নাছিরও হাজির লতিফের বিরুদ্ধে সুমনের প্রার্থিতা ঘোষণার সভায়, জ্যেষ্ঠ নেতারা একাট্টা

চলছে আলোচনা-সমালোচনাও

চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এমএ লতিফের বিরুদ্ধে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর জিয়াউল হক সুমন। এই ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির ও নঈম উদ্দিন চৌধুরীসহ সিনিয়র একাধিক নেতা। এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

নাছিরও হাজির লতিফের বিরুদ্ধে সুমনের প্রার্থিতা ঘোষণার সভায়, জ্যেষ্ঠ নেতারা একাট্টা 1

সোমবার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরীর সল্টগোলা ক্রসিং এলাকায় একটি কমিউনিটি সেন্টারে মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন কাউন্সিলর জিয়াউল হক সুমন। সেখানেই তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন।

নাছিরও হাজির লতিফের বিরুদ্ধে সুমনের প্রার্থিতা ঘোষণার সভায়, জ্যেষ্ঠ নেতারা একাট্টা 2

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি নইম উদ্দিন চৌধুরীসহ শ’খানেক দলীয় নেতাকর্মী।

ওই আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন।

দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে নৌকার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হবেন না বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন নাছির। কিন্তু কাউন্সিলর সুমনের স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণার সময় নাছিরের উপস্থিতি ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা প্রশ্ন।

দলীয় মনোনয়ন পাওয়া এম এ লতিফের সঙ্গে আ জ ম নাছিরের বিরোধ দীর্ঘদিনের। লতিফকে ঘায়েল করতেই কী সুমনের পাশে দাঁড়ালেন নাছির—এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে চট্টগ্রামের রাজনীতির মাঠে।

মতবিনিময় সভার ব্যানারে লেখা ছিল, ‘মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে চট্টগ্রাম-১১ আসনের আওতাধীন ১০ ওয়ার্ডের তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা।’

জানা গেছে, সভায় বিভিন্ন ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকও উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে চট্টগ্রাম-১১ (পতেঙ্গা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন কিনেছিলেন ২৮ জন। তাদের মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য এমএ লতিফ তিনবারের সংসদ সদস্য। তাঁকে এবারও মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

আরএম

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!