পেঁয়াজে আগুনের আঁচ বাড়াচ্ছে ১২ জনের চক্র

0

তদারকি, জরিমানা এবং প্রশাসনের কঠোর নজরদারির পরও কমানো যাচ্ছে না পেঁয়াজের দাম। প্রতিদিনই বাড়ছে পেঁয়াজের ঝাঁজ। মূলত টেকনাফের ১২ জনের একটি সংঘবদ্ধ সিন্ডিকেটের কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে— এমন অভিযোগ শুরু থেকেই।

সংঘবদ্ধ সিন্ডিকেটটি ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে মিয়ানমারের পেঁয়াজ অল্প দামে এনে দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ মূল্যে বিক্রি করে যাচ্ছে। তবে এবার হার্ডলাইনে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন। পেঁয়াজে পকেট কাটা টেকনাফের ১২ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

মিয়ানমার থেকে আসছে পেঁয়াজ
মিয়ানমার থেকে আসছে পেঁয়াজ

৫০ টাকার নিচে পাইকারিতে পেঁয়াজ কিনে শত টাকায় বিক্রির সাথে জড়িত সিন্ডিকেটের প্রাথমিক তালিকায় আছে কক্সবাজার টেকনাফের আমদানিকারক সজিব, মম, জহির, সাদ্দাম, বিক্রেতা ফোরকান, গফুর, মিন্টু, খালেক, টিপু, টেকনাফ স্থলবন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট কাদের, কমিশন এজেন্ট (ব্রোকার) শফি, টেকনাফের মেসার্স আলিফ এন্টারপ্রাইজ। আর এদের সাথে সিন্ডিকেট করেছে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের মেসার্স আজমির ভান্ডার, মেসার্স আল্লার দান স্টোর, স্টেশন রোডের নূপুর মার্কেটের মেসার্স সৌরভ এন্টারপ্রাইজ ও ঘোষাল কোয়ার্টারের এ হোসেন ব্রাদার্স।

বুধবার শহরের বড় বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে পাইকার ও খুচরা বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে মিয়ানমারের ছোট পেঁয়াজ কেজি প্রতি ১২০টাকা, বড় পেঁয়াজ কেজি প্রতি ১৩০ টাকা, মিসর থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ১২০ টাকা আর চায়না পেঁয়াজ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকায়। সবগুলো পেঁয়াজ গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৮০-৯০ টাকা কেজি ধরে।

মিয়ানমার থেকে আসছে পেঁয়াজ
মিয়ানমার থেকে আসছে পেঁয়াজ

এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার দোকান মালিক মালিক ফেডারেশনের সভাপতি আলহাজ¦ মোস্তাক আহমদ চৌধুরীও। তিনি বুধবার সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমদানি কম হওয়ার কারণে পেঁয়াজের দাম বাড়লেও মূল বিষয়টা টেকনাফ স্থলবন্দরে। সেখানকার স্থলবন্দরের যারা ব্যবসায়ী রয়েছে দাম বাড়ানোর পেছনে তারাই জড়িত। কারণ তারা ওই স্থান থেকে মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৪০-৫০ টাকায় কিনে বেশি দামে পাইকারদের কাছে বিক্রি করছে।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে সিন্ডিকেটের তালিকার কথা বলা হয়েছে সে বিষয়ে অবহিত নয় বলে জানিয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা বলেন, ‘এই ধরনের কোনও সুপারিশও আমাদের হাতে পৌঁছেনি। তবুও বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির পর থেকে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি কেন বা কী কারণে ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছে তাও অনুসন্ধান করা হচ্ছে।’

সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন