সেন্টমার্টিন ছাড়তে হবে পর্যটকদের, নৌযান আর চলবে না আপাতত

বঙ্গোপসাগর উত্তাল থাকায় সেন্টমার্টিন-টেকনাফ নৌপথে সবধরনের নৌযান চলাচল মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

এদিকে বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ সৃষ্টির কারণে সোমবার (২৩ অক্টোবর) দুপুরে কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আদনান চৌধুরী জানান, ২৪ অক্টোবর থেকে সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী জাহাজ, স্পিডবোট, কাঠের বোট বা যেকোনো জলযান চলাচল পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সেন্টমার্টিন দ্বীপে অবস্থানরত পর্যটকদের দ্বীপ ত্যাগ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এই আদেশের পর সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদ ও বিচ কর্মীদের মাধ্যমে মাইকিং করে দ্বীপের সবাইকে সতর্ক করা হচ্ছে।

জানা গেছে, সোমবার (২৩ অক্টোবর) সকালে এক হাজার ১৫০ যাত্রী নিয়ে টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাট থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় তিনটি পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, বারো আউলিয়া ও কেয়ারি সিন্দবাদ।

এই সতর্কতা সংকেত জারির পর মাইকিং করে দ্বীপে অবস্থানরত পর্যটকদের সতর্ক করার পাশাপাশি সবাইকে দ্বীপ থেকে টেকনাফে ফিরে যেতে বলা হচ্ছে।

এদিকে কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফে ফেরার পথে পর্যটকবাহী জাহাজ ‘বার আউলিয়া’ প্রায় ৭০০ পর্যটক নিয়ে সাগরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে আটকা পড়ার পর বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাটে পৌঁছতে সক্ষম হয় ৷

রোববার (২২ অক্টোবর) বিকালে সেন্টমার্টিন থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে শাহপরীর দ্বীপের কাছাকাছি পৌঁছালে নাফনদীর ডুবচরে জাহাজটি আটকা পড়ে। এর আগে জাহাজটি যাত্রী নিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সেন্টমার্টিনে পৌঁছায়।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!