ফতেয়াবাদে পাহাড় কাটছে স্মার্ট গ্রুপ, পরিবেশের জরিমানা সাড়ে ৬ লাখ

0

চট্টগ্রামের ১ নং দক্ষিণ পাহাড়তলী হাটহাজারী থানার ঠান্ডাছড়ির ফতেয়াবাদ এলাকায় পাহাড় কেটে মাটির টপ সয়েল নষ্ট এবং পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতি করায় স্মার্ট গ্রুপকে ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

২৭ অক্টোবর শুনানি শেষে এ জরিমানা করা হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সূত্রে জানা যায়, ২৬ অক্টোবর বিকালে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিনের দেওয়া সংবাদের ভিত্তিতে পরিবেশ অধিদপ্তরের টিম সরজমিন পরিদর্শনে গিয়ে পাহাড় কাটার সত্যতা নিশ্চিত করে স্মার্ট গ্রুপ কর্তৃপক্ষকে শুনানিতে হাজির হওয়ার নোটিশ দেওয়া হয়। পাহাড় কেটে মাটির টপ সয়েল নষ্ট করায় শুনানি শেষে এ স্মার্ট গ্রুপ কর্তৃপক্ষকে এ জরিমানা করা হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সংযুক্তা দাশ গুপ্তা চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল ২৬ অক্টোবর সরজমিন পরিদর্শনে গিয়ে আমাদের ইন্সপেক্টর পাহাড় কাটার প্রমাণ পায়। এরপর তাদের শুনানির জন্য নোটিশ দেওয়া হয়। পরিবেশের ক্ষতি সাধন করায় শুনানি শেষে স্মার্ট গ্রুপ কর্তৃপক্ষকে ৬ লাখ ৪০ হাজার জরিমানা করা হয়।’

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে জেনে পরিবেশ অধিদপ্তরে জানাই। খবর পেয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের একজন পরিদর্শক ঘটনাস্থলে গিয়ে পাহাড় কাটার সত্যতা পায়। আমি জানার পর আমার দায়িত্ব পালনে এক সেকেন্ডও দেরি করিনি।’

যদিও স্মার্ট গ্রুপ কর্তৃপক্ষের ঠিকাদার মো. রোকন উদ্দিন পাহাড় কাটার বিষয়টি অস্বীকার করে বাইরে থেকে ওয়াসার খোঁড়া মাটি এনে পাহাড়ের পাশে নিচু অংশের মাটি ভরাটের তথ্য দেয়। তিনি ফেসবুকে প্রকাশিত ছবিগুলো ভুয়া বলেও জানান।

এদিকে পরিবেশ অধিদপ্তর পাহাড় কাটার সত্যতা নিশ্চিত করে শুনানি শেষে পাহাড় কেটে মাটির টপ সয়েল নষ্ট করে পরিবেশের ক্ষতি করায় স্মার্ট গ্রুপ কর্তৃপক্ষকে জরিমানা করা হয়।

উল্লেখ্য, স্মার্ট গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান বাঁশখালীর মুস্তাফিজুর রহমান সিআইপি। তিনি ২০১৬ সালে অর্থনীতিতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে “রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার” পান।

এসআর/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন