বাইরে থেকে দরজা আটকে বাড়িতে আগুন, মা ও ছেলে দগ্ধ বাঁশখালীতে

চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌরসভার উত্তর জলদি বণিক পাড়ায় রহস্যজনক আগুনে ৩টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এসময় ঘরের বাইরে থেকে কে বা কারা দরজা বন্ধ করে দিলে ঘরে থাকা মা ও ছেলে আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনে দগ্ধ মা মিধু দে’র (৬০) শরীরের ৯ শতাংশ পুড়ে গেছে। ছেলে বিজয়ের দুই হাতে সামান্য ফোসকা পড়েছে।

শুক্রবার সকালে বাঁশখালী হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে রেফার করা হয়েছে আহতদের। বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইদুজ্জামান চৌধুরী, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন এবং বাঁশখালী পৌরসভার মেয়র এস এম বিন তোফাইল বিন হোসাইন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্থ বিজয় দে ও সুমন দাশ বলেন, আগুন লাগার সময় আমাদের ঘরের দরজা কে বা কারা বাইরে আটকে দিয়েছিল। আমরা জানালা ভেঙে এবং ঘরের দেয়াল ভেঙে পেছন দিকে বের হয়ে প্রাণে বেঁচেছি।

বিধবা শান্তি রাণী ধর বলেন, ফায়ার সার্ভিসের লোকজন না আসলে আমার পুরো ঘর পুড়ে যেত। তারপরও ঘরের উপর অংশ পুড়েছে।

বিজয় দে সরল ইউনিয়নের পাইরাং গ্রাম থেকে এবং সুমন দাশ পুঁইছড়ি ইউনিয়নের নাপোড়া গ্রাম থেকে এসে ওখানে সাবেক কাউন্সিলর গোপাল ধরের টিনশেড বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে থাকেন।

শুক্রবার দুপুরে গিয়ে দেখা যায়, ভাড়া বাসা হারিয়ে দগ্ধ মিধু দে বণিক পাড়ার এক ব্যক্তির বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। পুরো শরীরে ফুলা এসে গেছে। মুখমন্ডল পোড়া অংশ খোলা, বাম হাত ও পেটের পোড়া অংশ ব্যান্ডেজ করা আছে। হাসপাতালের দেয়া প্রেসক্রিপশনে মিধু’র শরীর ৯% পুড়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে।

মিধু দে’র ছেলে বিজয় দে বলেন, আমি সামান্য সেলুনের ব্যবসা করি। নিজের দুই হাতে আগুনে ফোসকা পড়েছে। মা গুরুতর আহত। পোড়া যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। আর্থিক কষ্টে চট্টগ্রাম মেডিকেল থেকে বাঁশখালী নিয়ে এসেছি। মা-কে কিভাবে বাঁচাবো চিন্তায় আছি। শরীরে ফুলা এসে গেছে খাবার-দাবার খেতে পারছেন না।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ক্ষতিগ্রস্থদের প্রাথমিকভাবে সাহায্য করা হয়েছে। দগ্ধ বৃদ্ধ মিধুর সার্বক্ষণিক খবরাখবর রাখা হচ্ছে। সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।’

ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার নুরুল মোস্তফা বলেন, আগুন লাগার বিষয় তদন্ত চলছে। এর আগে কিছু বলা যাবে না।

কেএস

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!