কুতুবদিয়া ছাত্রলীগ কমিটিতে ‘বিবাহিত’ আহ্বায়ক, ছিলেন হত্যা মামলার আসামিও

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এরশাদুল হক রুবেল হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মহিদুল হাসান হান্নানকে আহ্বায়ক করেই ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া তার বয়স ৩৪ বছর এবং তিনি বিবাহিত ও দুই সন্তানের জনক বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার (৩১ মার্চ) এই কমিটি প্রকাশ করেন কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান।

তবে মামলার চার্জশিট থেকে পুলিশ তার নাম বাদ দিয়েছে বলে জানান হান্নান। এছাড়া তিনি নিজেকে অবিবাহিত বলে দাবি করেন।

এদিকে এই কমিটি ঘোষণার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কমিটির আহ্বায়ক মহিদুল হাসান হান্নানের বয়স ৩৪ বছর। তিনি বিবাহিত এবং দুই সন্তানের জনক। কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এরশাদুল হক রুবেল হত্যা মামলার ৬ নম্বর আসামি। তিনি ২০১৮ সালে ঢাকা আজিমপুরের কাঁচাবাজার গলি এলাকার জাহাঙ্গীর আহমদের মেয়ে উম্মে মিথিলা তাসনীম আন্বীকে বিয়ে করেন।

শুধুমাত্র হান্নান জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসাইনের অনুসারী হওয়ার কারণে তাকে সকল নিয়ম-নীতি না মেনে আহ্বায়ক করা হয়েছে, যা সংগঠন পরিপন্থি।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আরও বলেন, হান্নান একদিকে বিবাহিত, অন্যদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রুবেল হত্যা মামলার ৬ নম্বর আসামি। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে আরও নানা অভিযোগ রয়েছে। শুধুমাত্র টাকার বিনিময়ে ৩৪ বছর বয়সী অছাত্র, দুই সন্তানের জনক ও হত্যা মামলার আসামি হান্নানকে আহ্বায়ক করা হয়েছে, যা ছাত্রলীগের জন্য খুবই নেক্কারজনক।

নবগঠিত কমিটির আহ্বায়ক মহিদুল হাসান হান্নান মামলার বিষয়টি স্কীকার করে বলেন, ‘আমাকে ওই মামলার চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।’

তবে তিনি বিবাহিত নন, এটি তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেন।

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসাইন বলেন, ‘যতটুকু জানি, হান্নানকে ওই মামলায় চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া বিবাহের যে অভিযোগ করা হচ্ছে, সেসকল কাবিননামা পর্যালোচনা করে তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’

এছাড়া নবগঠিত উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির একজন যুগ্ম-আহ্বায়ক নিয়েও অভিযোগ তোলেন কুতুবদিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবু ইউসুপ। তিনি দাবি করেন, কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ নুরুল আলম জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানের অনুসারী এবং একজন ছাত্রশিবিরের নেতা, সে কখনো ছাত্রলীগ করেনি।

ডিজে

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!