মেয়েকে ধর্ষণ করে বাবা ফেরারি, গ্রেপ্তার বাঁশখালীতে

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে ১৬ বছরের মেয়েক ধর্ষণের দায়ে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত বাবাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া পৃথক অভিযানে আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবাসহ খুন, ডাকাতি এবং মাদক মামলার আরও আট আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৭ মার্চ) গভীর রাত থেকে শনিবার (১৮ মার্চ) সকাল পর্যন্ত পুকুরিয়া, পুঁইছড়ি, চাম্বল ও পৌরসদরে পৃথক পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে বাঁশখালী থানা পুলিশ।

অভিযানে আসামিদের কাছ থেকে দুটি এলজি ও ৩ হাজার ৭০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

মেয়ের ধর্ষণকারী গ্রেপ্তার দুর্ধর্ষ ডাকাত আমজাদ আলী ওরফে আমজাদ হোসেন (৪৫)পুকুরিয়া ইউনিয়নের তেচ্ছিপাড়া গ্রামের মনির আহমদের ছেলে। তার কাছ থেকে একটি এলজি উদ্ধার করা হয়। তার বিরুদ্ধে ৮টি মামলা রয়েছে।

এছাড়া চাম্বল থেকে মৃত লোকমান হাকিমের ছেলে মো. নেছার উদ্দিনকে (৫৮) গ্রেপ্তার করা ১টি এলজি ও ২ রাউন্ড কার্তুজসহ।

বাঁশখালী প্রধান সড়কের পুঁইছড়ি এলাকায় যানবাহান তল্লাশি করে ৩ হাজার ৭০০ পিস ইয়াবাসহ কক্সবাজার জেলার মহেশখালী, উখিয়া ও টেকনাফের বাসিন্দা হোসন আহম্মদ (৫০), মো. জাকারিয়া (২৮), মো. ইসমাইল হোসেন (৩৩) এবং মো. মোরশেদ(১৯) নামের ৪ ইয়াবাকারবারিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরেক অভিযানে পরোয়ানাভুক্ত পলাতক আসামি মো. আশেক ওরফে মোবারক (৪৫), মো. ওসমান (৩৮) ও মো. রিয়াদ (৩৫)।

অভিযানের পর শনিবার সহকারী পুলিশ সুপার (আনোয়ারা সার্কেল) কামরুল ইসলাম প্রত্যেক এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করেন।

বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন বলেন, ‘পৃথক অভিযানে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে একজন মেয়ের ধর্ষণকারী। চারজন মাদককারবারি, তিনজন সাজাপ্রাপ্ত আসামি এবং একজনকে গ্রেপ্তার করা অস্ত্র ও কার্তুজসহ।’

সহকারী পুলিশ সুপার (আনোয়ারা সার্কেল) কামরুল ইসলাম বলেন, ‘বাঁশখালীতে অপরাধীদের ধরতে অভিযান জোরদার করা হয়েছে। দাগী অপরাধী কেউ পালিয়ে থাকতে পারবে না। সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।’

ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!