ঘাতক বাস কেড়ে নিল দরিদ্র পিতার স্বপ্ন

0

চট্টগ্রাম ন্যাশনাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছেন সবেমাত্র। মা-বাবার স্বপ্ন ছিল একমাত্র ছেলেকে বানাবেন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। কতই না স্বপ্ন বুনেছেন দরিদ্র পিতা মোহাম্মদ লোকমান হায়দার। কিন্তু সে স্বপ্নটা ভেঙে দিলো ঘাতক বাস।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাত ১১টায় বাঁশখালী থেকে বিয়ে খেয়ে ফেরার পথে চট্টগ্রামের আনোয়ারার বারখাইন ইউনিয়নের তৈলারদ্বীপ সেতুর পুরাতন টোলবক্স এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান একমাত্র ছেলে আরমান হায়দার (২২)। তিনি কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মোহাম্মদ লোকমান হায়দারের ছেলে। নিহতের পিতা পেশায় দোকানী।

জানা যায়, ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও দুই মোটরসাইকেল আরোহী। তারা হলেন- রাউজান উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা দোলন দে’র পুত্র আকাশ দে (২৩) ও নগরীর খুলশীর বাসিন্দা ফজল কবিরের পুত্র ইমতিয়াজ কবির (২৩)। আহত দুজন গুরুতর অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

নিহতের পিতা মোহাম্মদ লোকমান হায়দার বলেন, সন্তানকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন ছিল। সে চেয়েছিল মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হয়ে প্রতিষ্ঠিত হতে। আমাদেরও স্বপ্ন ছিল সন্তানের চাওয়া পাওয়াকে ঘিরে। কিন্তু একটি ঘটনা দুঃস্বপ্নের মতো সব উলটপালট করে দিয়েছে। আমার দুই মেয়ে এক ছেলের মধ্যে সেই আমার বড় ছেলে। আমাদের আর কিছুই নেই।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আরমান তাঁর দুই বন্ধুসহ শুক্রবারে সন্ধ্যায় বাঁশখালীর গুণাগরি এলকায় বন্ধুর বড় ভাইয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে যান। সেখান থেকে ফেরার পথে আনোয়ারা উপজেলার তৈলারদ্বীপ সেতুর পুরাতন টোলবক্স এলাকায় সড়কের গতিরোধকের সাথে ধাক্কা লেগে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী বাসের (চট্টমেট্রো জ ০৫-০২৯১) চাকার সামনে ঢুকে যান।

এতে আরমান ঘটনাস্থলেই মারা যায়। গুরুতর আহত অপর দুইজনকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে পাঠান স্থানীয়রা। এদিকে শনিবার সকালে কর্ণফুলীর চরপাথরঘাটা সুলতানিয়া আহমদ ছাফা মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে তার জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন অনুষ্ঠিত হয়। এই দুর্ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে পুরো এলাকায়।

নিহত আরমান হায়দারের বন্ধু আকরাম হোসেন রানা বলেন- ‘আরমান খুব কম বয়সে অনেক মানুষের মন জয় করে নিয়েছে। আরমানের মনে শুধু মানুষের জন্য কিছু করার চিন্তা থাকত। তাঁর মা-বাবা ও ছোট দুই বোন স্বপ্ন দেখত সে প্রকৌশলী হয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হবে। কিন্তু বাসের চাকায় প্রাণের সাথে সব স্বপ্ন ভেঙে দিয়েছে। আমাদের বন্ধুদের মধ্যে সে ছিলো সেরা বন্ধু। সবসময়ই মুখে হাসিটায় থাকত। তাঁর মৃত্যুটা আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না।’

আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস. এম দিদারুল ইসলাম সিকদার জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগে বাসচালক পালিয়ে যায়। বাস ও মোটরসাইকেলটি জব্দ রয়েছে থানায়।

কেএস

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm