চট্টগ্রামে অর্থহীনের গানে কান্নারুদ্ধ যুবক যা বললেন ভাইরাল ভিডিও নিয়ে

3

চট্টগ্রামের বিজয় কনসার্টের মধ্য দিয়ে ৪ বছর পর মঞ্চে ফিরলেন অর্থহীনের সুমন। কনসার্টে অর্থহীনের ‘এপিটাফ’ গান চলাকালে কান্না করে ভাইরাল হয়েছেন চট্টগ্রামের এক যুবক। ভাইরাল হওয়া ওই যুবকের নাম আহসানুল হক ফাহিম। চট্টগ্রাম প্রতিদিনের সাথে আলাপকালে ফাহিম জানিয়েছেন, সবাই তাকে যেরকম ছ্যাকা খাওয়া প্রেমিক বানিয়ে ফেলেছে, ঘটনা আদতে তা নয়। মূলত চার বছর পর অর্থহীন নিয়ে সুমনের ফেরার যে উত্তেজনা সেটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি তিনি।

আহসানুল হক ফাহিম চট্টগ্রামের বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সপ্তম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী। ভাইরাল হওয়া ভিডিওর সূত্র ধরে চট্টগ্রাম প্রতিদিনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় ফাহিমের সাথে।

ঠিক কী কারণে কান্না করছিলেন— এমন প্রশ্নের জবাবে ফাহিম বলেন, ‘সবাই আমাকে ছ্যাকা খাওয়া প্রেমিক বানাই দিসে। বাট ওরকম কিছুই না। আমি অর্থহীনের হিউজ ফ্যান। ৪ বছর পর অর্থহীনের সাথে বেসবাবা সুমন সামনে আসছে। এটা হবে আমি কখনও ভাবিই নাই। এরপর যখন আমার ফেভারিট গান এপিটাফ শুরু হইছে আমি আর নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারিনি।’

সুমনের ফিরে আসা কেন গুরুত্বপূর্ণ— সেটি ব্যাখ্যা করে ফাহিম বলেন, ‘এই মানুষটার ২১টা অপারেশন হয়েছে। ক্যানসারের কারণে উনার পাকস্থলী কেটে ফেলে দিতে হয়েছে। সেই মানুষ আবার স্টেজে গাইবেন—অর্থহীনের যারা ফ্যান তারা কখনো ভাবেই নাই যে এমনটা হতে পারে। এই ফিরে আসাটা বিরাট একটা অনুপ্রেরণা।’

Yakub Group

ভাইরাল হওয়ার আগে তার সেই কান্না কেউ ভিডিও করেছেন এটাও জানতেন না জানিয়ে ফাহিম বলেন, ‘আমার মূল ইমোশন ছিল সুমনকে ঘিরে। তবে কেউ এটা ভিডিও করছিল জানতামও না। সকালে পরিচিত একজন ফোন করে বললো ফাহিম তুইতো ভাইরাল। তারপর ফেসবুকে ঢুকে দেখি এই অবস্থা?’

‘বেসবাবা’ নামে পরিচিত সাইদুস খালেদ সুমন অর্থহীনের দলনেতা। গিটারের তুমুল ঝংকারের পাশাপাশি তার কথা-সুর আর দরাজ কণ্ঠও দারুণ সমাদৃত। তিনি ক্যানসার ও মেরুদণ্ডের কঠিন জটিলতায় কয়েক বছর ধরেই ভুগছেন। ২০১৭ সালে সার্জারির পর ব্যাংককের হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনার মুখোমুখি হন তিনি। সে সময় সুমনের শরীরে প্রায় ১১ ঘণ্টা ধরে ৯টি সার্জারি করা হয়। দুর্ঘটনায় তার স্পাইনাল কর্ডের ক্ষতি হয়। তখন তার মেরুদণ্ডের দুটি ডিস্কও পরিবর্তন করা হয়েছিল। এখন তিনি সেই জটিলতাতেই ভুগছেন। সঙ্গে রয়েছে পুরনো অসুখ ক্যানসারের বিধিনিষেধও।

২০১১ সালে তাঁর পাকস্থলীর ক্যান্সার ধরা পড়ে। দীর্ঘ যুদ্ধের পর তিনি ২০১৩ সালে ক্যান্সার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তবে কয়েক বছর ধরে তাকে বিদেশে একাধিক অপারেশন এবং চেক-আপের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে।

এতসব কঠিন সময় পার করা সুমনের ফের অর্থহীন ব্যান্ড নিয়ে মঞ্চে ফেরা কনসার্টে পারফর্ম করা স্বাভাবিকভাবেই আলাদা আবেগের ছিল অর্থহীনের ভক্তদের জন্য।

নগদের পৃষ্ঠপোষকতায় বিজয় দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বিজয় কনসার্ট নামের এই ওপেন এয়ার কনসার্টটির আয়োজন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। কনসার্টে অর্থহীন ছাড়াও পারফর্ম করে আর্টসেল, ওয়ারফেই, ভাইকিং, সোলস, শিরোনামহীন, আরবোভাইরাস, এভয়েড রাফা, তীরন্দাজ।

এআরটি/সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

3 মন্তব্য
  1. মেহমেদ ইমু বলেছেন

    ধারুন! অথছ ক্ষুধার কান্না কেউ ভাইরাল করে না, তাদের প্রতিক্রিয়া ও কেউ শুনতে চাই না। মানবাধিকার কমিশনের ও ঘুম ভাঙে না। ওহ আচ্ছা তারা তো মানব জাতির পর্যায়েই পড়ে না। 🙂

  2. আবু রায়হান বলেছেন

    কোথাও ক্ষুদার কান্নার তথ্য আপনার কাছে থাকলে আমাদের দিন। আমরা প্রকাশ করবো। যদি এমন হতো আপনি এমন কান্না দেখেছেন দেখে আমাদের জানিয়েছেন কিন্তু আমরা সেটা এভোয়েড করেছি তাহলে এমন অভিযোগ করাটা মানা যেত। চেষ্টা না করে অভিযোগ করাটা দায়সারা ব্যাপার স্যাপার। নিজের দায়সারা আচরণের দায় আরেকজনকে চাপানো ভাল উদাহরণ হতে পারেনা।

  3. Rafi Talukder বলেছেন

    ভাল থাকুক।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm