s alam cement
আক্রান্ত
১০২৩১৪
সুস্থ
৮৬৮৫৬
মৃত্যু
১৩২৮

চট্টগ্রামে আরও একটি মৃত্যুশূন্য দিনে কমেছে শনাক্তের সংখ্যাও

0

চট্টগ্রামে ৩ জন মৃত্যুর পরের দিনেই চট্টগ্রামে আরও একটি মৃত্যুশূন্য দিন পার হলো। একই সময়ে নমুনা পরীক্ষা আগের দিনের তুলনায় কিছুটা বাড়লেও কমে এসেছে শনাক্তের সংখ্যাও। ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর আগের দিন রোববার (৩ অক্টোবর) প্রতিবেদনে চট্টগ্রামে একদিনে ৪১ জন আক্রান্ত হয়েছিল। গত ৩০ জুলাই চট্টগ্রামে একদিনে রেকর্ড ১ হাজার ৪৬৬ জন আক্রান্ত হয়েছিল।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক লক্ষ এক হাজার ৮৫০ জন। মোট শনাক্তদের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরীর ৭৩ হাজার ৭৫০ জন। আর জেলার বিভিন্ন উপজেলার ২৯ হাজার জনের করোনা শনাক্ত হয়। অন্যদিকে, করোনা আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত মোট এক হাজার ৩০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৭২০ জন চট্টগ্রাম নগরের। আর বিভিন্ন উপজেলায় মারা গেছেন ৫৮৪ জন।

সোমবার (৪ অক্টোবর) চট্টগ্রাম জেলার করোনা সম্পর্কিত এসব তথ্য নিশ্চিত করেন সিভিল সার্জন চট্টগ্রাম কার্যালয়। গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রাম নগরী এবং উপজেলা পর্যায়ে কোথাও করোনায় নতুন করে মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। এর আগে গত ২৭ জুলাই চট্টগ্রামে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছিল। তাছাড়া আগেরদিন রোববার (৩ অক্টোবর) চট্টগ্রাম নগরে ২ জন এবং উপজেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছিল।

এদিকে সিভিল সার্জন থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয় গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজার হাসপাতাল ল্যাব ও চট্টগ্রামের ১০টি ল্যাবে মোট ১ হাজার ৬৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৩৩৩।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ২৫ জন। নতুন করে যাদের করোনা পজেটিভ এসেছে তার মধ্যে চট্টগ্রাম নগরের ২১ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার ৪ জন রয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে পাঁচজন, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ল্যাবে তিনজন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে পাঁচজন, ইমপেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে পাঁচজন ও শেভরণ হাসপাতাল ল্যাবে একজনের করোনা শনাক্ত হয়।

একই সময়ে জেনারেল হাসপাতাল আরটিআরএল ল্যাবে দুইজন, মেডিকেল সেন্টার হাসপাতাল ল্যাবে একজন, ইপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে একজন ও অ্যান্টিজেন টেস্টে দুইজনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়।

চট্টগ্রামে উপজেলা পর্যায়ে গত ২৪ ঘন্টায় ১২টি উপজেলায় কোন করোনা রোগী মেলেনি। শুধুমাত্র ফটিকছড়িতে ২ জন এবং হাটহাজারী উপজেলায় ২ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে।

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm