বিজিবি পাহাড় কেটেছে সাতকানিয়ায়, ব্যবস্থা নিতে পরিবেশকে চিঠি

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় পাহাড় কেটে ফেলেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। উপজেলায় অবস্থিত বিজিবি ট্রেনিং সেন্টারের সীমানায় (কেরানিহাট-বান্দরবান সড়ক সংলগ্ন) পাহাড় কাটার এই ঘটনা ঘটেছে। নির্বিচারে এমন পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পরিবেশ অধিদপ্তরকে চিঠি দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

বিজিবি পাহাড় কেটেছে সাতকানিয়ায়, ব্যবস্থা নিতে পরিবেশকে চিঠি 1

গত রোববার (২৭ আগস্ট) সাতকানিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরাফাত সিদ্দিকী পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বরাবরে ওই চিঠি পাঠান।

জানা গেছে, সাতকানিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনারের নির্দেশে কেঁওচিয়া মৌজায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের পাহাড় কাটার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা। সেখানে ভূমির কিছু অংশ কাটার প্রমাণ পাওয়া যায়। তবে তখন পাহাড় কাটার কাজ বন্ধ ছিল।

বিজিবির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ওই সময় ইউনিয়ন ভূমি সহকারীকে জানান, তারা তাদের কর্তৃপক্ষের নির্দেশমতে তাদের কেনা ভূমি থেকে পাহাড় কাটার কাজ করেছেন। যদিও পরিবেশ আইন অনুযায়ী ব্যক্তিমালিকানাধীন হলেও পাহাড় কাটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

ইউনিয়ন ভূমি অফিসের রেকর্ডমতে, কেঁওচিয়া মৌজার বিএস ৯১৮৮ দাগে মোট ৪২.৭৪ একর পাহাড় শ্রেণি, ৩৩.৪৯ একর জমি নিয়ে বিএস ২২১৩ নং খতিয়ান, ০.৪০ একর জমি নিয়ে বিএস ১৬৪নং খতিয়ান এবং ৮.৭৫ একর জমি নিয়ে বিএস ৪নং খতিয়ান বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে বিএস জরিপ চূড়ান্ত প্রচার আছে। এর মধ্যে বিএস ৪নং খতিয়ান বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে সমাজকল্যাণ সংস্থার নামে বিএস রেকর্ড চূড়ান্ত প্রচার আছে। অর্থাৎ বিএস ৪নং খতিয়ানের জমি বিজিবির দখলে আছে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরাফাত সিদ্দিকী বলেন, ‘বিজিবি ট্রেনিং সেন্টারের সীমানায় পাহাড় কাটার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাই। ঘটনাস্থলে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দিতে বলি এবং দ্রুত কাজ বন্ধ করার জন্য বিজিবি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করি। পাহাড় কাটার বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!