আক্রান্ত
১১৭৬৪
সুস্থ
১৪১৪
মৃত্যু
২১৬

কোরবানি ঈদ/ চট্টগ্রামে ফ্রিজের বাজার জমজমাট, ছাড়ও মিলছে মনমতো

0
high flow nasal cannula – mobile

আর কদিন পরই কোরবানি ঈদ। এ সময় মাংস ব্যবস্থাপনা একটা বড় কাজ। তাই এই সময় মানুষের মাঝে ফ্রিজের চাহিদাও থাকে বেশি। মানুষের চাহিদার কথা ভেবেই ফ্রিজ কোম্পানিগুলো বাজারে এনেছে নতুন নতুন রেফ্রিজারেটর, ডিপ ফ্রিজ।

বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরির রেফ্রিজারেটর পাওয়া যাচ্ছে। যেমন ডিপ ফ্রিজার, ডিরেক্ট কুল, নন ফ্রস্ট, সাইড-বাই-সাইড, বেভারেজ কুলার। প্রতিটি ফ্রিজই প্রযুক্তিসমৃদ্ধ।

কেনার আগে যা দেখা দরকার
রেফ্রিজারেটর কেনার আগে ক্রেতাদের দেখা উচিত ফ্রিজের ঠান্ডা করার প্রযুক্তি কেমন। যে ফ্রিজের কম্প্রেসার যত ভালো, সেই ফ্রিজ ততো ভালো। তাই ফ্রিজ কেনার সময় ক্রেতাদের কম্প্রেসরের কর্মদক্ষতা দেখে নেওয়া উচিত। ক্রেতাদের আরও দেখা উচিত ফ্রিজের বিল্ড কোয়ালিটি, বিক্রয় পরবর্তী সেবাসমূহ। প্রতিটি কোম্পানির বিক্রয় পরবর্তী সেবার মান আলাদা। কেউ বিক্রয়-পরবর্তী সেবা ৫ বছর দেয়, আবার কেউ ১৫ বছর। ওয়ারেন্টি ও গ্যারান্টি বিষয়টা ভালোভাবে বুঝে তারপর পণ্য কেনা উচিত। বর্তমানে বেশিরভাগ কোম্পানির ফ্রিজ কিস্তিতে কেনা যায়, তাই কয় মাসের কিস্তি বা প্রতি মাসে কী পরিমাণ টাকা পরিশোধ করতে হবে সেসব বিষয় আগে ভাল জেনে রাখা উচিত। ফ্রি ডেলিভারি ও ইনস্টলেশনের বিষয়ও ভালোভাবে জানা উচিত। ক্রেতা যে ফ্রিজটি কিনবে তার সার্ভিস সেন্টার তার শহরেই আছে কিনা সেটা জানাও খুব জরুরি। এসব বিষয় ক্রেতারা ভালোভাবে জেনে নিলে কেনার পর ঝামেলা এড়ানো সম্ভব।

ফ্রিজের ব্র্যান্ড ও মডেল এর উপর দামটা নির্ভর করে।
ফ্রিজের ব্র্যান্ড ও মডেল এর উপর দামটা নির্ভর করে।

বাজারের যতো ফ্রিজ
ওয়ালটন রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজারের বৈশিষ্ট্য হল এটি বিদ্যুৎসাশ্রয়ী, আকর্ষণীয় নকশা, ন্যানো হেলথ কেয়ার ও অ্যান্টি ফাঙ্গাল ডোর গ্যাসকেট প্রযুক্তির ব্যবহার যা ফ্রিজের ব্যাকটেরিয়া, ধুলাবালির প্রবেশ রোধ এবং খাবার সতেজ ও দুর্গন্ধমুক্ত রাখে। ওয়ালটনের ন্যানো হেলথ কেয়ার ও ইনভার্টার টেকনোলজির গ্লাস ডোরের ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরে ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি।

র‍্যাংগস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কোম্পানি বাজারে এনেছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের রেফ্রিজারেটর। ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী সেগুলোর নানারকম মডেলও রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এ ছাড়াও বাজারে সিঙ্গার, হিটাচি, এলজি, শার্প, মিনিস্টার, কনকা, হাইকো, যমুনাসহ বিভিন্ন কোম্পানির ফ্রিজ পাওয়া যাচ্ছে।

দরদাম
ফ্রিজের ভিন্ন ভিন্ন মডেলের ওপর দরদাম নির্ভর করে। ওয়ালটনের ডিরেক্ট কুল রেফ্রিজারেটরের দাম সর্বনিম্ন ১০ হাজার ৯৯০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৪১ হাজার ৫০০ টাকা। নন ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরের দাম সর্বনিম্ন ২৭ হাজার ২০০ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৬৪ হাজার ৯০০ টাকা, ডিপ ফ্রিজার সর্বনিম্ন ১৯ হাজার ৪৫০ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৩২ হাজার ২৯০ টাকা এবং বেভারেজ কুলার সর্বনিম্ন ২৯ হাজার ৫০০ থেকে শুরু করে ৩৪ হাজার ৯৯০ টাকা পর্যন্ত।

ফ্রিজের ব্র্যান্ড ও মডেল এর উপর দামটা নির্ভর করে। চেস্ট ফ্রিজের মধ্যে তিনটি ব্র্যান্ড রয়েছে। ডিসকাউন্ট মূল্য বাদ দিয়ে তোশিন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ সর্বনিম্ন ২৩,৪০০ থেকে সর্বোচ্চ ৩৪,০০০ টাকা, এস্ট্রা ব্র্যান্ডের বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ ১৭,৪০০ টাকা থেকে ৩৬৪০০ টাকা, ওয়ার্লপুল বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ ২৯৭০০, টাকা থেকে ৪৯,৫০০ টাকা পর্যন্ত। রেফ্রিজারেটরের বিভন্ন ব্র্যান্ড যেমন স্যামসাং এর বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ সর্বনিম্ন ৩৬,৯০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪,৪৯,৯০০ টাকা, তসিবা বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ সর্বনিম্ন ৩৫,৯০০ টাকা থেকে ৯২,৯০০ টাকা, তসিবা নিউ এরাইবাল সিরিস বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ ৪০,৯০০ টাকা থেকে ৯৭,৯০০ টাকা এবং তসিন বিভিন্ন মডেলের ফ্রিজ ২৬,৯০০ থেকে ৩০,৯০০ টাকা পর্যন্ত।

ঈদে ছাড় ও সুবিধা
ঈদকে সামনে রেখে ওয়ালটন ক্রেতাদের জন্য রেখেছে বিশেষ ছাড় ও সুবিধা। পুরো ক্যাশ পরিশোধ করে ফ্রিজ কিনলে ক্রেতারা পাচ্ছে ১২% থেকে ১৩% পর্যন্ত নগদ ছাড়। ৪০% নগদ পরিশোধ করে বাকি টাকা চার মাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করার সুবিধাও রয়েছে। এছাড়াও ক্রেতা লটারির মাধ্যমে জিতে নিতে পারেন নগদ ৩০০ টাকা থেকে শুরু করে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।

ঈদকে সামনে রেখে র‍্যাংগস ফ্রিজ ক্রয়ে রেখেছে বিশেষ ছাড় ও সুবিধা। ক্রেতারা ইএমআই (ইকুয়েটেড মান্থলি ইন্সটলমেন্ট) পদ্ধতিতে গ্রাহক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে ৩, ৬ ও ১২ মাসে কিস্তি পরিশোধ করে ফ্রিজ নিতে পারবেন। চেকের মাধ্যেমে কেনা পণ্যের টাকা পরিশোধ করতে পারবেন এবং বিকাশেও টাকা পরিশোধ করতে পারবেন। এছাড়াও এসএমএসের মাধ্যমে ক্রেতা পেয়ে যেতে পারেন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে লক্ষ টাকার উপহার। রয়েছে ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে সুবিধা, যার মাধ্যমে ১০% নগদ ছাড় পাওয়া যাবে। এছাড়াও আরো বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে এই কোম্পানি।

ওয়ালটন চকবাজার শাখার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার নাজিম উদ্দিন চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে জানান, এখন ফ্রিজের বেশ ভালোই চাহিদা রয়েছে। তবে ড্রয়ার ডিপের চেয়ে ইনভার্টার টেকনোলজির গ্লাস ডোরের ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরে ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি। ক্রেতাদের কথা ভেবেই এই ঈদে বিশেষ ছাড় ও সুবিধা রেখেছে কোম্পানি। এছাড়াও ৮ বছরের গ্যারান্টি আছে আমদের পণ্যের।

র‍্যাংগস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কোম্পানির জামালখান শাখার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার ফজলুল কাদের চৌধুরী চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ঈদ উপলক্ষে ক্রেতাদের জন্য র‍্যাংগস বিশেষ সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা করেছে। এসএমএসের বিশেষ অফারে ক্রেতারা পেয়ে যাচ্ছেন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে লক্ষ টাকার উপহার।

কোথায় পাওয়া যাবে
চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার, জামালখান, আন্দরকিল্লা, জিইসি, লালখানবাজার, আগ্রাবাদ, বহদ্দারহাট, পাহাড়তলী, সদরঘাট, নিউমার্কেট এলাকায় রয়েছে ওয়ালটন, র‍্যাংগস, সিঙ্গার, হিটাচি, এলজি, শার্প, মিনিস্টার, কনকা, হাইকো, যমুনাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শোরুম।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm