s alam cement
আক্রান্ত
১০২৪১৫
সুস্থ
৮৬৮৫৬
মৃত্যু
১৩৩১

প্রদীপের ফোনকাণ্ডে ৩ পুলিশ প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

0

কক্সবাজারে আদালতের কাঠগড়ায় থাকা অবস্থায় টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে মোবাইলে কথা বলার সুযোগ দেওয়ার ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটিও।

বুধবার (২৫ আগস্ট) সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান।

তিনি বলেন, ‘এসটিআই শাহাব উদ্দিনসহ তিন পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।’ বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

এর আগে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে স্বজনদের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলার সুযোগ চেয়েও রাষ্ট্রপক্ষের তীব্র বিরোধিতার মুখে অনুমতি পাননি সিনহা হত্যা মামলার প্রধান আসামি টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ। ঘটনাটি ২০২০ সালের অক্টোবরের, আর এর ৯ মাসের মাথায় আদালতের এজলাসে বসেই ৪৫ মিনিট ফোনে কথা বলে নতুন করে আলোচনায় এলেন ওসি প্রদীপ।

সোমবার (২৩ আগস্ট) কক্সবাজার জেলার দায়রা জজ আদালতে মামলার প্রথম দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ চলার সময় এই ঘটনা ঘটে। এজলাসে হাঁটু গেড়ে বসে প্রদীপের ফোনে কথা বলার একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যাচ্ছে, আদালত কক্ষের কাঠগড়ার ভেতরে হাঁটু গেড়ে বসে মোবাইল ফোনে কথা বলছেন সাবেক সেনা কর্মকর্তা হত্যার দায়ে বরখাস্ত ওসি প্রদীপ। এ সময় অন্য আসামিরা তার আশপাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মোবাইল ফোনে একের পর এক কল করে কথা বলেছেন সিনহা হত্যা মামলার এই আসামি। তার পরনে ছিলো কালো পোলো শার্ট। তবে কার সঙ্গে কথা বলেছেন তা জানা যায়নি। জানা গেছে, বরখাস্ত ওসি প্রদীপকে মোবাইল ফোনটি সরবরাহ করেছিলেন সেখানেই দায়িত্বরত এক পুলিশ কনস্টেবল।

এদিন আদালতের বাইরে সাংবাদিকদের ছবি তুলতে দেখে বিরক্তি প্রকাশ করে বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, ‘আমাকে নতুন করে চেনানোর দরকার নেই।’

প্রসঙ্গত, সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয় সোমবার। সেদিন থেকে টানা ৩ দিন ব্যাপী এ হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ চলবে। মঙ্গলবার (২৪ আগন্ট) আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন সাহিদুল ইসলাম সিফাত। এর আগে মামলার বাদী নিহত সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসের সাক্ষ্য দিয়ে প্রথম দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই টেকনাফের শামলাপুর চেকপোস্টে মেজর সিনহা নিহত হন পুলিশের গুলিতে। সেই ঘটনায় টেকনাফ থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ, বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকতসহ ৯ জনকে আসামি করে মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌসী। পরে গ্রেপ্তার করা হয় ঘটনার সময় আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের তিন সদস্যসহ পুলিশের তিন সোর্সকে।

চার মাসেরও বেশি সময় তদন্ত শেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেয় তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাব। এর মধ্যে ১২ আসামি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। গত ২৭ জুন মামলার ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত।

মামলায় কারাগারে থাকা ১৫ আসামি হলেন বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, দেহরক্ষী রুবেল শর্মা, টেকনাফ থানার এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাগর দেব, এপিবিএনের এসআই মো. শাহজাহান, কনস্টেবল মো. রাজীব ও মো. আবদুল্লাহ। এ ছাড়া পুলিশের মামলার সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের মারিশবুনিয়া গ্রামের নুরুল আমিন, মো. নিজামুদ্দিন ও আয়াজ উদ্দিন।

এমএফও

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm