৬ মাস আগে আঁখির ফোনও কেড়ে নেয় আইনজীবী স্বামী, চলতো পাশবিক অত্যাচার

চট্টগ্রামে স্বামীর ‘নির্যাতনে’ স্ত্রীর মৃত্যু

0

আইনজীবী স্বামীর ধারাবাহিক নির্মম নির্যাতনেই মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রামের তরুণী মাহমুদা খানম আঁখির (২১)— অভিযোগ করেছেন তার স্বজনরা। রোববার (১৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় নগরীর সার্জিস্কোপ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আঁখির মৃত্যু হয়।

মাহমুদা খানম আঁখি সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে এলএলবি দ্বিতীয় বর্ষে পড়তেন।

এ ঘটনায় পাঁচলাইশ থানা পুলিশ আঁখির স্বামী চট্টগ্রাম আদালতের আইনজীবী আনিসুল ইসলাম ও তার খালাতো ভাইকে আটক করেছে।

নিহত আঁখির ভগ্নিপতি আবুল কালাম চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমার শ্যালিকা আঁখির সাথে আইনজীবী আনিসুল ইসলামে বিয়ে হয় প্রায় দেড় বছর আগে। দুজনের বাড়ি বাঁশখালীর জলদি গ্রামে। বিয়ের পর তারা নগরীর চান্দগাঁও থানার পাঠানিয়া গোদা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো।’

আবুল কালামের অভিযোগ, ‘বিয়ের পর থেকে স্বামী আনিসুল যৌতুকের জন্য আঁখির ওপর নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। সে তার পরিবারকে নির্যাতনের কথা জানালে স্বামী আরও বেশি নির্যাতন চালাতে থাকে। ৬ মাস আগে তার ফোন কেড়ে নেয় আনিসুল। যার কারণে এতো দিন পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি।’

আবুল কালাম বলেন, ‘কয়েকদিন আগে তার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়। পেটে লাথি মারলে আঁখি গুরুতর আহত হয়। শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) তাকে নগরীর পার্কভিউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখে নির্যাতনে আঁখির পেটের নাড়িভূঁড়ি ছিঁড়ে যায়। কিন্তু জটিল এ অপারেশন করতে তারা অপরাগতা প্রকাশ করলে রোববার (১৮ ডিসেম্বর) সকালে আঁখিকে পাঁচলাইশ সার্জিস্কোপ ক্লিনিকে ভর্তি করানো। সেখানেই ওইদিন সন্ধ্যায় সে মারা যায়।’

পরিবার সূত্রে জানা যায়, উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর আঁখিকে আইনজীবী ছেলে দেখে বিয়ে দেয় তার পরিবার। কিন্তু বিয়ের পর গত দুই বছর স্বামীর অত্যাচারে রীতিমতো জলন্ত আগুনের মাঝে ছিলেন আঁখি।

পাঁচলাইশ থানার ওসি জাহিদুল কবির চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘তরুণীর মৃত্যুর ঘটনায় স্বামী ও তার খালাতো ভাইকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। পরিবারের অভিযোগ তাদের মেয়েকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। তাদের বাসা এবং নির্যাতনের ঘটনাস্থল যেহেতু চান্দগাঁও থানা এলাকায় সেহেতু মামলার বিষয়টি দেখবে চান্দগাঁও থানা।’

আরএম/কেএস/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm