পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা করে ছিনিয়ে নেওয়া আসামি ফৌজদারহাটে গ্রেপ্তার

চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানা এলাকায় পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা করে ছিনিয়ে নেওয়া দুই মাদক কারবারীর একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার নাম মো. হানিফ।

এ সময় সাথে থাকা তার ভাই ইয়াসিনকেও (ট্রান্সজেন্ডার) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে পুলিশের উপর হামলা করে ছিনিয়ে নেওয়া অন্য আসামি দেলোয়ারকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) গভীর রাতে জেলার চট্টগ্রাম থেকে বাস যোগে পালিয়ে যাওয়ার পথে ফৌজদারহাট এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) মোহাম্মদ আলী হোসেন বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফৌজদারহাট এলাকায় শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা পালিয়ে ভোলায় যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।’

গত শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে কালুরঘাট ব্রীজ এলাকা থেকে হানিফ ও দেলোয়ার নামের দুজনকে ৫ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারের পর দুজনকে কালুরঘাট ফাঁড়িতে নেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ট্রান্সজেন্ডারসহ শতাধিক লোককে সঙ্গে নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা করে আসামিদের ছিনিয়ে নেন হানিফের বোন নাজমা। তবে সেসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের ছুড়া ফাঁকা গুলিতে গুরুতে আহত হন নাজমা।

Yakub Group

এর দেড় ঘণ্টার মধ্যেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

উপ পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আলী হোসেন আরও বলেন, ‘পুলিশ ফাঁড়ি থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার পর হানিফ এতদিন চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া ও পটিয়ায় আত্মগোপনে ছিলেন। ঘটনার পর সে প্রথম রাঙ্গুনিয়ায় ও পরে পটিয়ায় আত্মগোপনে ছিল। পরে সেখান থেকে ইয়াসিনসহ পালিয়ে ভোলায় চলে যাওয়ার পরিকল্পনা করে।’

পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গ্রেপ্তার দুইজনকে চান্দগাঁও থানায় হস্তান্তর করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে শনিবারের ঘটনার পর চান্দগাঁও থানায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

আইএমই/এমএফও

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ksrm