খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দাম বাড়ল ভারতে শুল্কবৃদ্ধির খবরে

বেশি দামের আশায় পেঁয়াজ বিক্রি করছেন না ব্যবসায়ীরা

ভারতে শুল্কবৃদ্ধির খবরে পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে চট্টগ্রামের অন্যতম বাণিজ্যিক এলাকা খাতুনগঞ্জে। একদিনেই কেজিতে বাড়ানো হয়েছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। ভারতে পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর শুল্কবৃদ্ধির খবরে সরাসরি প্রভাব পড়েছে দেশের পেঁয়াজের বাজারে। অনেক মুনাফালোভী ব্যবসায়ী মজুত করা পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ রেখেছে পরে বেশি দামে বিক্রির আশায়।

জানা গেছে, পেঁয়াজ রপ্তানিতে ভারতে শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। রপ্তানির ওপর প্রায় ৪৫ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করেছে ভারত। এই খবরে খাতুনগঞ্জের আড়তে একদিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের কেজিপ্রতি দাম বেড়েছে ১৫-২০ টাকা। খুচরা মুদির দোকানে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫-৭০ টাকা।

রোববার (২০ আগস্ট) খাতুনগঞ্জের অনেক আড়তে বেশি দামে বিক্রির আশায় ভালো মানের পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ রাখা হয়েছে। ভারতে পেঁয়াজের ওপর শুল্ক আরোপের বিষয়টি চট্টগ্রামের বৃহত্তর বাণিজ্যিক কেন্দ্র খাতুনগঞ্জে ছড়িয়ে পড়লে সঙ্গে সঙ্গেই বেড়ে যায় পাইকারি বাজারে। আড়তদাররা যে পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫ টাকা পাইকারিতে বিক্রি করেছে সেই পেঁয়াজের দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকায়। একইসঙ্গে খুচরায়ও বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়। আবার মানভেদে অনেককে ৮০ টাকায় বিক্রি করতেও দেখা গেছে।

খাতুনগঞ্জের পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানান, স্থলবন্দর কেন্দ্রিক ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে আমদানির পর খাতুনগঞ্জের আড়তে আনা হয়। তাদের নির্ধারিত দামে কমিশনের ভিত্তিতে আড়তে বিক্রি হয় পেঁয়াজ। হিলিতে দাম বাড়ায় আড়তেও দাম বেড়েছে।

রোববার সকালে নগরীর ষোলশহর ২ নম্বর গেট কর্ণফুলী মার্কেটের দোকানদার কর্ণফুলী ট্রেডার্সের সত্বাধিকারী মোহাম্মদ শফি বলেন, ‘আগের দিন পেঁয়াজ বিক্রি করেছি ৫৫ থেকে ৫৮ টাকা দামে। কিন্তু আজ সকালে এসেই খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দাম শুনে চোখ ছানাবড়া হয়েছে। কারণ খাতুনগঞ্জেই পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়ে সর্বোচ্চ ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এটা শোনার পর আমরাও পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করে ৭০ টাকায় বিক্রি করছি।’

খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ বাজারের আড়তদার মোহাম্মদ ইদ্রিস চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘ভারত পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর ৪৫ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করেছে। যার ফল স্বরূপ চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। আমাদের আড়তগুলো ভারতীয় পেঁয়াজে রমরমা। ফলে দামবৃদ্ধির প্রভাবটা পড়েছে। দেশী পেঁয়াজও এখন বাজারে নেই। যার ফলে দাম বৃদ্ধি পেলেও পেঁয়াজ আমদানি করতে হচ্ছে।’

এএস/ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!