বাদলের শূন্য আসনে ভোট ৬ জানুয়ারি!

1

চট্টগ্রামের রাজনীতির মাঠে-চায়ের আড্ডায় এখন আলোচনার শীর্ষে চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাঁও-বোয়ালখালী) উপনির্বাচন কবে? নির্বাচনের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি রাজনৈতিক কর্মীদের আগ্রহের কেন্দ্রে রয়েছেন প্রার্থিতার বিষয়ও। চট্টগ্রাম-৮ আসনের সদ্য প্রয়াত সংসদ সদস্য বাংলাদেশ জাসদের কার্যকরী সভাপতি মইনউদ্দীন খান বাদল মারা যাওয়ায় তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। সংসদ সচিবালয় ইতোমধ্যে বাদলের আসনটি শূন্য ঘোষণা করে ওয়েবসাইট থেকে তার নাম ও ছবি সরিয়ে নিয়েছে।

আসন শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যেই যখন উপনির্বাচনের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে, সেই হিসেবেই এগোচ্ছে নির্বাচন কমিশন। আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও ঘোষণা না দিলেও আগামী ৫০ দিনের মধ্যেই চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচন সম্পন্ন করতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তফসিল ঘোষণা থেকে শুরু করে ফলাফল ঘোষণা পর্যন্ত মোট ৪২ দিন লাগতে পারে। সেই হিসেবে সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে বাদলের শূন্য আসনে উপনির্বাচন হতে পারে আগামী ৬ জানুয়ারি। নির্বাচন কমিশনের নির্ভরযোগ্য সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

মইন উদ্দীন খান বাদল গত ৭ নভেম্বর ভারতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করার আগ পর্যন্ত ২০০৮ সাল থেকে নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদে ২৮৫/চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে আমৃত্যু দায়িত্ব পালন করেন। সংসদ সদস্য পদ শূন্য হওয়া প্রসঙ্গে সংবিধানের ১২৩ (৪) দফায় বলা হয়েছে, ‘সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোনও কারণে সংসদের কোন সদস্যপদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার নব্বই দিনের মধ্যে উক্ত শূন্যপদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে (তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মতে, কোনো দৈব-দুর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয়, তাহা হইলে উক্ত মেয়াদের শেষ দিনের পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে)।’

ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, আসন শূন্য হওয়ার দিন থেকেই নব্বই দিন গণনা করা হয়। সংসদ সচিবালয় গেজেট প্রকাশের পর উপ-নির্বাচনের জন্য বিষয়টি কমিশনের কাছে উত্থাপন করলে নির্বাচন কমিশনই তাদের বৈঠকে উপ নির্বাচনের তফশীল ঘোষণা করে। আগামী দুই এক দিনের মধ্যেই এনিয়ে নির্বাচন কমিশনাররা বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার নির্বাচন কমিশনের এক কর্মকর্তা চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে ৯০ দিনের মধ্যেই যেহেতু উপ নির্বাচন করতে হবে। আর নির্বাচনের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন হতে সময় লাগবে ৪২ দিন। তাই আগামী ৫০ দিনের মধ্যে চট্টগ্রাম ৮ আসনের উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও ঘোষণা না দিলেও প্রস্তুতিমূলক কাজ করছে। সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে এই আসনে আগামী ৬ জানুয়ারি নির্বাচন হতে পারে। তবে এই তারিখ কয়েক দিন হেরফের হতে পারে।’

ইসি সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম ৮ আসনটি চট্টগ্রাম জেলার চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ৩, ৪, ৫, ৬ ও নং ওয়ার্ড এবং বোয়ালখালী উপজেলার কধুরখীল ইউনিয়ন, পশ্চিম গোমদন্ডী ইউনিয়ন, পূর্ব গোমদন্ডী ইউনিয়ন, শাকপুরা ইউনিয়ন, সারোয়াতলী ইউনিয়ন, পোপাদিয়া ইউনিয়ন, চরনদ্বীপ ইউনিয়ন, আমুচিয়া ইউনিয়ন ও আহল্লা করলডেঙ্গা ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত।

চট্টগ্রাম ৮ আসনে মোট ভোটার চার লাখ ৭৫ হাজার ৯৮৮। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৯২২ ও নারী ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪ জন। বোয়ালখালী উপজেলায় ভোটার ১ লাখ ৬৪ হাজার। কেন্দ্র সংখ্যা ১৮৯টি।

জানা যায়, স্বাধীনতাত্তোর ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত দেশের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে নৌকা প্রতীকে সাংসদ হন আওয়ামী লীগের মরহুম এম কফিল উদ্দিন, দ্বিতীয় সংসদে সিরাজুল ইসলাম, তৃতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির মনজুর মোরশেদ খান, চতুর্থ সংসদে বিএনপির সিরাজুল ইসলাম, পঞ্চম সংসদে বিএনপির সিরাজুল ইসলাম, ৬ষ্ঠ সংসদে জাতীয় পার্টির হয়ে মনজুর মোরশেদ খান, ৭ম সংসদ, ৮ম সংসদে বিএনপির মনজুর মোরশেদ খান এরপর থেকে টানা নবম, দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মহাজোটের শরীক জাসদের মইন উদ্দীন খান বাদল সাংসদ হন।

এডি/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

1 মন্তব্য
  1. Imran বলেছেন

    Well

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন