কুয়েটের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বেস্ট পেপার অ্যাওয়ার্ড পেলো চুয়েট

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বেস্ট পেপার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) একটি গবেষক দল। এই সম্মেলনের মূল বিষয়বস্তু ছিল টেকসই উন্নয়নে পুরকৌশলের ভূমিকা৷

কুয়েটে আয়োজিত ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ফর সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট (আইসিসিইএসডি ২০২২) শীর্ষক সম্মেলনে স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং সেক্টরে এই বেস্ট পেপার অ্যাওয়ার্ডের পুরষ্কারটি অর্জন করে চুয়েটের গবেষক দল।

গবেষক দলটির সদস্যরা হলেন, চুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. জিএম সাদিকুল ইসলাম, তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান, মো. মোসাদ্দেক হামীম, তাহসিন মাহমুদ। এছাড়া ছিলেন দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জুশান আবদুল্লাহ, মো. মাহতাব ইশমাম ও মুমতাহিনা আলম।

রিসার্চ পেপারটির শিরোনাম ছিলো, ‘সিমেন্টের আংশিক প্রতিস্থাপন হিসেবে ফ্লাই অ্যাশ, সিলিকা ফিউম এবং জিজিবিএস ব্যবহার করে কংক্রিট স্ট্রাকচারের সার্ভিস লাইফ এবং পরিবেশগত কর্মক্ষমতা বিশ্লেষণ।’

পেপারটি আইসিসিইএসডি ২০২২-এ স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৭৩টি পেপারের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বেস্ট পেপার অ্যাওয়ার্ড পুরস্কারটি অর্জন করে। তাদের গবেষণার মূল উদ্দেশ্য ছিল একটি সম্পূর্ণ ভিন্নধর্মী কংক্রিটের মিশ্রণ উদ্ভাবন করা যা দীর্ঘদিন ব্যবহারে সক্ষম হওয়ার পাশাপাশি পরিবেশের উপর ন্যূনতম ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে।

গতবছর (২০২১ সাল) আমেরিকান কংক্রিট ইনস্টিটিউট (এসিআই) কর্তৃক আয়োজিত ইকো কংক্রিট প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে ছয় সদস্যের চৌকস গবেষক দলটি পুরো বিশ্বের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছিল। এই প্রতিযোগিতায় বিচারকমন্ডলীদের প্রশ্নের উত্তরে দলটি তাদের ইকোফ্রেন্ডলি কংক্রিট নিয়ে গবেষণা করার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছিলেন।

তারই ফলাফলস্বরূপ পরবর্তীতে গবেষণাধর্মী পেপার নিয়ে তারা কাজ করা শুরু করেন। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য নির্মাণ সামগ্রীর ক্ষতিকর প্রভাব কমিয়ে তাদেরকে যথাসম্ভব পরিবেশের জন্য নিরাপদ হিসেবে উদ্ভাবনের বিকল্প নেই। এই গবেষণামূলক কাজটি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ৯, ১১ এবং ১২ নম্বর লক্ষ্য তিনটি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

গত ১০ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া এ আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ড.দীপু মনি। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক ড. মোঃ শাহজাহান আলী এবং সম্পাদক ছিলেন অধ্যাপক ড. কাজী এবিএম মহিউদ্দিন।

এবারের এ সম্মেলনের উদ্দেশ্য ছিল শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, গবেষক এবং পুরকৌশলে আগ্রহী সলকে এই বিষয়ক গবেষণা এবং উদ্ভাবনের সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করা এবং পুরকৌশল সম্পর্কিত অত্যাধুনিক তথ্য বিনিময়ের জন্য দেশে এবং দেশের বাইরে একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করা। এছাড়াও, সম্মেলনটি শিক্ষাবিদ, সরকারী কর্মকর্তা, শিল্প বিশেষজ্ঞদের সাথে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ের অংশগ্রহণকারীদের ও প্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ দেয়।

এবারের এই সম্মেলনটির সমাপনী অনুষ্ঠান হয় গত ১২ ফেব্রুয়ারি। অনলাইন এবং স্বশরীর উভয় মাধ্যমে অংশগ্রহণের সুযোগ ছিল৷

এমএফও

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!