আক্রান্ত
১৮৬৯৫
সুস্থ
১৫০৬২
মৃত্যু
২৯০

সুজনের সায়ে চট্টগ্রামের ৪১ ওয়ার্ড গেল তিন কর্মকর্তার হাতে, উঠেছে প্রশ্ন

2

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নতুন প্রশাসককে সহায়তার জন্য তিন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হল। পঞ্চম পরিষদের মেয়াদ শেষ হওয়ায় নতুন করে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা দায়িত্ব নেওয়া পর্যন্ত এই তিন সদস্যকেই সামলাতে হবে ৪১ ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের দায়িত্ব। এ হিসেবে গড়ে ১৩টি করে ওয়ার্ডের দায়িত্ব পেলেন একেকজন কর্মকর্তা।

তবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের একজন সার্বক্ষণিক কর্মকর্তা তার নিজ দায়িত্বের বাইরে গিয়ে কিভাবে এতোগুলো ওয়ার্ডের দায়িত্ব পালন করবেন— এ নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। চসিকের নতুন প্রশাসকও কী করে আচমকা এমন সিদ্ধান্ত দিয়ে বসলেন, তাতেও অনেকে প্রকাশ করেছেন বিস্ময়।

এর আগে গত ৫ আগস্ট চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) পঞ্চম পরিষদের মেয়াদ শেষ হওয়ায় স্থানীয় সরকার আইন অনুযায়ী নগর আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ আলম সুজনকে প্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। একই আইনে ‘প্রয়োজনবোধে, যথাযথ বলিয়া বিবেচিত হয় এমন সংখ্যক সদস্য সমন্বয়ে গঠিত কমিটিকে প্রশাসকের কর্ম সম্পাদনে সহায়তা প্রদানের জন্য সহায়ক কমিটি’ করার সুযোগ থাকলেও আপাতত তা না করে চসিকেরই তিন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হলো।

সহায়ক কমিটির বদলে দায়িত্ব পাওয়া তিন কর্মকর্তার মধ্যে চসিকের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল ইসলাম ১ থেকে ১৪ নম্বর ওয়ার্ড, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া ১৫ থেকে ২৮ নম্বর ওয়ার্ড এবং চসিক সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী ২৯ থেকে ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্ব পালন করবেন।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) এই বিষয়ে একটি অফিস আদেশ দিয়েছেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা। ৪১ ওয়ার্ডে ৩ কর্মকর্তাকে দায়িত্ব প্রদানে ‘প্রশাসক মহোদয়ের সদয় সম্মতি রয়েছে’ বলে ওই অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, ‘এই সদস্য নতুন নির্বাচিত পরিষদ দায়িত্ব নেওয়া পর্যন্ত চসিকের ৪১ ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন, যাবতীয় কর্মকাণ্ড তদারকি সহ স্থানীয় নাগরিকদের জন্ম মৃত্যু সনদ প্রদানের দায়িত্ব পালন করবেন।’

এই বিষয়ে চসিকের প্রধান নির্বাহী মো. সামসুদ্দোহা চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘যেহেতু নির্বাচিত পরিষদের মেয়াদ শেষ এবং সহায়ক কমিটি করার বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি তাই মাননীয় প্রশাসকের সম্মতিতে আমরা আমাদের ৩ কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছি। এই ৩ জনই ৪১ ওয়ার্ডে আপাতত দায়িত্ব পালন করবেন। যদি উনাদের জন্য এটি চাপ হয়ে যায় তাহলে ৩ জনের বদল সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে।’

এআরটি/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive
2 মন্তব্য
  1. Mahbubur Rahman বলেছেন

    !!!

  2. মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন বলেছেন

    ১৯ নং ওয়ার্ডে মাষ্টারপোল হতে সালা কলোনির রোড়ের কাজ গত এক বছরেও শেষ করেনি ঠিকাদার। এলাকার মানুষ যাতায়াতে ভীষণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন

জেলা প্রশাসনের অভিযানে একজনের ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড

কোর্ট বিল্ডিং এলাকার ফটোকপির দোকানে জাল খতিয়ানের ব্যবসা

ksrm