চট্টগ্রামে ৯ বছরে ৫ শতাংশ শিশুশ্রম বেড়েছে

ইপসা ও দৃষ্টির বিশেষ বিতর্ক অনুষ্ঠিত

করোনাপরবর্তী বিশ্বে ক্রমবর্ধমান দারিদ্রতা বৃদ্ধির ফলে শিশুশ্রমিকের সংখ্যা দিনদিন বেড়ে চলছে। শিশুশ্রমের মূলে রয়েছে দারিদ্রতা। শিশুশ্রম বন্ধ করতে হলে প্রথমে দারিদ্রতা নিরসন করতে হবে। এ উপলক্ষে শিশুশ্রমের বিরুদ্ধে সচেতনতার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সক্রিয় করার লক্ষে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে জাতিসংঘের ছায়া সংসদে ইপসা ও দৃষ্টির বিশেষ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরীর অভিজাত একটি রেস্টুরেন্টের মিলনায়তনে ছায়া জাতিসংঘের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এতে চট্টগ্রামের ১২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, ভারত, বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

ছায়া সাধারণ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ পরিচালক ও প্রাক্তন বিতার্কিক ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া। এই অধিবেশনে মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের যুগ্ম সম্পাদক ও প্রাক্তন বিতার্কিক কাজী আরাফাত ও উপ-মহাসচিব ছিলেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের অর্থ সম্পাদক সুমাইয়া ইসলাম।

ছায়া অধিবেশনে পর্যবেক্ষক ছিলেন দৈনিক আজাদীর সহ সম্পাদক রেজাউল করিম, বির্তাকিক আফসানা তমা, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাইফুদ্দিন মুন্না ও প্রাক্তন বিতার্কিক রায়হান শাকিল।

সাধারণ অধিবেশনে বিতর্ক শেষে পুরস্কার বিতরণে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম কাস্টমস ও বন্ড কমিশনার একেএম মাহবুবুর রহমান।

বিশেষ অতিথি ইপসার সমন্বয়ক মোহাম্মদ আলী শাহিন।

স্বাগত বক্তব্য দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ বকুল। দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি সাইফ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সহ সভাপতি শহিদুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এ কে এম মাহবুবুর রহমান বলেন, যে জায়গায় বড়দের কাজ করা কঠিন, সে জায়গায় শিশুরা কাজ করছে। এটা আরও ঝুঁকিপূর্ণ। মনে হয় বাংলাদেশে জীবনের দাম একদম সস্তা। আমরা শিশুশ্রমমুক্ত উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশর স্বপ্ন দেখি। শিশুশ্রম মুক্ত দেশ গড়তে পারলে আমরা সমৃদ্ধ জাতিতে পরিণত হব। এটি গড়তে হলে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। তাহলে শিশুশ্রম কমে যাবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইপসার সমন্বয়ক মোহাম্মদ আলী শাহিন বলেন, প্রত্যেক শিশুর মধ্যে লুকিয়ে আছে আগামীর স্বপ্ন। শিক্ষিত জাতি গঠনে বাধা হয়ে দাঁড়ায় শিশুশ্রম। বর্তমানে দারিদ্র্যতার কারণে শিশুশ্রম বৃদ্ধি পাচ্ছে। চট্টগ্রামের গত ৯ বছরে ৫ শতাংশ শিশুশ্রম বেড়ে গেছে। দেশে এখন বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ পেশায় নিয়োজিত রয়েছে ১০ লাখ ৬৮ হাজার শিশু শ্রমিক। যার মধ্যে ৬ লাখ ৫২ হাজার শিশু কাজ করছেন বিভিন্ন শিল্প কারখানায়। বিবিএসের তথ্যমতে, ২০১৩ সালে ঝুঁকিহীন পেশায় যুক্ত ছিল ৪ লাখ ১৮ হাজার শিশু। তবে ২০২২ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৭ হাজারে। অর্থাৎ এক দশকে বৃদ্ধির হার ৬৯ শতাংশ। বিশেষ করে ঝুঁকিপূর্ণ সেক্টরে শিশুশ্রমিক বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিশু শ্রম থেকে শিশুদের মুক্ত করতে ইপসা কাজ করে।

সভাপতির বক্তব্য সাইফ চৌধুরী বলেন, স্রষ্টা আমাদের মানবিক গুণাবলি দিয়ে সৃষ্টি করেছেন। কিন্তু আমরা অমানবিক হয়ে উঠেছি। প্রথম বিশ্বের দেশগুলো পুঁজিবাদের নামে শ্রমের নামে শোষণ করছে। শ্রমের বৈষম্য এদেশেও আছে। আমাদের সবাইকে একত্রিত হয়ে এ শোষণ দূর করে শিশুশ্রম মুক্ত স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হবে।

অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার ও সনদ বিতরণ করেন।

এআইটি/ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!