শাহ আমানত সেতুতে ফাস্টট্র্যাক প্রযুক্তির সূচনা ওবায়দুল কাদেরের হাতে

0

শাহ আমানত সেতুর টোল আদায়ে যুক্ত হলো ফাস্টট্র্যাক প্রযুক্তি। রোববার (২৭ অক্টোবর) সকাল ১০টায় নগরীর আগ্রাবাদস্থ সড়ক ভবনের এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এর ফলে শাহ আমানত সেতুর টোল আদায়ে সময় কমে আসবে মাত্র দুই সেকেন্ডে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ কোম্পানি ইউডিসি-ভ্যান জেভি এই প্রকল্প ইজারা নিয়েছেন।

ইউডিসি-ভ্যান জেভির অপারেশন ডাইরেক্টর অপূর্ব সাহা চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ম্যানুয়ালি টোল আদায় করতে প্রচুর সময়ক্ষেপণ হতো। ফাস্টট্র্যাক পদ্ধতি চালু হওয়াতে টোল আদায়ে সময় প্রয়োজন হবে মাত্র দুই সেকেন্ড। পাল্টে যাবে শাহ আমানত সেতুর টোলপ্লাজার পুরাতন দৃশ্য।

সরেজমিনে শাহ আমানত সেতুর টোলপ্লাজায় গিয়ে দেখা যায়, ফাস্ট ট্র্যাকের সুবিধায় গাড়ি চলাচলের জন্য টোল প্লাজার উভয় পাশে একটি করে লেন সংরক্ষিত করা হয়েছে। ওই লেনে শুধুমাত্র গাড়ির ডিজিট্যাল নম্বর প্লেটধারী এবং রেজিস্টেশন ফাস্টট্র্যাক রেজিস্ট্রেশন করানো গাড়ির গ্লাসে থাকা রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেনটিফিকেশন বা আরএফআইডি ট্যাগের সঙ্গে টোল গেটের অ্যানটেনার সংকেতের মাধ্যমে টোল আদায় হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ইতোপূর্বে মেঘনা সেতুতে পরীক্ষামূলকভাবে এ পদ্ধতি চালু করা হয়েছিল। চট্টগ্রামে এই পদ্ধতি প্রথম এবং সারাদেশে দ্বিতীয়।

টোল আদায়ের পরপরই ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে গ্রাহকরা জেনে যাচ্ছেন টোল আদায় এবং রকেট হিসাব থেকে টাকা কর্তনের হালনাগাদ তথ্য। এ কাজে সহযোগিতা দিচ্ছে ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। আর ফরম পূরণে গাড়ি মালিক-চালকদের সহযোগিতা দিচ্ছে সেতুর ইজারাদার কর্তৃপক্ষ ইউডিসি-ভ্যান জেভি।

সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এই প্রকল্পটিসহ সাতটি প্রকল্প উদ্বোধন করেন। এরপর তিনি চট্টগ্রাম বিভাগ আওয়ামী লীগ আয়োজিত বর্ধিত সভায় যোগ দেন।

এফএম/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন