রিজেন্ট টেক্সটাইল বন্ধ, বেতনের দাবিতে আন্দোলনে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষ

0

রিজেন্ট টেক্সটাইলের শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৫ পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন শ্রমিক আহত হয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসের বেতনের দাবিতে আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সোমবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর কালুরঘাট এলাকার রিজেন্ট টেক্সটাইল কারখানার সামনে এ ঘটনা ঘটে।

কলকারখানা অধিদপ্তরের উপ মহাপরিচালক সাকিব আল মোবাররাত জানান, দুপুর ১টা থেকে শ্রমিকরা আন্দোলন শুরু করে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করা হলে পুলিশকে লক্ষ্য করে শ্রমিকরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

জানা গেছে, বোয়ালখালীর পূর্ব কালুরঘাটের চরখিদিরপুর এলাকায় অবস্থিত রিজেন্ট টেক্সটাইল কারখানায় গত ফেব্রুয়ারি মাসের বেতন এখনো পরিশোধ না করায় শ্রমিকরা আন্দোলন শুরু করে। কারখানার গেটের বাইরে থেকে ইট পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করলে কয়েকজন পুলিশ সদস‍্য আহত হয়।

এ ঘটনার পর শ্রমিক প্রতিনিধি, সরকারপক্ষে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের দুজন কর্মকর্তা, শিল্প পুলিশের কর্মকর্তা, বোয়ালখালী থানার ওসি, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও একজন নির্বাহী ম‍্যাজিস্টেটের উপস্থিতিতে মালিকপক্ষের প্রতিনিধি উপমহাব‍্যবস্থাপক ইমতিয়াজসহ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

Yakub Group

মালিকপক্ষের প্রতিনিধি উপমহাব‍্যবস্থাপক ইমতিয়াজ জানান, ফেব্রুয়ারি মাসের বেতন ১২ এপ্রিল প্রদান করা হবে এবং মার্চের বেতন কত তারিখে দেওয়া হবে তা ১২ এপ্রিল জানিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু শ্রমিকরা তা মানতে অস্বীকৃতি জানান।

ইমতিয়াজ শ্রমিকদের বলেন, ‘ব‍্যবস্থাপনা পরিচালক সালমান হাবীবের তরফ থেকে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। না মানলে আমার পক্ষে আর কিছু বলার নাই। কারখানা লে-অফ এ (বন্ধ) আছে।’

বৈঠকে উপস্তিত কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ মাসুদ রানা বলেন, ‘১২ এপ্রিল বেতন পরিশোধ করা হবে বললেও শ্রমিকরা তা মানছেন না। বৈঠক এখনো চলমান আছে। শ্রমিকরা একইসাথে তিন মাসের বেতন চায়।’

তিনি জানান, রিজেন্ট টেক্সটাইল কারখানাটি গত ফেব্রুয়ারি থেকেই লে-অফ (বন্ধ)। নিয়মানুসারে কারখানা লে-অফ হলেও বিধি মোতাবেক বেতনভাতা পরিশোধ করতে হয়। সে হিসাবে ফেব্রুয়ারী ও মার্চ মাসের বেতন প্রাপ্য শ্রমিকরা।

বোয়ালখালী থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘শ্রমিকরা বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে আন্দোলন করছিল। পুলিশ আগে থেকেই ঘটনা স্থলে অবস্থান নেয়। তারা সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেওয়া চেষ্টা করে। কিন্তু ক্ষুব্ধ হয়ে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে শ্রমিকরা।’

এএস/এমএফও

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm