s alam cement
আক্রান্ত
৫৪৮০৭
সুস্থ
৪৬১৯১
মৃত্যু
৬৪২

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে ১৩ জুন

1

করোনার সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতি হলে জুনের মধ্যে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, আগামী ১৩ জুন থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়ার ইচ্ছা আছে আমাদের। তবে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার বিষয়টি নির্ভর করছে শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাইকে করোনার টিকার আওতায় নিয়ে আশার ওপর।

বুধবার (২৬ মে) দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর চলমান ছুটি ও শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এসে এমন মন্তব্য করেন শিক্ষামন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনের শেষ পর্যায়ে তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ১২ জুন পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে— এমন স্ক্রল আপনারা টিভিতে সম্প্রচার করছেন। এটি না করে আপনারা বলেন, ১৩ জুন থেকে খুলে দেওয়া হচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

এর আগে তিনি বলেন, ‘যদি ১৩ জুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে পারি সেক্ষেত্রে ২০২১ সালের এসএসসি-এইচএসসি ব্যাচকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। তারা হয়তো সপ্তাহের ছয়দিন ক্লাসে আসবে। যারা ২০২২ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থী, তাদের ছুটির দিন ছাড়া বাকি দিনগুলোতে ক্লাসে নিয়ে আসা হবে। অন্যদের বিষয়ে সপ্তাহে হয়তো একদিন ক্লাসে আনা হবে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও এটি চলছে। বন্ধ রাখা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। আমরা দ্রুত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দিতে চাই। মাঝখানে করোনার পরিস্থিতি ভালো হওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছিলাম। কিন্তু মাঝখানে হঠাৎ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়। ঈদে বাড়ি যাওয়ায় বিভিন্ন জেলায় সংক্রমণের হার বেড়েছে। এসব বিষয়ও আমাদের মাথায় রাখতে হচ্ছে।’

দীপু মনি বলেন, জীবন-জীবিকার জন্য সবকিছু চলছে। অর্থনীতির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি চাঙা রয়েছে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন খোলা হচ্ছে না, সবাই এমন প্রশ্ন করছেন। আমাদের একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে, শুধু শিক্ষার্থী নয় তাদের পরিবারও আছে। তাদের বাসায় অনেক বয়োজ্যেষ্ঠ রয়েছেন, তাদের বিষয়টিও আমাদের মাথায় রাখতে হচ্ছে।

Din Mohammed Convention Hall

‘স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে সবসময় করোনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গঠিত ‘জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটি’র পরামর্শক এবং তাদের উপস্থাপিত বৈজ্ঞানিক বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। সংক্রমণের হার কত শতাংশ নেমে আসলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়া সম্ভব— এমন প্রশ্ন আমাদের করা হয়। আমরা দেখছি সংক্রমনের হার ৫ শতাংশের ওপরে। এটি মাথায় রেখে, বিজ্ঞানের মধ্যে থেকে আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এখন অঞ্চলভিত্তিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়ার বিষয়ে অনেকেই মতামত দিচ্ছেন, এটিও আমাদের মাথায় আছে। নানা অনিশ্চয়তা-সংশয়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, করোনার মধ্যে স্কুলে ভর্তি, বিনামূল্যে বই বিতরণসহ অন্যান্য কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে সব শিক্ষার্থীর ইন্টারনেট সুবিধা নিশ্চিত করা যায়নি। নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সেবা সম্ভব নয়। অ্যাসাইনমেন্টের মতো নতুন বিষয় আমরা যুক্ত করেছি। অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে সংশয় থাকলেও সবাই এটা ভালোভাবে নিয়েছে। ৯৩ শতাংশ শিক্ষার্থী অ্যাসাইমেন্টে অংশগ্রহণ করেছে। ফলে ঝরে পড়ার আশংকা অনেকটা দূর হয়েছে। এটা নিয়ে গবেষণা হচ্ছে। সারাদেশের দুই হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন

করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি বলেন, এখনো করোনার ঝুঁকি সম্পূর্ণ কমেনি। সম্প্রতি ঈদযাত্রায় স্বাস্থ্যবিধি ভঙ্গ হওয়ায় করোনার পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা রয়েছে। তাই আগামী ১২ জুন পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাধারণ ছুটি বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে যেকোনো মুহূর্তে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

স্থগিত হওয়া মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের আলোকে ৬০ কার্যদিবস এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে ৮৪ কার্যদিবস ক্লাসের পর শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন। যেহেতু ২০২২ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরাও এখন ক্লাস করতে পারছে না তাই তাদের পরীক্ষাও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের আলোকে যথাক্রমে ১৫০ কার্যদিবস ও ১৮০ কার্যদিবস ক্লাসের পর গ্রহণ করা হবে।

সব শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় এনে খুলে দেওয়া হবে বিশ্ববিদ্যালয়

করোনার নতুন যে টিকা আসছে সেখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন। সব শিক্ষার্থীকে করোনার টিকার আওতায় এনেই বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে— জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি বলেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীর (মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক) শিক্ষাকার্যক্রম পরিপূর্ণভাবে নিশ্চিত করা যাবে। সেটা অনলাইনে কিংবা সশরীরে, যেকোনো ভাবেই হোক। আমরা এটি নিশ্চিতের চেষ্টা করছি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষক যাদের বয়স চল্লিশের ঊর্ধ্বে, তাদের প্রায় সবাই টিকা নিয়েছেন। এখনও যারা বাদ আছেন তারাও দ্রুত সময়ের মধ্যে নিতে পারবেন। সে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তথ্য মতে, সারাদেশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ। তাদের মধ্যে ১২০টি আবাসিক হলে এক লাখ ৩০ হাজার শিক্ষার্থীর আসন আছে। কিন্তু সেখানে থাকেন দুই লাখের বেশি শিক্ষার্থী। আবাসিক শিক্ষার্থীদের মধ্যে সর্বশেষ ৯১ হাজার শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে। তাদের পুরো তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে দিয়েছে ইউজিসি। সবমিলিয়ে এক লাখ তিন হাজার শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারীর তথ্য দেওয়া হয়েছে। তাদের সবাইকে দ্রুত সময়ের মধ্যে টিকার আওতায় আনা হবে।

গত ফেব্রুয়ারিতে আলাদা আলাদা সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ঘোষণা দেন, ৩০ মার্চ থেকে প্রাথমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক এবং ২৪ মে থেকে সব বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে। মন্ত্রীর এমন ঘোষণার পর করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ছুটি আরও দুই দফায় বাড়িয়ে ২৯ মে পর্যন্ত করা হয়।

এসএ

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

1 মন্তব্য
  1. MOHAMMAD ALAM বলেছেন

    SCHOOL COLLAGE BONDO TAKAI SIKKA BEBOSTA ONK PICEA GACA ,,, R NOI .

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm