পবিত্র হজ্ব : বিশ্ব মুসলিম ভ্রাতৃত্ব ও ঐক্যের প্রতীক

লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক। লাব্বাইক লা শারিকা লাকা লাব্বাইক। ইন্নাল হামদা ওয়ান নিমাতা লাকা ওয়ালমুলক লাশারিকা লাক। মহান আল্লাহর বিধানানুসারে যে চারটি মাস পবিত্র ও সম্মানিত তার একটি হলো জিলহজ মাস। এ মাসের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ সময় হলো জিলহজ মাসের প্রথম দশক। পবিত্র কোরআন ও হাদিসে এই দশকের বিশেষ ফজিলত, গুরুত্ব ও তাৎপর্যের কথা বর্ণিত হয়েছে। মহানআল্লাহ এই দশকের সম্মান ও পবিত্রতা প্রকাশ করে এই দশকের রাতগুলোর নামে শপথ করেছেন। ইরশাদহয়েছে-শপথ ভোর বেলার শপথ দশ রাত্রির। (সূরা : ফজর আয়াত : ১-২)।

হজ আরবি শব্দ। এর আভিধানিক অর্থ ইচ্ছা বা সংকল্প করা। ইসলামী শরিয়তের পরিভাষায় মহান আল্লাহ তাআলার নির্দেশ পালনার্থে নির্দিষ্ট সময়ে, নির্ধারিত তারিখে, নির্দিষ্ট স্থান তথা কাবা শরিফ ও তত্সংশ্লিষ্ট স্থানগুলো জিয়ারত করার সংকল্প করাকে হজ বলা হয়। হজ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম। জ্ঞান-বুদ্ধিসম্পন্ন, আর্থিকভাবে সচ্ছল প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর ওপর হজ পালন করা ফরজ।

হজ্জ একটি বার্ষিক বিশ্ব-মুসলিম মহাসম্মেলন। এ মহাসম্মেলনে হাজির হয়ে মুসলিম উম্মাহর সদস্যগণ ইসলাম বিরোধী জাতি সমূহের অনৈসলামিক প্রভাব থেকে নিজেদের রক্ষা বুহ্য তৈরী করতে পারে। হজ্জ হচ্ছে মুসলিম সমাজের কল্যাণ লাভের একটি উত্তম উপায়। হজরত শাহ ওয়ালিউল্লাহ(র.)-লিখেছেন : হজ্জের একটি উল্লেখযোগ্য উদ্দেশ্য হল সাইয়েদেনা ইবরাহিম (আঃ) ও সাইয়েদেনা ইসমাইল (আ.)-এর উত্তরাধিকার সম্পদের যথাযথ হিফাজত। হজ্জ শুধুমাত্র একটি স্বাভাবিক ইবাদতই নয়, বরং বিশ্বব্যাপী একটি জিহাদের প্রস্তুতি। হজ্জ মুসলিম উম্মাহর জীবনে নতুন চেতনার উন্মেষ, নতুন শক্তির উদ্ভোধন এবং নতুন ভাবে আধ্যাত্মিকতার স্ফুরণ ঘটাতে এক কার্যকর ভূমিকা পালন করতে সক্ষম। বোখারী শরীফে হজ্জকে অভিহিত করা হয়েছে শ্রেষ্ঠতম জিহাদ বলে। হজরত আয়েশা (রা.) রেওয়ায়েত করেন রসুল (স.)-বলেছেন : হজ্জের প্রস্তুতি নাও এবং উপকরণ সংগ্রহ কর কেননা তাও এক প্রকার জিহাদ।

এই বিশ্ব মুসলিম সম্মেলনে গৃহীত সিদ্ধান্ত অতি সহজেই একই সময় হাজীগণের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে পারে গোটা পৃথিবীতে। তা ছাড়া আরাফার বক্তৃতা হতে পারে মুসলিম জাতির জন্য পথ প্রাপ্তির সহজ উৎস। এভাবে এক বিরাট কল্যাণ প্রাপ্তির রাজপথ খুলে দিতে পারে পবিত্র হজ্জ সম্মেলন। এটি শারীরিক ও আর্থিক ইবাদতগুলোর মধ্যে অনন্য। আর্থিক ও দৈহিকভাবে সামর্থ্যবানদের ওপর জীবনে একবার হজ করা ফরজ। হজে রয়েছে ইহলৌকিক ও পারলৌকিক নানাবিদ শিক্ষা। সে শিক্ষাগুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলো :

আল্লাহর নির্দেশ পালন : হাজিরা হজ আদায় করে মহান আল্লাহর নির্দেশ পালন করে থাকেন। আল্লাহতাআলা ইরশাদ করেন আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে কাবাগৃহে যাতায়াতের জন্য (দৈহিক ও আর্থিকভাবে) সক্ষম প্রত্যেক ব্যক্তির ওপর হজ করা ফরজ। (সুরা : আলে ইমরান,আয়াত : ৯৭)। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন অনিবার্য প্রয়োজন কিংবা অত্যাচারী শাসক অথবা কঠিন রোগ যদি (হজে সামর্থ্যবান) কোনো ব্যক্তিকে হজ পালনে বিরত না রাখে, তবে সে যদি হজ পালন না করে মারা যায়, সে যেন ইহুদি ও নাসারার মতোই মৃত্যুবরণ করে। (দারেমি)। সুতরাং যে ব্যক্তি হজব্রত পালন করল সে আল্লাহর নির্দেশ পালন করে নিজেকে ধন্য ও জান্নাতি মানবে পরিণত করল।

পবিত্র স্থানগুলোর দর্শন : পবিত্র মক্কা ও মদিনায় রয়েছে অগণিত পবিত্র স্থান। যেমন আল্লাহ তাআলার ঘর, হাজরে আসওয়াদ, মাকামে ইব্রাহিম সাফা-মারওয়া, আরাফার মাঠ, মিনা, মুজদালিফা, মসজিদে হারাম, মসজিদে নববী, প্রিয় নবী (সা.)-এর রওজা মোবারক,জান্নাতুল বাকি, জান্নাতুল মুয়াল্লা, জমজম কূপ ইত্যাদি। এসব স্থান দেখার ফলে ইমান বৃদ্ধি পায়। পবিত্র হজের মাধ্যমেই এসব স্থান দেখার সুবর্ণ সুযোগ লাভ হয়।

আর্থিক সফলতা লাভ : কেউ সারা জীবন পরিশ্রম করে অল্প অল্প সঞ্চয় করে এবং এখানে একই সময়ে ব্যয় করে ফেলে, কিন্তু সারা বিশ্বের ইতিহাসে কোথাও এরূপ ঘটনা দৃষ্টিগোচর হয় না যে কোনো ব্যক্তি হজ বা ওমরাহর জন্য ব্যয় করার কারণে নিঃস্ব ও অভাবগ্রস্ত হয়ে গেছে। মহান আল্লাহ তাআলা হজ ও ওমরাহর সফরে এই বৈশিষ্ট্য নিহিত রেখেছেন যে হজ করার পর কোনো ব্যক্তি দরিদ্রতা ও দীনতার সম্মুখীন হয় না। বরং হজ ও ওমরাহ পালনে ব্যয় করলে দরিদ্রতা ও অভাবগ্রস্ততা দূর হয়ে যায়।

পাপাচার থেকে বাঁচার সুযোগ : হজ এমন একটি ইবাদত, যা হজব্রত পালনকারীকে সর্বপ্রকার পাপাচার ও অশ্লীলতা থেকে মুক্ত রাখে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য হজ করে এবং তাতে অশ্লীল ও গুনাহর কাজ থেকে বেঁচে থাকে, সে হজ থেকে এমতাবস্থায় ফিরে আসে যেন আজই মায়ের গর্ভ থেকে বের হয়েছে, অর্থাৎ নবজাত শিশু যেমন নিষ্পাপ থাকে, হজ পালনকারীও তদ্রূপ হয়ে যায়।

আল্লাহকে স্মরণ করার মুখ্য সময় : হজের সময় আল্লাহ তাআলাকে স্মরণ করার, তাঁর ইবাদত করার, তাঁর সন্তুষ্টি অর্জন করার এবং তাঁর কাছে ধরনা দেওয়ার উত্তম সময়। মহান আল্লাহ হজরত ইব্রাহিম (আ.)-কে নির্দেশ দেন, ‘মানুষের মধ্যে হজের ঘোষণা দাও, যেন তারা নির্দিষ্ট দিনগুলোতে আল্লাহর নাম স্মরণ করে তাঁর দেওয়া চতুষ্পদ জন্তু জবাই করার সময়। (সুরা : হজ, আয়াত : ২৮)

বিশ্ব সম্মেলন : হজ মুসলিম উম্মাহর জন্য বিশ্ব সম্মেলন ও ইসলামী ঐক্যের প্রতীক। এ ধরনের বিশ্ব সম্মেলন অন্য কোনো ধর্ম বা জাতির মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় না। একমাত্র তৌহিদবাদী মুসলমানরাই পৃথিবীর দিক-দিগন্ত থেকে ছুটে আসে কাবা পানে। এখানে বর্ণ ও ভাষার ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সবাই এক কাতারে দন্ডায়মান হয়ে একই কণ্ঠে উচ্চারণ করেন-লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইক লা শারিকালাকা লাব্বায়িক, ইন্নাল হামদা ওয়ান নিমাতা লাকা ওয়ালমুলক,লা শারিকালাক। অর্থাৎ আমি হাজির, হে আল্লাহ ! আমি হাজির,আপনার কোনো শরিক নেই, আমি হাজির, নিশ্চয়ই সব প্রশংসা ও নিয়ামত আপনারই,আর সব সাম্রাজ্যও আপনার, আপনার কোনো শরিক নেই।

ত্যাগের প্রশিক্ষণ : আল্লাহর রাহে হজরত ইব্রাহিম (আ.)-ইসমাইল (আ.)-ও হাজেরা (আ.)-এর ত্যাগ-তিতিক্ষা, শ্রম, কোরবানি, আত্মসমর্পণ ও অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার সুমহান ঐতিহ্য আল্লাহপ্রেমিক মানবের হৃদয়কে অনুপ্রাণিত করে। হজ ও কোরবানি এ ত্যাগের শিক্ষা দেয়।

বিশ্বভ্রাতৃত্বে শিক্ষা : মহানবী (সা.)-বলেছেন সব মুসলমান ভাই ভাই। তার জ্বলন্ত নিদর্শন হজব্রত পালন। সব ধরনের ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে আরাফার মাঠে সব একত্রিত হয়। যেন সবাই একই মায়ের সন্তান। একই ইমামের পেছনে নামাজ আদায় করে একই গ্রষ্টার কাছে দোয়া করে। হজ বিশ্ব মুসলমানদের ভ্রাতৃত্বের বন্ধন জোরদার করে। হজ শেষ করে নিজ নিজ দেশে গিয়ে বিশ্বভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করে।

প্রশস্ত মনের অধিকারী হওয়ার সুযোগ : হজব্রত পালনের মাধ্যমে হজকারীর মনের সংকীর্ণতা দূর হয়ে যায়। কারণ দেশে ছিল নির্দিষ্ট গন্ডির ভেতরে, এখন হজে এসে বাইরের দেশের লোকদের সঙ্গে মেলামেশার সুযোগ লাভ হওয়ার ফলে তার হৃদয় অনেক প্রশস্ত হয়ে যায়। এতে তার মধ্যে উদারতা, ভ্রাতৃত্ববোধ, মূল্যবোধ, দয়ামায়া ও দ্বীনি রীতিনীতির প্রতি আন্তরিকতা গৃষ্টি হয়।

আল্লাহর নিয়ামত লাভের সুযোগ : হজব্রত পালনকারীদের ওপর আল্লাহর নিয়ামত বর্ষিত হয়। মহানবী (সা.)-বলেছেন,যখন হাজিরা আরাফাতে অবস্থান করে দোয়া ও কান্নাকাটি করতে থাকে, তখন আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার আসমানে আসেন এবং ফেরেশতাদের বলেন আমার বান্দাদের দেখো, ওদের চুল এলোমেলো হয়ে আছে, পরিধেয় বস্ত্র ধুলাবালিতে মলিন। দেখো, ওরা এ অবস্থায়ই আমার কাছে চলে এসেছে। লোকেরা যখন আরাফাতে উপস্থিত হয়ে কান্নাকাটি করে, তখন আল্লাহর তরফ থেকে তাদের জন্য বিশেষ রহমত বর্ষিত হয়। আর আল্লাহ তাআলার রহমতে আরাফার দিন অধিকসংখ্যক পাপীকে ক্ষমা করে দেওয়ার ফলে শয়তান খুবই ব্যথিত হয়।

মাগফিরাত ও তাওবা করার সুবর্ণ সুযোগ : আল্লাহ তাআলার ঘরের জিয়ারত ও আরাফা, মিনা,মুজদালিফা ইত্যাদি পবিত্র স্থান জিয়ারতের মাধ্যমে হজব্রত পালনকারী আল্লাহর কাছে মাগফিরাত ও তাওবা করার সুযোগ লাভ করে। আল্লাহর ঘরকেন্দ্রিক সব স্থান ও আরাফা, মিনা, মুজদালিফা ইত্যাদি সব স্থানই দোয়া কবুল হওয়ার জায়গা। আর আল্লাহ তাআলা এসব স্থানে তাদের দোয়া কবুল করেন।

শিরক ও বিদআত থেকে বাঁচার প্রশিক্ষণ : শিরক সবচেয়ে জঘন্যতম পাপ। আল্লাহ তাআলা এ গুনাহ ক্ষমা করবেন না। হজ শিরক ও বিদআত থেকে বাঁচার একটি উত্তম ও শ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষণ। কারণ হজের দোয়াগুলো শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শিরক ও বিদআত থেকে মুক্ত থাকার আলোচনায় ভরপুর।

সামরিক প্রশিক্ষণ : হজের কার্যক্রম গভীরভাবে চিন্তা করলে মনে হবে যেন একদল চৌকস সেনাবাহিনীর সামরিক মহড়া। মিনায় তাঁবুজীবন, আরাফায় বিশাল প্রান্তরে অবস্থান, মুজদালিফায় রাত্রিযাপন,জামারায় কংকর নিক্ষেপ, মিনায় পশু কোরবানি,আল্লাহর ঘরের তাওয়াফ, সাফা-মারওয়ায় সায়ি ইত্যাদি কাজ যেন একদল প্রশিক্ষিত সেনাবাহিনীর সামরিক মহড়া। যা কাফির, নাস্তিক-মুরতাদ, মুশরিক ও আল্লাহর শত্রুদের মনে ভয়ের সঞ্চার করে।

আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্র : হজে উপস্থিত হয় বিশ্বের নানা দেশের মানুষ। এ সুযোগে তাদের সঙ্গে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয় ইত্যাদি বিষয়ে যোগাযোগ করার সুযোগ গৃষ্টি হয়। একে অন্যের সঙ্গে মিশে ভাবের আদান-প্রদান করা যায় এবং সুখ-দুঃখের আলোচনা করা যায়। ফলে হজ আন্তর্জাতিক যোগাযোগের একটি উত্তম ক্ষেত্র।

ইমান নবায়ন করার সুযোগ : হজ মুমিনদের ইমান নবায়ন করার ক্ষেত্র। হজ আগত মুমিনদের অপূর্ব এক ইমানি চেতনায় উজ্জীবিত করে তোলে। হজব্রত পালনকারী দুনিয়ার সব কিছু থেকে বিমুখ হয়ে একমাত্র আল্লাহমুখী হয়ে যায়। ফলে মুমিন পার্থিব লাভের চেয়ে পারলৌকিক লাভকেই প্রাধান্য দেয় এবং পারলৌকিক সুখশান্তির জন্য সদা কাজ করে। আর এতে তার ইমান তাজা হয়।

পাপের প্রতি ঘৃণা : হজব্রত পালনের ফলে হাজিদের মধ্যে পাপের প্রতি ঘৃণা জন্মায়। কারণ সে হাজরে আসওয়াদে চুম্বন করে পাপমুক্ত হয়। আর জামরায় কংকর নিক্ষেপের মাধ্যমে নিজের মধ্যকার শয়তানের প্রতি ধিক্কার জানায়। সব শেষে আল্লাহর ঘরের বিদায়ী তাওয়াফের মাধ্যমে পাপ থেকে মুক্ত থাকার অঙ্গীকার করে আল্লাহর ঘর থেকে বিদায় নেয়। সুতরাং হজব্রত পালনকারী পাপের প্রতি ঘৃণা প্রদর্শন করে।

অর্থনৈতিক কল্যাণের : হজ্জের একটি অর্থনৈতিক কল্যাণের দিকও রয়েছে। একটি বিরাট অর্থনৈতিক লেন দেন সম্পাদিত হয় হজ্জকে কেন্দ্র করে। হজ্জ মানুষকে সচ্ছলতা প্রদান করে। আল্লাহর রসুল (স.)-বলেন : হজ্জ ও ওমরাহ পর পর করতে থাক। কারণ হজ্জ ও ওমরাহ উভয়ই দারিদ্র,অভাব এবং গোনাহ গুলিকে এমন ভাবে দূর করে দেয় যমন আগুনের ভাট্টি লোহা ও সোনা চাঁদির ময়লা দূরকরে দেয়। এই হজ্জ আমাদেরকে পাপ থেকে পবিত্র করুক, জালেমের বিশ্বব্যাপী নির্যাতনের হাত থেকে মুসলিম জাহানকে রক্ষা করুক এবং আমাদেরকে অর্থনৈতিক সাফল্য প্রদান করুক এটাই হোক মুসলিম জাতির কামনা।

ইবনে ওমর (রা.)-থেকে বর্ণিত হয়েছে যে মহানবী (সা.)-বলেন অতএব তোমরা এই দিনগুলোতে বেশি বেশি করে তাহলিল (লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ), তাকবির (আল্লাহু আকবার) এবং তাহমিদ (আলহামদুলিল্লাহ) পড়বে (মুসনাদে আহমাদ)। জিলহজ মাসের ৯ তারিখ ফজর থেকে ১৩ তারিখ আসর পর্যন্ত প্রতি ফরজ নামাজের পর একবার তাকবির বলা ওয়াজিব। তাকবিরের বাক্য নিম্নরূপ : আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার ওয়া লিল্লাহিল হামদ। আল্লাহ বড় আল্লাহ বড়,আল্লাহ ছাড়া কোনো উপাস্য নেই। আল্লাহ বড় আল্লাহ বড়। সব প্রশংসা আল্লাহর জন্য। (দারু কুতনি, হাদিস নং : ১৭৫৬ : ইরওয়াউল গালিল, হাদিস নং : ৬৫৪)

সমাপনী : হজ মুসলিম উম্মাহর জন্য একটি বিশ্ব সম্মেলন এবং ইসলামী ঐক্যের প্রতীক। ফলে ইসলামে এর গুরুত্ব অপরিসীম। আল্লাহর পবিত্র ঘর দেখা থেকে শুরু করে বিদায়ী তাওয়াফ পর্যন্ত প্রতিটি কাজই আল্লাহ তাআলার একত্ববাদ, বিশ্ব মুসলমানদের ভ্রাতৃত্ব, ঐক্য ও সংহতির প্রশিক্ষণ। হজের মাধ্যমে একজন হাজি নিজেকে জান্নাতে যাওয়ার উপযোগী করে তোলেন। তাই মহানবী (সা.)-বলেছেন মকবুল হজের প্রতিদান জান্নাত ছাড়া আর কিছু না। এই বিশ্ব মুসলিম সম্মেলনে দুনিয়ার সব দেশ থেকে হজযাত্রীরা সমবেত হন। সম-সাময়িক যাবতীয় প্রেক্ষাপটকে সামনে রেখে সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নেয়ার দারুণ সুযোগ গৃষ্টি হয় এই পবিত্র হজের মাধ্যমে। মুসলমানদের এক কাতারে শামিল হওয়ার এই সুযোগ কাজে লাগানো সময়ের দাবি। বিশ্ব মুসলিম নেতারা সেদিকে যত তাড়াতাড়ি নজর দেবেন ততই কল্যাণ।“লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক। লাব্বাইক লা শারিকা লাকা লাব্বাইক। ইন্নাল হামদা ওয়াননিমাতা লাকা ওয়ালমুলক লা শারিকা লাক”।

লেখক: ইসলামি গবেষক ও কলামিস্ট

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!