জলঘোলা শেষে ভাঙলো চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি, মিষ্টি বিতরণের ধুম

চট্টগ্রাম কলেজে চলমান সংঘর্ষের পর অবশেষে ভেঙে দেওয়া হলো ছাত্রলীগের কমিটি। আর কমিটি ভেঙে দেওয়ার আনন্দে ছাত্রলীগের একাংশ ক্যাম্পাসে মিষ্টি বিতরণ করেছে।

শনিবার (১৮ মে) রাত সাড়ে ৯টার দিকে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহম্মেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরের স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানানো হয়।

মাহমুদুল করিমকে সভাপতি ও সুভাষ মল্লিক সবুজকে সাধারণ সম্পাদক করে ২০১৮ সালে এই কমিটি ঘোষণা ছাত্রলীগের চট্টগ্রাম কলেজ শাখার কমিটি। এক বছরের জন্য ঘোষণা করলেও দীর্ঘ পাঁচ বছর পর বিলুপ্ত করা হলো এই কমিটি।

১০ টাকার খাম ১০০ টাকায় বিক্রি, পদ ব্যবহার করে অবৈধ টাকা উপার্জনসহ নানান অভিযোগে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে উত্তাল ছিলো চট্টগ্রাম কলেজ ক্যাম্পাস। আর এসব অনিয়মের পেছনে মাহমুদ-সবুজের হাত ছিল বলে অভিযোগ করেন একাধিক ছাত্রলীগ নেতাকর্মী।

এদিকে নগর ছাত্রলীগ বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, সাংগঠনিক অনিয়ম ও বিশৃঙ্খলার কারণে চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হলো।

এর আগে ২০১৫ সালে ১৬ ডিসেম্বর কলেজ ক্যাম্পাস থেকে শিবির উৎখাত করে ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ নেয় ছাত্রলীগ। এরপর ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে মাহমুদুল করিমকে সভাপতি ও সুভাষ মল্লিক সবুজকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৫ সদস্যের চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

তবে গত তিন মাস ধরে চট্টগ্রাম কলেজে নিজেদের কর্তৃত্ব ধরে রাখতে পারেনি মাহমুদ-সবুজ। নিজেদের কর্মীদের দ্বারা লাঞ্ছিত হয়েই ক্যাম্পাস ছাড়তে হয় তাদের।

এই বিষয়ে কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সাইমুন বলেন, ‘ওরা ছয়টি বছর ১৮ হাজার শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে রেখেছিল। ছাত্রলীগের পদ ব্যবহার করে ডুপ্লেক্স বাড়ি বানিয়েছে, কিনেছে ফ্ল্যাট। তাই ওদের হাতে আমাদের ছাত্রলীগ নিরাপদ না, এটা আমাদের দ্বিতীয় বিজয়। এর আগে প্রথম বিজয় হয় শিবির থেকে ক্যাম্পাস উদ্ধার করার পর।’

সদ্য বিদায়ী সভাপতি মাহমুদুল করিম বলেন, ‘আমাদের ওপর সাংগঠনিক বিশৃঙ্খলার যে অভিযোগ আনা হয়েছে, সেরকম কোনো অভিযোগ তারা প্রমাণ করতে পারেনি। শুধুমাত্র কিছু বিপথগামী ছাত্রনেতার স্বার্থের কারণেই আমরা ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছি।’

নিজেদের সফল দাবি করে তিনি বলেন, ‘যতদিন আমরা দায়িত্বে ছিলাম কখনও জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে আপোষ করিনি।’

কমিটি বিলুপ্তির ঘোষণার পর ক্যাম্পাসে মিষ্টি বিতরণ করে ছাত্রলীগের একাংশ।

বিএস/ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!