পল্লীবিদ্যুতের দুটি ট্রান্সফর্মার চুরি, পেকুয়ায় আটক ৪

0

কক্সবাজারের পেকুয়ায় পল্লীবিদ্যুতের দুটি ট্রান্সফর্মার চুরি হয়েছে। সোমবার (৭ অক্টোবর) দিবাগত রাতে এ চুরির ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গ্রাম পুলিশের সহায়তায় ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। পরে তাদের পেকুয়া থানায় সোপর্দ হয়।

আটককৃতরা হলেন উপজেলার টইটং ইউনিয়নের বড়পাড়া এলাকার আব্দু রহিমের ছেলে জাকরিয়া (৩০), একই এলাকার নুরুল হকের ছেলে মিনার (২২), আব্দু রহিমরে ছেলে হাবিব উল্লাহ (২৩) ও নুরুল হকের ছেলে ইমরান (২৩)।

জানা গেছে, টইটং জালিয়ার চাং বড়পাড়া ও বনকানন গ্রামে বিদ্যুত সঞ্চালন লাইন সংযোগ কাজ সম্প্রতি শেষ হয়েছে। দুই গ্রামে প্রায় ৮০টি পরিবার নতুন সংযোগের আওতায় এসেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এসব পরিবারে বিদ্যুত সংযোগ দেয়ার কথা রয়েছে। বিদ্যুতের খুঁটিতে কয়েকটি ১০/১৫ কেবি নতুন ট্রান্সফর্মার সংযোজন করা হয়েছে।

টইটংয়ের ইউপি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম বলেন, টইটং জালিয়ার চাং বড়পাড়া থেকে দুটি নতুন ট্রান্সফর্মার চুরি হয়েছে। গ্রাম পুলিশ নিয়ে বড়পাড়া থেকে ৪ জনকে আটক করি। জিজ্ঞাসাবাদে তারা চুরি করেছে বলে স্বীকার করেছে। তাদের সঙ্গে আরো কয়েকজন জড়িত রয়েছে। আটক হাবিব উল্লাহর বাড়ি থেকে চুরি হওয়া কিছু মালামাল উদ্ধার করেছি। ৪ জনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, ওই চারজন প্রকৃত চোর। তাদের চোর একটি সিন্ডিকেট রয়েছে। ওই সিন্ডিকেটের লোকজন এলাকায় চুরি চামারির সঙ্গে জড়িত। একমাস আগে টইটং হাসপাতালের পাশে বিদ্যুতের ট্রান্সফর্মারটি চুরি হয়। একইভাবে গত দুই দিন আগে বারবাকিয়া লম্বামুরা থেকেও একটি ট্রান্সফর্মার চুরি হয়েছে। তারা এসব চুরির সঙ্গে সরারসরি জড়িত।’

পল্লীবিদ্যুত সমিতি পেকুয়ার ইনচার্জ পুর্নেন্দু মজুমদার বলেন, গত কয়েকমাসে পাঁচটি ট্রান্সফর্মার চুরি হয়েছে। এসব চোরের দল শক্তিশালী। প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাজেদ বাদি হয়ে মামলা করবেন বলে জানান তিনি।’

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল আজম বলেন, ‘৪ জন আটক আছে। কিছু মালামাল উদ্ধার করেছি। আরো মালামাল উদ্ধার করা হবে। এটা অবশ্যই মামলা হবে।’

এএইচ

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন