দিনদুপুরে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষককে কুপিয়ে হত্যা মহেশখালীতে

কক্সবাজারের মহেশখালীতে মাদ্রাসায় ঢুকে শিক্ষক দম্পতিকে এলোপাতাড়ি কুপিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান কুতুবজুম সুমাইয়া মাদ্রাসার এবতাদিয়া শাখার সুপার মৌলভী জিয়াউর রহমান। এ ঘটনায় তার স্ত্রী একই প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষিকা রহিমা বেগমকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) বেলা ১২টায় উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের তাজিয়াকাটা সোমাইয়া দাখিল মাদ্রাসার ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মহেশখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল রাজ্জাক মীর।

নিহত জিয়াউর রহমান (৪২) স্থানীয় শাহাব মিয়ার ছেলে। গুরুতর আহত রহিমা বেগমকে চট্টগ্রামে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কুতুবজোম ইউনিয়নের তাজিয়াকাটার মাআদ্দুসসুব্বরো গোষ্ঠী ও লালাব্বরো গোষ্ঠীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে তাজিয়াকাটা মোহাম্মদীয়া স্বতন্ত্র এবতাদিয়া মাদ্রাসার এমপিওভুক্ত, কমিটি ও জমিদাতাদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল।

গত তিন মাস আগেও এ নিয়ে তাদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার রেশ ধরেই লালাব্বরো গোষ্ঠীর আনছার, মোস্তাক বাবুল, এবাদুলসহ কয়েকজন পুরুষ ও নারী মাদ্রাসা ক্যাম্পাসে এসে ক্লাস চলাকালীন সময়ে শিক্ষক দম্পতিকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে চলে যান।

Yakub Group

তাদেরকে উদ্ধার করে মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে মৌলভী জিয়াউর রহমানকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। তার স্ত্রীকে প্রথমে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে তার অবস্থা অবনতি হলে চট্টগ্রামে মেডিকেলে আনা হয়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহ আলম বাদশা বলেন, ‘একটি মাদ্রাসা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যেই দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনার রেশ ধরে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে।’

নিহতের ভাই মো. মান্নান বলেন, ‘লালাব্বরো গোষ্ঠীর আনছার, মোস্তক বাবুলসহ কয়েকজন পুরুষ ও নারী এসে দা-কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে আমার ভাইকে হত্যা করে। এছাড়া আমার ভাবীকে মারাত্মকভাবে জখম করে। তিনিও মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। তারা পরিকল্পিতভাবে মাদ্রাসায় ঢুকে আমার ভাইকে হত্যা করেছে।’

মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রণব চৌধুরী বলেন, ‘কুতুবজোমে শিক্ষককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ কাজ করছে।’

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সহকারী পুলিশ সুপার আবু তাহের ফারুকীসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ksrm