ন ম বদরুদ্দোজা বলেন,‘বাসি পঁচাও মরা গরুর মাংস বিক্রির অভিযোগ পেয়ে আমরা এগুলো বন্ধ করে দিয়েছি।
বাঁশখালী নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আকতার বলেন,‘বাঁশখালীতে ডাকাতের উপদ্রব রয়েছে। অবৈধভাবেই বালু উত্তোলন বন্ধ করতে গেলে তারা পানি উন্নয়ন বোর্ডের অনুমতির কাগজ দেখান। এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের বালু তোলার অনুমতি দেয়ার ক্ষমতা নেই।এটা অবশ্যই জেলা প্রশাসনকে জানাতে হবে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন তিনি।’
হাটহাজারী নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন,আমি হালদায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছি। ঘেরা জাল,ইঞ্জিনচালিত যান চলাচল বন্ধ ও হালদা দূষণ রোধে কাজ করছি। তবে উপজেলা চেয়ারম্যান এম রাশেদুল আলম মাদক,সন্ত্রাস,হালদা দূষণ,অক্সিজেন হাটহাজারী রোডে যানজটের সমস্যার কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, হাটহাজারী সদরে চাঁদা দেয়া ছাড়া একটি ভবনও তৈরি করা যায় না। বেড়িবাধে অধিগ্রহণকৃত জমির মালিককে পাওনা বুঝিয়ে দেয়ার অনুরোধ করেন।

পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা বলেন, ব্যাটারিচালিত রিক্সার টোকেন শুধু পুলিশ দেয় না। আরো অনেকে দেয়। জঙ্গি হামলার বিষয়ে আমরা সতর্ক আছি। ঈদের জামাত,বৌদ্ধ পূর্নিমার ব্যপারেও আমরা সতর্ক আছি। প্রত্যেক রবিবার চার্চে পুলিশ প্রহরা দিচ্ছি। ঈদের নয়দিন ছুটিতে মানুষের তালাবন্ধ বাড়িতে চুরি হওয়ার আশংকা থাকে তাই আমরা ঈদের সময়ে এগুলো প্রহরার ব্যবস্থা করবো।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মো.সাইফুজ্জামান,পরিচালক আনসার ভিডিপি, কাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ, প্রসিকউশন সিএমপি, কাজী মো.তারেক আজিজ এএসপি র্যিব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যানগণ উপস্থিত ছিলেন।খবর বিজ্ঞপ্তির
এসএস

Loading...
আরও পড়ুন