আক্রান্ত
৩৩৫৭
সুস্থ
২৪২
মৃত্যু
৭৭

সৌদিআরবে করোনায় মারা গেলেন উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা দিদার

1

করোনা উপসর্গ নিয়ে সৌদি আরবের রিয়াদে হাটহাজারীর সন্তান মো. দিদারুল আলম (৪৫) নামে এক প্রবাসী মারা গেছেন। কয়েকদিন ধরে সর্দি-জ্বরে ভোগার পর সৌদি আরব সময় শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় তার মৃত্যু হয় বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পরিবার।

দিদারুল আলমের ভাগিনা অধ্যক্ষ ইয়াসিন সেলিম বলেন, মামা সৌদি আরবের রিয়াদে চাকরিরত ছিলেন। গত ৫ দিন আগে উনার জ্বর হয়। উনি সাধারণ সর্দি-জ্বর হিসেবে নিয়েছিলেন। যার জন্য ডাক্তার দেখান নি। ওষুধ কিনে এনে খেয়েছিলেন। সর্বক্ষণ রুমেই ছিলেন। হঠাৎ করে শুক্রবার সন্ধ্যায় শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। এ সময় উনার সাথে থাকা লোকজন উনাকে রুমে একা রেখে চলে যায়। এ অবস্থায় ইফতার সময় মামা মারা যান।

তিনি বলেন, মামার মৃত্যুর পরপরই মেডিকেল টিম এসে তার মরদেহ নিয়ে যায়। করোনায় মৃত্যু হয়েছে কীনা নিশ্চিত হওয়ার জন্য নমুনা নেওয়া হয়েছে। আজ (শনিবার) সন্ধ্যায় রিপোর্ট পাওয়া যাবে বলে। এরপর সৌদি আরবের নিয়ম অনুসারে তাকে ওখানেই দাফন করা হবে।

মৃত দিদারুল আলম হাটহাজারী উপজেলার খন্দকিয়া গ্রামের বহদ্দার বাড়ির মো. ইউনূসের ছেলে। তিনি কেএস নজু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯০তম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। সৌদি আরবের যাওয়ার আগে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্বে পালন করেন। তাছাড়া ৯৬-এ অসহযোগ আন্দোলনে রাজপথে বেশ ভূমিকা রেখে ছিলেন তিনি। তার স্ত্রী সিথী গৃহিণী ও ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া একটা মেয়ে আছে বলে জানা গেছে।

এআর/এসএ

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Manarat
1 মন্তব্য
  1. সাইমন বলেছেন

    সাবেক ছাত্রনেতা রিয়াদ প্রবাসী দিদার ভাইকে নিয়ে মিথ্যাচার ctgpratidin.com এর
    আমরা চাই তথ্যভিত্তিক নিউজ গত ২২মে ২০২০ চট্রগ্রাম হাটহাজারীর কৃতি সন্তান চট্রগাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক রিয়াদ প্রবাসী মো: দিদারুল আলম দিদার ভাই মারা গেছেন সামান্য জ্বর এবং শাঁস কস্ট নিয়ে তিনি এর আগে ৪-৫ দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন ইন্ডিয়ান ডাক্তার দেখিয়ে ঔষুধ খেয়ে তিনি ৮০% ভাল হয়ে গেছিলেন তিনি স্বাভাবিক ভাবে চলাফেরা নিয়মিত ঔষুধ সেবন সহ সব কিছু নিজের মত করে চলে যাচ্ছিল হটাত ২২ মে বিকালবেলা ঘুম থেকে উঠে চুপচাপ ড্রইংরুমে চেয়ারে বসেছিল বেশ খানিকটা তার রুমমেট হালিম চৌধুরী ও তার ভাগিনা যারযার মত ঘোমাচছিলেন এরা মনে করছে অন্য দিনের মত দিদার স্বাভাবিক ভাবে বসে আছে কিন্তু হটাত একটা শব্দ শুনতে পেল রুমমেট হালিম চৌধুরী তাৎক্ষনিক হালিম চৌধুরী শুয়া থেকে উঠে এসে দেখতে পেল দিদার ভাই চেয়ার থেকে পরে গেল তখন হালিম চৌধুরী ও তার ভাগিনা মিলে দিদার ভাইকে ধরাধর করে বিছানায় শুয়াই দিছে হালিম ভাই জমজম কুপের পানি পান করিয়ে সাথে সাথে সৌদির ৯৩৭ নম্বরে ফোন করে জানিয়ে দিয়েছেন যেনো এম্বোলেন্স নিয়ে আসেন কিন্তু তারা আসবে আসবে করে লেইট হচ্ছিল একটু পরে দিদার ভাই ইশারা করে বলল তিনি বসতে চান তখন হালিম ভাই দিদার ভাইকে বসিয়ে দিয়েছেন এর কিছুক্ষন পর দিদার ভাই বড় বড় দুটা নিশ্বাস নিয়ে মারা যান এই অবস্থায় হালিম চৌধুরী দিদার ভাইয়ের দোকোনের মোদির কে জানালেন পুলিশ জানান পুলিশ না আসা পর্যন্ত হালিম ভাই দিদার ভাইয়ের নিথর দেহের পাশেই ছিলেন পরবর্তী রাত ১০ টার দিকে পুলিশ এম্বোলেন্সের মাধ্যমে হালিম চৌধুরী কে সহ নিয়ে গেছে থানায় হালিম চৌধুরীর কাছ থেকে কিভাবে মারা গেলেন এসব তথ্য নিয়ে দিদার ভাইয়ের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে পরে সেমুচি হাসপাতালের মর্গে নিয়ে রাখা হয়েছে পরে হালিম ভাই বাসায় চলে এসেছেন

    দু:খের বিষয় দিদার ভাইয়ের নমুনা পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা হয়েছে রিপোর্ট আসবে এক সাপ্তাহ পর এখনো রিপোর্ট আসেনি এর মধ্যে ctgprotidin.com নামের এক প্রোর্টাল কোন সত্যতা যাচাই না করে মনগড়া করোনায় মারা গেছেন বলে নিউজ ছাপিয়ে দিল ঐ নিউজে আরো উল্লেখ করেছে যে দিদার ভাই মারা যাওয়ার পর রুমমেটরা সবাই মরদেহ রেখে চলে গেল এই ধরনের মিথ্যা বানোয়াট অসত্য বিভ্রান্ত নিউজ করে কি মজা পান আপনাদের মতো কিছু হলুদ সাংবাদিক দের জন্য দেশে সাংবাদিক দের এত বদনাম হয় আশা করি মিথ্যা ভিত্তিতে নিউজ করা থেকে বিরত থাকবেন সবার শুভ বুদ্ধির উদয় হোক।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm