শিক্ষা উপমন্ত্রী বললেন, নতুন কারিকুলামে নামাজ জানলেই হবে না, পড়েও দেখাতে হবে

বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদ্রাসার বার্ষিক সাধারণ সভা

শুধুমাত্র শিক্ষা দিয়ে জীবনের চাকা সচল হবে না বলে। শিক্ষার সাথে সাথে দক্ষতারও প্রয়োজন আছে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর ধনিয়ালাপাড়ার বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদ্রাসার ৪০তম বার্ষিক সাধারণ সভা ও পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) উদযাপন অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেছেন।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, দক্ষতা ছাড়া শিক্ষার কোন প্রায়োগিক মূল্য নাই। নতুন কারিকুলামে দ্বীনি শিক্ষার বিষয়ে অনেকে গুজব ছড়াচ্ছে। নতুন কারিকুলাম আমরা এমনভাবে সাজাচ্ছি যেখানে নামাজ পড়তে জানলে হবে না। নামাজ পড়ে দেখাতে হবে। শিক্ষার্থীকে প্রমাণ করতে হবে সে সত্যিকারের দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছে। এটাকে বলে এক্টিভিটি বেইজড লার্নিং।

নওফেল বলেন, শুধু দ্বীনি শিক্ষার বিষয়ে পরীক্ষা কমছে না। পরীক্ষা সব বিষয়ের ওপর কমছে৷ পরীক্ষার মাধ্যমে শুধু স্মরণশক্তির পরীক্ষা হয়। একজন শিক্ষার্থীর মূল জ্ঞান ও মেধার প্রমান হয় না। এজন্য আমরা পরীক্ষার প্রেশার কমিয়ে ক্লাসরুমে কতটুকু শিখছে, আসলেই কি দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে কিনা এসব বিষয়ে নজর দিচ্ছি। শুধু পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫ পেয়ে নৈতিক মানুষ হওয়া সম্ভব না।

তিনি আরও বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের বাংলা, ইংরেজি ভাষার পাশাপাশি অবশ্যই আরবি ভাষায় দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। আরবি ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে পারলে মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে। জাতিসংঘেও চাকরি করা যায়। কেননা আরবি ভাষা জাতিসংঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা।

শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, মাদ্রাসা শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী যেভাবে ঢেলে দিচ্ছেন, যেভাবে রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ করছেন, এ কথাগুলো সাধারণ মানুষের মাঝে বলতে হবে।

Yakub Group

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নিজাম উদ্দীন নদভী বলেন, দেশে ইসলামের মৌলিক কাজগুলো বঙ্গবন্ধু করেছেন। তিনি দেশে ইসলামিক ফাউন্ডেশন করেছেন। এ ধরনের প্রতিষ্ঠান বিশ্বের কোথাও নাই। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে অসংখ্য মডেল মসজিদ করেছেন। এ ধরনের কার্যক্রম বিশ্বে বিরল।

বায়তুশ শরফ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বায়তুশ শরফ শুধু দেশব্যাপী ইসলামী কার্যক্রমই পরিচালনা করে না, সামাজিক কার্যক্রমও সমানভাবে পরিচালনা করে।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আহসান উল্লাহ বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার মান আরও উন্নত করতে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন। এরকম একটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় মাদ্রাসা শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রাণের দাবি ছিল। প্রধানমন্ত্রী এটি প্রতিষ্ঠা করে তিনি যে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রতি আন্তরিক, তার প্রমাণ দিয়েছেন।

বায়তুশ শরফ দরবারের পীর শায়খ মুহাম্মদ আল্লামা আব্দুল হাই নদভীর সভাপতিত্বে এতে প্রধান ওয়ায়েজ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন তালুকদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মাওলানা মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম।

এর আগে শিক্ষা উপমন্ত্রী বায়তুশ শরফ মাদ্রাসার ৬ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এমআইটি/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ksrm