গেইমবাজি/ ফ্রি ফায়ার ও পাবজি ব্লক হল দেশে

0

অবশেষে অনলাইনভিত্তিক গেইম ফ্রি ফায়ার ও পাবজি বন্ধ হয়ে গেল বাংলাদেশে। ইতিমধ্যে গেইমগুলো ব্লক করার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব টেলিকম (ডট)। তবে গেমগুলো সম্পূর্ণ ব্লকের প্রক্রিয়া শেষ হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। ফলে আরও কয়েকদিন গেইমগুলো খেলতে অনেকের সমস্যা নাও হতে পারে।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির নির্দেশ পেয়েই কাজ শুরু করে ডিপার্টমেন্ট অব টেলিকম (ডট)। তবে এগুলো ব্লক করা হলেও কিছু সমস্যা রয়ে যায়। তবে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসপি), ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ের (আইআইজি) সহযোগিতায় তা পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব হবে।

সোমবার (১৬ আগস্ট) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ আদেশ দেন, বাংলাদেশের অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে সরিয়ে নিতে হবে টিকটক, বিগো লাইভ, পাবজি, ফ্রি ফায়ার গেম ও লাইকিসহ সব ধরনের ক্ষতিকর অ্যাপ। এসবের লিংকও অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সব অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে টিকটক, বিগো লাইভ, পাবজি, ফ্রি ফায়ার গেম তথা লাইকির মতো অন্যান্য অনলাইন গেম এবং অ্যাপ বন্ধের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না— তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

আদালতের এই নির্দেশনা পেয়ে বিটিআরসি কাজ শুরু করে। আদালত যেহেতু পাবজি ও ফ্রি ফায়ার গেইম দুটির বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন, সেজন্য শুরুতে ওই দুটি গেইম বন্ধ করা হয়েছে। অন্য যেগুলোকে ক্ষতিকর বলা হয়েছে, সেগুলো পরবর্তীতে ব্লক করবে বিটিআরসি।

গত ২৪ জুন হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মানবাধিকার সংগঠন ‘ল অ্যান্ড লাইফ’ ফাউন্ডেশনের পক্ষে অনলাইনভিত্তিক গেম ও অ্যাপগুলোর ক্ষতিকারক দিক তুলে জনস্বার্থে রিটটি করেন সুপ্রিম কোর্টের দুই আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব ও মোহাম্মদ কাউছার। ওই রিটে দেশের অনলাইন প্লাটফর্মগুলো থেকে টিকটক, বিগো লাইভ, পাবজি, ফ্রি ফায়ার ও লাইকির মতো অনলাইন গেম ও অ্যাপ বন্ধের নির্দেশনা চাওয়া হয়।

Yakub Group

রিটে বলা হয়, পাবজি ও ফ্রি ফায়ারের মতো গেমে বাংলাদেশের যুব সমাজ এবং শিশু-কিশোররা ব্যাপকভাবে আসক্ত হয়ে পড়েছে। ফলে সামাজিক মূল্যবোধ, শিক্ষা, সংস্কৃতি বিনষ্ট হচ্ছে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হয়ে পড়ছে মেধাহীন। এসব গেম যুব সমাজকে সহিংসতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

সেখানে আরও বলা হয়, টিকটক, লাইকি অ্যাপ ব্যবহার করে দেশের শিশু-কিশোর এবং যুব সমাজ বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হচ্ছে। এছাড়া সম্প্রতি নারীপাচারের ঘটনা এবং বাংলাদেশ থেকে দেশের বাইরে অর্থপাচারের ঘটনায়ও টিকটক, লাইকি ও বিগো লাইভের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে, যা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক এবং দেশের ও জনস্বার্থের পরিপন্থী। এটা শৃঙ্খলা ও মূল্যবোধেরও পরিপন্থী।

সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm