শেখ হাসিনা দেশকে খাদের কিনার থেকে তুলে এনেছেন, শান্তি সমাবেশে আ জ ম নাছির

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ কখনও অসাংবিধানিক ও অবৈধ পন্থায় ক্ষমতায় আসেনি। আওয়ামী লীগ বার বার ক্ষমতায় এসেছে জনগণের ম্যানডেট নিয়ে। আজ যারা আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের জন্য অরাজকতা ও নাশকতার পথ বেছে নিয়েছে তারা ক্ষমতায় এসেছিল অসাংবিধানিক ও অবৈধপথে। তারা কখনও সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও আদর্শভিত্তিক রাজনীতিক দল ছিল না।’

শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকালে দারুল ফজল মার্কেট সম্মুখে বনফুল চত্বরে বিএনপি-জামায়াতের অরাজকতা, নাশকতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপপ্রয়াসের বিরুদ্ধে শান্তি সমাবেশের আয়োজন করে চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগ। এতে সভাপতির বক্তব্যের তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং সবধরনের মৌলিক অধিকার সমুন্নত রাখার জন্য একমাত্র আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই। কারণ আওয়ামী লীগের রাজনীতি জনকল্যাণমুখি। জনগণের মাঝেই তার অবস্থান। আওয়ামী লীগের ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়।

s alam president – mobile

সমাবেশে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ধারাবাহিকভাবে ১৪ বছর ক্ষমতায় এই সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে খাদের কিনার থেকে তুলে এনেছেন। যা আজ বিশ্ববাসীর কাছে অবাক বিস্ময়। ১৪ বছর আগে বিএনপি বাংলাদেশকে কোন অবস্থায় রেখে গিয়েছিল, সেদিকে যদি ফিরে তাকাতে হয় তাহলে অন্ধকার ছাড়া আর কিছুই নেই। ওই সময়ে বাংলাদেশ দুর্নীতিতে বার বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। বাংলাদেশের রিজার্ভের পরিমাণ ছিল মাত্র ৬ বিলিয়ন ডলার। তখন কোনো উন্নত দেশ বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে উৎসাহী ছিল না। অথচ আজ বাংলাদেশের চিত্র সম্পূর্ণ বিপরীত।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মাসেতু নির্মাণের জন্য যখন উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন, তখন বিশ্বব্যাংক তহবিল যোগান দিতে নারাজ ছিল। বিশ্বব্যাংক সেদিন বলেছিল বাংলাদেশে কখনও পদ্মাসেতু নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন হবে না। কিন্তু শেখ হাসিনা সেই চ্যালেঞ্জের জবাব দিয়েছেন এবং নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণ করে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন।

তিনি হুঁশিয়ার দিয়ে বলেন, ‘আমরা কোনো পাল্টা কর্মসূচি দিইনি। আমরা শান্তি ও শৃঙ্খলা চাই, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা চাই। এই নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে কোনো অপশক্তিকে রাজপথে নামতে দিতে পারি না। আমরা আগামী নির্বাচন পর্যন্ত রাজপথে আছি রাজপথেই থাকবো।

Yakub Group

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শান্তি সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, উপদেষ্টা সফর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনান, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, শ্রম সম্পাদক আব্দুল আহাদ, থানা আওয়ামী লীগের ফিরোজ আহমদ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, ইকবাল হাসান, ফয়জুল্লাহ বাহাদুর।

আরও উপস্থিত ছিলেন সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মাহবুবুল হক মিয়া, হাজী শহিদুল আলম, নির্বাহী সদস্য ইঞ্জিনিয়ার বিজয় কৃষাণ চৌধুরী, মো. জাবেদ, হাজী বেলাল আহমদ, থানা আওয়ামী লীগের হাজী সিদ্দিক আলম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের স্বপন কুমার মজুমদার, আব্দুল হান্নান, নুরুল আজিম নুরু, আব্দুল আজিজ মোল্লা, মো. আলী নেওয়াজ, আসিফ খান, মো. সেলিম রেজা, ফারুক আহমেদ, অ্যাডভোকেট শাহেদুল আজম শাকিল, আকবর আলী আকাশ।

এছাড়া শনিবার একই সময়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম নগরীর ইপিজেড চত্বরে হাজী জহুর আহমদের সভাপতিত্বে আসলাম হোসেনের সঞ্চালনায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। একইসঙ্গে ছয় থানা কমিটিও শান্তি সমাবেশের আয়োজন করে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!