লকডাউনে দোকান খোলা, অযথা ঘোরাঘুরির দন্ড ৪৩ হাজার

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত, বাজার মনিটরিং ও বাইরে অযথা ঘোরাঘুরিসহ নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। ৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পরিচালিত পৃথক অভিযানে ১৮টি মামলায় ৪৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) বিকেল ২টা থেকে সন্ধ্যা ৫টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম নগরজুড়ে এসব অভিযান পরিচালিত হয়।

নগরীর কোতোয়ালি, বন্দর, ইপিজেড, পতেঙ্গা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক। অভিযানে নাবিক কলোনির বউ বাজারে অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রির দায়ে শাহ আমানত স্টোরকে ৮ হাজার, দেলোয়ার স্টোরকে ৫ হাজার, জসীম স্টোরকে ৫ হাজার, ট্রাকে করে যাত্রী পরিবহনের কারণে ট্রাক চালককে ১ হাজার টাকা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখায় এক ব্যাবসায়ীকে ১ হাজারসহ ৪টি মামলায় ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

পাঁচলাইশ, খুলশী, বায়েজিদ ও চান্দগাঁও এলাকার ম্যাজিস্ট্রেট এসএম আলমগীরের নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখাসহ ৪টি পৃথক মামলায় ১০ হাজার ৩০০ জরিমানা করা হয়।

এদিকে, নগরীর বাকলিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে মিজানুর রহমান বিকাশ ও মোবাইল সরঞ্জামের দোকানকে ৫০০ টাকা, মুদি দোকানকে ১ হাজার টাকা, মোমিন রোড এলাকায় দুটি ফার্মেসিকে ২ হাজার ৫০০ টাকা, সারাহ সুপারশপকে ৫ হাজার টাকা এবং একজন বাইক আরোহীকে ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা আফরিন পরিচালিত অভিযানে আকবরশাহ এলাকায় একটি টেইলার্সকে ৫০০ টাকা, একটি মুদি দোকান ১ হাজার, হালিশহর এলাকায় সিমেন্ট দোকানকে ৫ হাজার টাকা, একটি মুদি দোকানকে ২ হাজার টাকাসহ মোট ৪টি মামলায় ৮ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক বলেন, করোনায় ঘরে না থেকে রাস্তায় ঘোরাঘুরি ও রমজানকে কেন্দ্র করে কিছু ব্যবসায়ী অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রি করছে। তাই সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত ও পণ্যের মূল্য ঠিক রাখার জন্য জেলা প্রশাসন প্রতিদিন নগরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা অব্যাহত রেখেছে। আজকের অভিযানে মোট ১৮টি মামলায় ৪৩ হাজার টাকা জরিমান করা হয়েছে।

সিএ/এসএ

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!