ভুল চিকিৎসার অভিযোগে চবি মেডিকেল সেন্টার অবরোধ

ভুল চিকিৎসার অভিযোগ এনে চিকিৎসক ও কর্মচারীদের বের করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) মেডিকেল সেন্টার অবরোধ করেছে শাখা ছাত্রলীগের বিজয় গ্রুপের নেতা-কর্মীরা। পরে প্রক্টরিয়াল বডির আশ্বাসে তারা অবরোধ তুলে নেয়।

শনিবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুর আনুমানিক আড়াইটা থেকে চারটা পর্যন্ত মেডিকেল অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। পরবর্তীতে তারা নয় দফা দাবি সম্বলিত প্রক্টরিয়াল বডির কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেয়।

লিখিত অভিযোগপত্রে শিক্ষার্থীরা জানান, ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মামুনকে ভুল ঔষধ প্রয়োগ করায় সে মুমূর্ষু অবস্থায় চমেকে (চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ) ভর্তি হতে বাধ্য হয়েছে বলে আমরা জেনেছি।’

শিক্ষার্থীদের নয় দফা অভিযোগের মধ্যে বলা হয়, চিকিৎসার মান খারাপ ও ডাক্তাররা সময় মত উপস্থিত থাকেন না এবং সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাব নেই, চিকিৎসা সরঞ্জাম নেই, থাকলেও সেগুলো নষ্ট এবং ৬টি অ্যাম্বুলেন্স থাকার পরও মাত্র দুইটি সচল রয়েছে।

বিজয় গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াস চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, দুই দিন আগে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের মামুন নামের এক শিক্ষার্থী মেডিকেল চিকিৎসা নিতে যায়। পরে ডাক্তার তাকে যে ঔষধ প্রেসক্রাইব করে দুই দিন ধরে খাওয়ার পরও রোগ না কমে উল্টো বাড়ে। পরে তাকে আজ মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা এটাকে মেডিকেল সেন্টারের সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর জন্য আন্দোলন করে৷ এসময় একটা লিখিত অভিযোগও দেয়া হয়। প্রক্টরিয়াল বড়ি বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর ড. শহীদুল ইসলাম চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, শিক্ষার্থীরা একজন ডাক্তারের নামে অভিযোগ করেছে তিনি ভালো করে রোগী দেখেন না। এর প্রেক্ষিতে তারা মেডিকেল সেন্টার কিছুক্ষণ অবরুদ্ধ করে রেখেছিলো। আমরা তাদের সাথে কথা বলেছি। তারা একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। আমরা বিষয়টি দেখবো।

এমআইটি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!