১৩৩ কোটি টাকা মেরে খেল গোল্ডেন শিপব্রেকিং, জেলে যেতে হবে ৫ মালিককে

১৩৩ কোটি টাকার খেলাপি ঋণ পরিশোধ না করায় গোল্ডেন শিপব্রেকিং ইন্ডাস্ট্রিজের পাঁচ পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। এছাড়া তাদের পাঁচ মাসের সাজাও দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম অর্থঋণ আদালতের বিচারক মুজাহিদুর রহমান শুনানি শেষে এই আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন সোলায়মান চৌধুরী, আমির আকবর চৌধুরী, মো. মীর কাশেম চৌধুরী, মো. সেলিম রাজা চৌধুরী ও মো. করিম আওয়ান চৌধুরী। তারা সকলেই নগরীর পাঁচলাইশ চট্টেশ্বরী রোডের ‘চট্টল ভিউ’ ভবনের মরহুম মুফিজুর রহমানের ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৫ সালর ১ জানুয়ারি থেকে ২০১২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ১৩৩ কোটি ৩০ লাখ ৪০ হাজার ৭৫১ টাকার খেলাপি ঋণের বিপরীতে ঋণ পরিশোধ করেনি চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শেখ মুজিব রোডের মেসার্স গোল্ডেন শিপব্রেকিং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। এছাড়া জামানত হিসাবে বন্ধকী সম্পত্তি নিলামে তুলেও কোনো দর না পাওয়ায় ২০২১ সালের ১৭ অক্টোবর তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করা হয়।

এ আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট বিভাগে রিট মামলায় স্থগিত আদেশ পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রি-কল করা হয়। পরে রিট মামলায় ইস্যু করা রুল উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে শুনানি হয়। রিট মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করার ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময় উল্লেখ করে দেওয়ানী আটকাদেশ প্রদান করতে হবে বলে জানান হাইকোর্ট বিভাগ।

পুনরায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করার ক্ষেত্রে আইনগত কোনো প্রতিবন্ধকত্বা না থাকায় প্রতিষ্ঠানটির পাঁচ পরিচালকের বিরুদ্ধে ছয় মাসের দেওয়ানী আটকাদেশের আবেদনে পুনরায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

Yakub Group

আদালতের বেঞ্চ সহকারী রেজাউল করিম বলেন, ‘উত্তরা ব্যাংকের আগ্রাবাদ শাখার ২৮ বছর আগের খেলাপি ঋণ পরিশোধ না করায় মেসার্স গোল্ডেন শিপব্রেকিং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের পাঁচ পরিচালককে পাঁচ মাসের সাজা দিয়েছেন আদালত। তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করা হয়েছে।’

আরএস/ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ksrm