ভারতকে হারাতে পারলেই মিলবে শিরোপার স্বাদ

সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল রোববার

0

ভুটানকে উড়িয়ে দিয়ে চলতি সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পা রাখা বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারতের যুবারা। ২৯ সেপ্টেম্বর (রোববার) দুপুর আড়াইটায় সাফের ফাইনালে বাংলাদেশের যুবারা মুখোমুখি হবে ভারতের। যেখানে ভারতকে হারাতে পারলেই দেখা মিলবে শিরোপা।

সেমিফাইনালে ভুটানকে ৪-০ গোলে হারিয়ে দিয়ে লাল-সবুজের জার্সিধারীরা ফাইনালের টিকিট কাটে। আর মালদ্বীপকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালে পা রেখেছে ভারত। গ্রুপপর্বে মুখোমুখি দেখায় গোলশূন্য ড্র করেছিল বাংলাদেশ-ভারত।

সাফ বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টগুলোতে এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রতিপক্ষের নাম ভারত। প্রতিবেশী এই দেশের বাধা পেরোলেই এবার ধরা দেবে সূর্যের আলো। দক্ষিণ এশিয়ায় এই যুব বা কিশোর টুর্নামেন্টে নেপাল, ভুটান, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা বা মালদ্বীপ যেন গোলবন্যার এক বড় খনি লাল-সবুজদের জন্য। তাই সিংহভাগ টুর্নামেন্টে শক্তি-সামর্থের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইটা হয় বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের মধ্য দিয়ে। এটাই সাফের তথাকথিত সবচেয়ে বড় রাইভাল ম্যাচ হয়ে দাঁড়ায়।

তাই আরেকবার সাফের শ্রেষ্ঠত্ব নির্ধারিত হবে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচের মধ্য দিয়ে। এই টুর্নামেন্টে অবশ্য গ্রুপ পর্বের ম্যাচে কেউ কারও জালে বল জড়াতে পারেনি। পরে পয়েন্ট টেবিলে একই ব্যবধান হওয়ায় লটারিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিতে পা রেখেছিল ভারত। অন্যদিকে গ্রুপ রানার্স আপ হয়ে ভুটানকে উড়িয়ে দিয়ে সবার আগে ফাইনাল নিশ্চিত করে আরাফাত-ফাহিমরা।

এই একই টুর্নামেন্টে ২০১৭ সালে তিন গোলে পিছিয়ে থেকে ভারতকে হারানোর সুখস্মৃতি আছে বাংলাদেশের। সঙ্গে সাফের অনূর্ধ্ব-১৫তেও ভারতকে হারিয়ে ফাইনালে গিয়েছিল মেহেদীরা। সেই ফাইনালে পাকিস্তান বধ করে শিরোপাও ঘরে নিয়ে এসেছিল বাংলাদেশ। এবার আরও একটি শিরোপার হাতছানি লাল-সবুজের সামনে। নিকট অতীতে ভারতকে হারানোর সুখস্মৃতি অবশ্যই বাড়তি অনুপ্রেরণা দেবে দেশের ফুটবলারদের।

গত দুই আসরেও জয় দিয়ে আসর শুরু করেছিল বাংলাদেশ। ২০১৫ সালে প্রথম আসরে ভুটানকে ২-১ গোলে এবং ২০১৭ সালে ভারতকে ৪-৩ ব্যবধানে হারিয়ে শুভসূচনা করেছিল বাংলাদেশ। প্রথম আসরে বাংলাদেশ তৃতীয় হয়েছিল আর পরের আসরে ফাইনালে নেপালের কাছে হেরে রানার্সআপ হয় লাল-সবুজের দলটি। এবার তৃতীয়বারের মতো সাফের এই টুর্নামেন্টে অংশ নেয় বাংলাদেশ। এবারও ফাইনালের মঞ্চে বাংলাদেশের যুবারা।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে কোচ পিটার টার্নারের শিষ্যরা শ্রীলঙ্কাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করেছিল। লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচে লাল-সবুজের জার্সিতে একটি করে গোল করেন তানভীর হোসেন, ফাহিম মোর্শেদ ও ফয়সাল আহমেদ ফাহিম। আর ভুটানের বিপক্ষে জেতা ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে একটি করে গোল করেন তানভীর হোসেন, ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, মেরাজ হোসাইন এবং দীপক রায়। তিন ম্যাচ খেলে এখনও গোল হজম করেনি বাংলাদেশ, প্রতিপক্ষের জালে দিয়েছে সাতটি গোল।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন