চেলসিকে এক হালি গোল লজ্জা উপহার ম্যানইউর

0

ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ডকে দুঃস্বপ্নের এক রাত উপহার দিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। মৌসুমের একেবারে প্রথম ম্যাচেই চেলসির নতুন কোচ ল্যাম্পার্ডকে মুখোমুখি হতে হলো ম্যানইউর। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে গিয়ে সুখকর অভিজ্ঞতা তো হলোই না। বরং, ৪-০ গোলে পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে আসতে হলো ল্যাম্পার্ডের দল চেলসিকে।

ম্যানচেস্টার সিটি, লিভারপুল, টটেনহ্যাম ও আর্সেনালের মতো প্রথম সারির দলগুলো জয় দিয়ে তাদের প্রিমিয়র লিগ অভিযান শুরু করেছে ইতোমধ্যে। যদিও এদের কাউকেই প্রথম ম্যাচে এমন বড়সড় বাধা টপকাতে হয়নি, যেমনটা টপকাতে হয়েছে ম্যানইউকে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে বড় বাধা টপকানোর সুযোগ ছিল চেলসিরও; কিন্তু অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে গিয়ে তিক্ত হারের স্বাদ নিয়েই বাড়ি ফিরতে হয়েছে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের ফুটবলারদের।

চেলসির সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয় ম্যানইউর আক্রমণের সামনে।

ম্যাচের শুরুতে ম্যানইউর চোখে চোখ রেখে লড়াই চালিয়ে গেলেও দ্বিতীয়ার্ধে দিশাহীন দেখায় ব্লুজদের। প্রথমার্ধে মার্কাস রাশফোর্ডের পেনাল্টি গোলে ১-০ এগিয়ে যায় ম্যানইউ। দ্বিতীয়ার্ধে রেড ডেভিলসরা চেলসির ঘাড়ে চাপিয়ে দেয় আরও তিনটি গোল। যার মধ্যে আরও একটি গোল রাশফোর্ডের। অপর দুই গোল আসে অ্যান্থনি মার্শাল ও ড্যানিয়েল জেমসের পা থেকে।

ম্যাচের ১৮ মিনিটের মাথায় ভিএআরের সৌজন্যে পেনাল্টি পেয়ে যায় ম্যানইউ। স্পট কিক থেকে গোল করতে ভুল করেননি মার্কাস রাশফোর্ড। প্রথমার্ধে আর কোনও গোল হয়নি। ফলে বিরতিতে ম্যাচের স্কোরলাইন ছিল ম্যানইউ ১-০ চেলসি।

দ্বিতীয়ার্ধে সম্পূর্ণ নতুন রূপে ধরা দেয় ম্যানইউ। ৬৫ মিনিটে আন্দ্রে পেরেইরার পাস থেকে গোল করেন মার্শাল। ম্যানইউ ২-০ গোলে এগিয়ে যায় এ সময়। ৬৭ মিনিটে পল পগবার পাস থেকে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রাশফোর্ড। ম্যানইউর লিড বাড়িয়ে করেন ৩-০। ৮১ মিনিটে পগবার পাস থেকে গোল করে স্কোরলাইন ৪-০ করেন জেমস।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন