ধরতে গেলে পুলিশ পিটিয়ে পালায় ১৭ মামলার এই আসামি

0

কক্সবাজারের চকরিয়া উপকূলের ত্রাস ও পুলিশকে পিটিয়ে পালানো কুখ্যাত সন্ত্রাসী আনোয়ার হোসেনের আতংকে দিন কাটাচ্ছে মানুষ। ইতোমধ্যে তার নেতৃত্বে গড়ে উঠেছে একাধিক ডাকাতদল। চকরিয়ায় এমন কোনো অপকর্ম নেই যেটি আনোয়ার বাহিনী করেনি। এছাড়া এ বাহিনীর প্রধান আনোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগের অন্তনেই। তবে অভিযোগের তুলনায় মামলা রয়েছে কম। ১৯৯৫ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ১৭টি। তার বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতি, অস্ত্র, পুলিশ এসল্ট ও দস্যুতার অপরাধে মামলাগুলো হয়।

কক্সবাজার উপকূলের অন্তত ৫ লাখ মানুষ আনোয়ারকে জমদূতের মতো ভয় পায়। তিনবার ঘেরাও করে তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। প্রতিবারই পুলিশকে পিটিয়ে পালিয়ে যায় আনোয়ার।

কুখ্যাত সন্ত্রাসী আনোয়ার হোসেন চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের লাল মোহাম্মদ পাড়া ঘিলাতলীর মুজিবউল্লাহ প্রকাশ কিনাইয়ার ছেলে।

একাধিক সূত্র জানা গেছে, আনোয়ারের বয়স ৪২ হলেও কিশোর বয়সেই অপরাধ জগতে প্রবেশ তার। একের পর এক অপরাধ করলেও তার বিরুদ্ধে সর্বপ্রথম মামলা হয় দস্যুতার অভিযোগে ১৯৯৫ সালের ৬ মার্চ। এ মামলার পর থেকে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে আনোয়ার। প্রথমে অন্যের নেতৃত্বে অপরাধ দলের সদস্য হলেও পরে নিজেই গড়ে তুলে একাধিক অপরাধ বাহিনী।

সূত্র মতে, চিংড়িজোনে চাঁদাবাজি, ডাকাতি, ভাড়াটিয়া অস্ত্রবাজ, খুনসহ এমন কোনো অপকর্ম নেই আনোয়ার করেনি। তার বেপরোয়া অপরাধে আতংক ও ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে উপকূলীয় জনগণ। ফলে তাকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশের একাধিক টিম নানাভাবে চেষ্টা চালায়। তিনবার ঘেরাও করলেও প্রতিবারই পুলিশকে পিটিয়ে পালিয়ে যায় আনোয়ার। ফলে তার বিরুদ্ধে তিনটি পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের হয় ২০১১ সালের ২১ মার্চ, একই বছরের ৩০ এপ্রিল ও ২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে পৃথক তিনটি ডাকাতির মামলা দায়ের হয় ২০০৬ সালের ২৪ মার্চ, ২০০২ সালের ২ ডিসেম্বর ও ২০০৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি। এছাড়া ডাকাতির প্রস্তুতির অভিযোগে ৬টি মামলা দায়ের হয় ২০১১ সালের ২৮ মার্চ ও ৪ এপ্রিল এবং ৩০ এপ্রিল, ২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ও ১২ অক্টোবর এবং ২০১৪ সালের ১৫ মার্চ। পৃথক তিনটি অস্ত্র মামলা দায়ের হয় ২০০৪ সালের সেপ্টেম্বর, ২০১৩ সালের ১২ অক্টোবর ও ২০১০ সালে ৬ ফেব্রুয়ারি। পরোয়ানা জারী করা ১৭টি মামলার মধ্যে ১৬টি চকরিয়া থানায় ও একটি মহেশখালী থানায় দায়ের হয়।

অপরাধ জগতের কিং হয়ে উঠা কয়েকটি বাহিনী প্রধান আনোয়ারকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে সম্প্রতি উপকূলবাসীর দাবী জোরালো হয়ে উঠছে।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‌‘১৭টি মামলার আসামি আনোয়ারকে ধরে জনমনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে পুলিশের একাধিক টিম প্রতিনিয়ত মাঠে রয়েছে। তার খোঁজ পেতে বিভিন্ন পেশার অসংখ্য লোককে সোর্স হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। আশা করছি অচিরেই কুখ্যাত সন্ত্রাসী আনোয়ারকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হব।’

কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ‌‘চকরিয়া, মহেশখালীসহ জেলার একাধিক থানা পুলিশকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে আনোয়ারকে যেকোনো উপায়ে তড়িৎ গ্রেপ্তার করতে। পাশাপাশি তাকে গ্রেপ্তার করতে জেলা ও গোয়েন্দা পুলিশ মাঠে রয়েছে।’

এএইচ

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন