ফেসবুকে ‘ইউনিক মার্টের’ ভেজাল পণ্য বেচতে গিয়ে ধরা খেল প্রতারক

চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালীর আলকরণ এলাকায় একটি আবাসিক ভবনে অভিযান চালিয়ে ভেজাল ও বিক্রয় নিষিদ্ধ প্রসাধনী সামগ্রী জব্দ করেছে। জেলা প্রশাসন ও বিএসটিআই।

অভিযানে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা ও ৫ লাখ টাকার প্রসাধনী উদ্ধার করা হয়।

রোববার (১৩ আগস্ট) সকালে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্তের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, আনজুমান আরা নামের এক মহিলা ফেসবুক, ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউনিক মার্ট নামে ভেজাল পণ্য বিক্রয় করে ভোক্তাদের সঙ্গে দীর্ঘদিন প্রতারণা করে আসছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালায় জেলা প্রশাসন ও বিএসটিআই। এই সময় আনজুমান আরা না থাকলেও প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার মঈনুদ্দিন আকবরকে আটক করা হয়।

অভিযানে গোডাউন থেকে বিভিন্ন দামি ব্র্যান্ডের (গার্নিয়ার, পন্ডস, ডাবর, ইমামি, হুদা বিউটি) নাম ব্যবহার করা বিপুল পরিমাণ ফেস ওয়াস, স্কিন ক্রিম, শ্যাম্পু, হেয়ার ওয়েল, ফেস প্যাক, মেহেদী, সানস ক্রিম, ম্যাসাজ ক্রিম, আইলাইনার, ফেস পাউডার, স্কার্ভি রোগের জন্য ভিটামিন সি ইনজেকশন জব্দ করা হয়।

এছাড়া অধিক হাইড্রোকুইনিন ও মার্কারির কারণে বিক্রয় নিষিদ্ধ 4K Plus ক্রিমও জব্দ করা হয়। নিম স্কিন ম্যাসাজ ক্রিম এবং কাবেরী নামের দুটি ফেস ক্রিমে বিএসটিআইয়ের অনুমোদন ছাড়া ভুয়া লোগো ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

অধিকাংশ পণ্যের গায়ে উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদ ও মূল্য ছিল না। এসব অপরাধে প্রতিষ্ঠানের মঈনুদ্দিন আকবরকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানে প্রায় ৫ লাখ টাকার পণ্য জব্দ করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্ত বলেন, আনজুমান আরা নামের এক মহিলা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে ভেজাল ও নিষিদ্ধ প্রসাধনী বিক্রির মাধ্যমে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা ও ৫ লাখ টাকার প্রসাধনী জব্দ করা হয়েছে।

সিএম/ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!