আক্রান্ত
৯১২৩
সুস্থ
১০৮৪
মৃত্যু
১৮৪

লকডাউন/ দামপাড়ার ৬ বাড়ি থেকে বেরোতে মানা, ঢুকতেও মানা

1
high flow nasal cannula – mobile

চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়িসহ একই গলির ৬টি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে দামপাড়া এক নম্বর গলিতে। চট্টগ্রাম নগর পুলিশের (সিএমপি) দক্ষিণ বিভাগের উপ কমিশনার এসএম মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে চকবাজার থানা পুলিশ বাড়িগুলো লকডাউন করার কাজ করছেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও তাদের সহযোগিতা করছেন।

জানা গেছে, করোনা আক্রান্ত নগর চট্টগ্রামের ৬৭ বছর বয়সী সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তার বাসা দামপাড়ার এক নম্বর গলিতে । ওই গলির মাঝামাঝি একটা বাই-লাইনে তার বাসা। ওই বাসাসহ মোট ৬টি বাসা আছে ওই বাই-লাইনে। এই ৬টি বাড়িকেও লকডাউন করছে পুলিশ।

আক্রান্ত ব্যক্তি যে এলাকায় বসবাস করতেন সেই এলাকাটি খুবই ঘনবসতি। দামপাড়া মোহাম্মদ আলী রোড দিয়ে একটু সামনে গেলে হাতের ডান দিকে একটি গলি প্রবেশ করেছে। এই গলিটি বের হয়েছে চট্টেশ্বরী মোড় দিয়ে। আর এই গলির নাম হল ১ নম্বর গলি। এই গলির মধ্যখান দিয়ে আরেকটি সরু গলি রয়েছে— যা বাগমনিরাম সিটি কর্পোরেশন বালক ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে ওয়াসা মোড়ে গিয়ে বের হয়েছে। পুরো এলাকাটি খুবই ঘনবসতি। তাই এখানে তাড়াতাড়ি অন্যদের মধ্যে তা ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে অনেকের আশঙ্কা।

সিএমপির কমিশনার মো. মাহবুবর রহমান চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে ওই এলাকার কিছু অংশ লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। ডিসি সাউথ ঘটনাস্থলে গেছেন।’

চকবাজার থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, ‘স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সহযোগিতায় আমরা বাড়িটি লকডাউন করার কাজ করছি।’

এ সময় কথা হয় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিনের সাথে। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনের প্রতিনিধিদের সাথে আমি নিজেও আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়ির কাছে এসেছি। আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়িটি সহ মোট ৬টি বাড়ি লকডাউন করার সব উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। একই সাথে তিনি যাদের সাথে মিশেছেন তাদের শনাক্তের কাজও চলছে। তবে এই এলাকাটি খুবই ঘনবসতি।’

এআরটি/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Manarat
1 মন্তব্য
  1. SS ekbal বলেছেন

    এখন থেকেই পুরো এলাকা লকডাউন করে দেওয়া উচিত
    না হলে এটা পুরো চিটাগাং জুড়ে ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে প্রবলভাবে

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন

পিপিই-মাস্ক মানসম্মত কিনা সেই প্রশ্নও উঠছে

জটিল হচ্ছে লড়াই, করোনার থাবায় চট্টগ্রামের ১৯ চিকিৎসক

নারীদের তুলনায় ৫ গুণ বেশি পুরুষ আক্রান্ত

২১ থেকে ৪০— চট্টগ্রামে তরুণরাই করোনার সহজ শিকার

ksrm