পাইরেটসও উড়ে গেল চট্টগ্রাম আবাহনী ঝড়ে, সুপার ফোরে সুপার শুরু

0

একের পর এক সব ম্যাচ জিতে সুপার ফোরে উঠা চট্টগ্রাম আবাহনী চ্যাম্পিয়নের পথে আরও একধাপ এগিয়ে গেছে।

চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা (সিজেকেএস) আয়োজিত সুপার ফোরের প্রথম খেলায় পাইরেটস অব চিটাগংকে ১২০ রানের বড় ব্যবধানে হারায় চট্টগ্রাম আবাহনী।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুক্রবার (১১ মার্চ) অনুষ্ঠিত ম্যাচে সকালে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে চট্টগ্রাম আবাহনী।

দলীয় ১০ রানের মাথায় সাইদুল ইসলাম সাঞ্জু বিদায় নিলেও দলকে ভালো শুরু এনে দেন মহিউদ্দিন ও শোয়েব। এ দুজন মাত্র ১২.৩ ওভারেই অবিচ্ছিন্ন থেকে দলের স্কোর ৫০ এর উপর নিয়ে যান। ইনিংসের ২০.৪ ওভার পর্যন্ত শোয়েব ও ইমরান আর কোন উইকেট পড়তে না দিলেও এ সময় রান তুলতে পারেন মাত্র ৭০। শোয়েবের বিদায়ের পর জাহিদ জাবেদ এসে ইমরানকে সাথে নিয়ে দ্রুততার সাথে রান তুলতে থাকেন। এ দুজন পরবর্তী ১৫ ওভারে দলের রান নিয়ে যান ১৫২-তে। জাহিদ জাবেদ ৩৫ রান করে রান আউট হলে উইকেটে আসেন দলীয় অধিনায়ক সাজ্জাদুল হক রিপন।

রিপনকে উইকেটে রেখে দলীয় ২২৯ রানের মাথায় আউট হয়ে যান ম্যাচে সর্বোচ্চ ইনিংস খেলা সাইদুল ইসলাম ইমরান। আউট হওয়ার আগে তিনি ৮৭ বলে ৭২ রানের মনোমুগ্ধকর ইনিংস খেলেন। ইমরানকে হারানোর পর রিপন ঝোড়োবেগে দলের রান বাড়াতে থাকেন। রিপন মাত্র ৩৫ বলে তুলে নেন নিজের অর্ধশতক। ৪৭ তম ওভারে আউট হওয়ার আগে রিপন ৫৬ রানের ইনিংস খেলেন।

শেষ পর্যন্ত চট্টগ্রাম আবাহনী পুরো ৫০ ওভার ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে এভারের লিগের সর্বোচ্চ ২৭৬ রান করে।

পাইরেটস অব চিটাগাংয়ের হয়ে ইফরান হোসাইন ১০ ওভার বল করে ৫৫ রানে নেন ৫ উইকেট।

জবাব দিতে নামে চট্টগ্রাম আবাহনীর বাহাতি পেসার তৌহিদুল হাসানের তোপে পড়ে পাইরেটস অব চিটাগাং এর ব্যাটাররা নাকানিচুবানি খান।

দলের স্কোর ২০ পার হওয়ার আগেই পাইরেটস অব চিটাগাং এর ৬ জন ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যান। এর মধ্যে ৫ জনকেই আউট করেন তৌহিদ। এর মধ্যে রয়েছে জাতীয় তারকা নাঈম শেখও।

পাইরেটস এর রান ৫৬ রান হতেই তারা হারিয়ে ফেলেন ৮ উইকেট। তখন মনে হচ্ছিল চট্টগ্রাম আবাহনী দুই শতাধিক রানের ব্যবধানে ম্যাচ জিতবে। তখনই দলকে বড় লজ্জার হাত থেকে বাঁচান রেজাউল করিম রাজিব ও ইফরান হোসেন। নবম উইকেট জুটিতে এ দুজন ৮৬ রানের জুটি গড়েন। দুজনই তুলে নেন ব্যক্তিগত অর্ধশতক। শেষমেশ পাইরেটস অব চিটাগাং ১৫৭ রানে অলআউট হয়ে যায়।

চট্টগ্রাম আবাহনীর তৌহিদ ৮ ওভার বল করে মাত্র ১৬ রান দিয়ে নেন ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন।

এমএহক

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm