গাড়ি নয়, গাড়ির কাগজ চুরি করে টাকা হাতায় চট্টগ্রামের বড় চক্র

৮০০ গাড়ির কাগজ চুরি একজনের হাত দিয়েই

0

গাড়ি নয়, গাড়ির কাগজ চুরি করে মালিকদের জিম্মি করে টাকা আদায় করে একটি চক্র। সে চক্রের একজনকে গ্রেপ্তারের দুই মাস পর বেরিয়ে আসে চক্রের তথ্য। তার ধারাবাহিকতায় এবার চট্টগ্রামের হালিশহর থেকে আরও একজনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) নগর গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, শান্তিবাগ এলাকা থেকে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) রাতে রাজুকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলাম ওরফে রাজু (৩৪) হালিশহর শান্তিবাগ শ্যামলী আবাসিক এলাকায় থাকেন। তার বাড়ি নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায়।

এর আগে, নিজের কাভার্ডভ্যানের কাগজপত্র হারিয়ে যাওয়ায় গত বছরের ১২ নভেম্বর চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন জনৈক আব্দুল কুদ্দুস। ওই দিন বিকালে অচেনা এক নম্বর থেকে তাকে ফোন করে জানানো হয়, ১৫ হাজার টাকা দিলে চুরি হওয়া কাগজপত্র পৌঁছে দেওয়া হবে। কিন্তু টাকা দিলেও গাড়ির কাগজপত্র ফিরে পাননি কুদ্দুস।

প্রাথমিকভাবে ঘটনাটিতে গাড়ির কাগজ হারিয়ে গিয়েছে এমনটা মনে হলেও গাড়ির কাগজ গায়েব হওয়ার পিছনে কাজ করে একটি চক্র। আর সেই চক্রটির কাজই হচ্ছে বিভিন্ন গাড়ি থেকে ডকুমেন্ট চুরি করে ফোন দিয়ে টাকা দাবি করা।

২০২১ সালের ২৩ নভেম্বর নগরীর কাট্টলী থেকে এই চক্রটির সদস্য মো. ইয়াছিনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তবে তার অনুপস্থিতেও এই চক্রটি তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলো। পরবর্তীতে আটক মো. ইয়াসিনের তথ্যমতে অভিযান চালিয়ে দুই মাসেরও কম সময়ের মধ্যে চক্রটির অন্যতম সদস্য রাজুকে আটক করলো গোয়েন্দা পুলিশ।

এ চক্রটির ব্যাপারে সদ্য আটক রাজু জানান, আগে তিনি কাভার্ডভ্যানের চালক ছিলেন। ২০১০ সাল থেকে আজিম নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে মিলে গাড়ির কাগজপত্র চুরি শুরু করেন।

এরপর তিনি আজিমের কাছ থেকে সরে গিয়ে ইয়াছিনের সঙ্গে মিলে গাড়ির কাগজ চুরি করা শুরু করেন। আবার বিভিন্ন সময় নিজে একাই গাড়ির কাগজপত্র চুরি করেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজু কতটি গাড়ির কাগজ চুরি করেছে তা নির্দিষ্টভাবে বলতে পারেনি। তবে গতবছর আটক হওয়া ইয়াছিন ৮০০ গাড়ির কাগজ চুরির কথা স্বীকার করেছিলেন সে সময়।

বিএস/কেএস

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm