আক্রান্ত
২৩৮৭০
সুস্থ
১৮৬৭৪
মৃত্যু
৩১৩

বন্ধ থাকবে চবির আবাসিক হল, স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে পরীক্ষা

0

করোনাভাইরাসের কারণে আটকে থাকা বিভিন্ন বিভাগের অসমাপ্ত পরীক্ষা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শীঘ্রই নেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) কর্তৃপক্ষ। তবে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে আবাসিক হলগুলো বন্ধ থাকবে। এছাড়া ভর্তি পরীক্ষা সশরীরে নেয়ার বিষয়েও সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

রোববার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিষয়টি চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান।

তিনি বলেন, করোনার কারনে আটকে থাকা পরীক্ষা স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়ার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে একটি কমিটি গঠন করতে উপাচার্যকে ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এসময় আবাসিক হলগুলো খোলা থাকবে না। তবে বিভাগীয় সভাপতিরা শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করে সুবিধামতো সময়ে পরীক্ষার রুটিন দিবেন।

তিনি আরও বলেন, ভর্তি পরীক্ষা সশরীরেই হবে। এ বিষয়ে সবাই একমত হয়েছেন। আমরা ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করবো। এইচএসসির রেজাল্ট দিলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নিবে কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটি।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের শংকায় গেল মার্চের মাঝামাঝিতে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি)। ফলে দুই একটা কোর্স বাকি থাকতেই স্থগিত হয়ে যায় বিভিন্ন বর্ষে চলমান ফাইনাল পরীক্ষা। আর এতে করে বিপাকে পড়েছেন বিভিন্ন বিভাগের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অসমাপ্ত পরীক্ষা নেয়ার দাবিতে দুই দফা মানববন্ধন ও উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপিও দিয়েছে বিভিন্ন বিভাগের ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে অবশেষ অসমাপ্ত পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, করোনা সংকটে সাধারণ ছুটি ঘোষণার আগে বিভিন্ন বিভাগের পুরোদমে পরীক্ষা চলমান ছিল। এর মধ্যে বেশিরভাগ বিভাগ সম্পূর্ণ পরীক্ষা শেষ করলেও কিছু বিভাগ অর্ধেক পরীক্ষা শেষ করে আটকে যায়। এসব বিভাগের মধ্য আছে অর্থনীতি, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা, সমাজতত্ত্ব ও আইন বিভাগের ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষা, রাজনীতি বিভাগের ৩য় ও ৪র্থ বর্ষ, লোক প্রশাসন ও সংস্কৃত বিভাগের মাস্টার্স, হিসাব বিজ্ঞান ও মানবসম্পদ ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের দুইটি ব্যাচের ইন্টারশিপের মৌখিক পরীক্ষা, ফার্মেসি বিভাগের ৪র্থ বর্ষের তিনটি ব্যবহারিক পরীক্ষা, গণিত বিভাগের ৩য় বর্ষ ও দ্বিতীয় বর্ষের ব্যবহারিক, ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের ২য় বর্ষের মৌখিক ও ব্যবহারিক, ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের অষ্টম সেমিস্টার, ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সের ২য় ও ৩য় বর্ষ, ওশোনোগ্রাফি বিভাগের ৩য় ও ৪র্থ বর্ষ ও ফিশারিজ বিভাগের ২য় বর্ষের পরীক্ষা অর্ধেকের মধ্যে আটকে আছে। এছাড়া বেশ কয়েকটি বিভাগে পরীক্ষার রুটিন দেয়া হয়েছিল।

এমআইটি/এমএহক

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm